Mountain View

ব্রিটেনে গণভোট অনুষ্ঠিত

প্রকাশিতঃ জুন ২৪, ২০১৬ at ৭:৫৩ পূর্বাহ্ণ

ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে ব্রিটেন থাকবে নাকি ৪০ বছরের সম্পর্ক ছিন্ন করে একলা চলবে সে প্রশ্নে দেশটিতে গতকাল অনুষ্ঠিত হয়েছে ঐতিহাসিক গণভোট। সবশেষ জরিপগুলোতে দুই পক্ষে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস পাওয়া গেছে। হ্যাঁ আর না-পরে মধ্যে ব্যবধান খুবই সামান্য। তাই যে ভোটাররা এখনো ইইউতে থাকার পে অথবা বিপে সুস্পষ্ট অবস্থান নেননি, সেই দ্বিধাগ্রস্ত ভোটাররাই ফলাফলে নির্ধারকের ভূমিকা পালন করবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ৭টায় গণভোট শুরু হয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলে। এটি যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে তৃতীয় গণভোট। রেকর্ড চার কোটি ৬৫ লাখ ভোটার গণভোটে অংশ নিচ্ছেন। এ গণভোট ইইউর ৬০ বছরের ইতিহাসে ব্যাপক সঙ্কটের সৃষ্টি করেছে।  প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন স্ত্রী সামান্থাকে সাথে নিয়ে মধ্য লন্ডনের একটি ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যান। ক্যামেরন ইইউতে ‘থাকার’ পক্ষে প্রচারণার নেতৃত্ব দিয়েছেন।

গণভোটে ইতোমধ্যে গোটা যুক্তরাজ্যকে দুই ভাগে ভাগ করে দিয়েছে। ইইউতে থাকার যাকে বলা হচ্ছে রিমেইন বা ব্রিমেইন, ভোট দিতে প্রচারণায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ও লেবার পার্টির নেতা জেরেমি কার্বন। তাদের যুক্তি, এতে করে দেশটি হবে আরো সমৃদ্ধ এবং থাকবে আরো নিরাপদ। অন্য দিকে ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার যাকে বলা হচ্ছে লিভ বা ব্রেক্সিট, ভোট দিতে প্রচারণায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাবেক লন্ডন মেয়র ও বর্তমান সংসদ সদস্য বরিস জনসন।

ইইউ-বিরোধীদের মত, দেশের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে ফিরিয়ে আনার এটাই উপযুক্ত সময়। এ নিয়ে ব্রিটেনের বাইরেও চলছে ব্যাপক আলোচনা। ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার আগে ফলাফল সম্পর্কে জানা যাবে না। নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের মতে, ভোট গ্রহণ চলাকালীন তথ্য প্রকাশ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করতে পারে। তাই বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমকে ভোট গ্রহণ চলাকালে আগাম ফল প্রকাশে নিষেধ করা হয়েছে। তবে সর্বশেষ জনমত জরিপে দেখা গেছে, ব্রিটেনের ইইউতে থাকার পে ভোট দিতে পারেন ৪৮ ভাগ এবং বিপে ৪২ ভাগ। ফলে ৬ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে রিমেইন ক্যাম্প। শুধু ব্রিটেন নয়, এই গণভোট ঘিরে স্নায়ু টানটান গোটা বিশ্বের। ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেন বেরিয়ে এলে ইউরোর দাম অনেকটাই পড়বে। বাড়বে ডলারের দাম। ব্রিটেনের নিজস্ব মুদ্রা পাউন্ডের ওপরেও এর প্রভাব পড়বে। ফলে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের হিসাব-নিকাশ অনেকটাই বদলে যাবে। ব্রিটেনের স্টক মার্কেট গতকাল সকাল থেকেই টালমাটাল ছিল। প্রভাব পড়েছে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের স্টক মার্কেট-সহ বিশ্ববাজারেও।

রাত ১০টায় ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার পর সিল করা ব্যালট বাক্সগুলো সংগ্রহ করে তা গণনা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হবে। ভোট গণনার জন্য স্থানীয়ভাবে ৩৮২টি কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এ গণনা কেন্দ্রগুলো ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস এবং নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড ও জিব্রাল্টারের ৩৮০ স্থানীয় সরকারের সবগুলোকে প্রতিনিধিত্ব করছে। এরপর রাতভর ১১টি আঞ্চলিক ভোট গণনা কেন্দ্রের ফলাফলের পাশাপাশি স্বতন্ত্র এলাকাগুলোর ফলাফল ঘোষণা করা হবে। চিফ কাউন্টিং অফিসার পরে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করবেন। অবশ্য তার ঘোষণার আগেই ফলাফল সম্পর্কে ধারণা করা যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে নির্বাচন কমিশনের ধারণা, শুক্রবার সকালের দিকে চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা যাবে।

আজ শুক্রবার সকালে ফল ঘোষণার পর যদি দেখা যায়, ব্রিটেনের জনতা ইউরোপীয় ইউনিয়নে থেকে যাওয়ার পে মত দিয়েছেন, তা হলে সমস্যা নেই। তবে গণভোটের ফল যদি ব্রিটেনের বহির্গমনের পে হয়, তাহলে বিশ্ববাজার টালমাটাল হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে অর্থনীতিবিদেরা মনে করছেন।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View