রিভিউ কমিটিকে পথ দেখাবেন ভাড়া করে আনা বিশেষজ্ঞ

প্রকাশিতঃ জুন ২৫, ২০১৬ at ৫:৫৮ অপরাহ্ণ

টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই তাদের কাজ করার কথা। কিন্তু কমিটিই গঠন করা হলো দুই ম্যাচ বাকি থাকতে। বোলিং অ্যাকশন নিয়ে আর কাজ করা হয়নি চার সদস্যের কমিটির। কমিটি গঠন করার দিন জানানো হয়, বোলারদের নিয়ে এখন থেকে কাজ করবে তারা। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সহসাই কাজ শুরু হচ্ছে না। ঈদের পর গিয়ে কাজ শুরু হতে পারে।

এমনই জানালেন বোলিং অ্যাকশন রিভিউ কমিটির প্রধান ও বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। লিগ শেষ হওয়ার আগ মুহূর্তে কমিটি গঠন, যারা এখনো কাজ শুরু করতে পারেনি। এর সাথে যোগ হয়েছে নতুন বিষয়। যাদের ওপর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এবার তারাই বলছেন এ বিষয়ে ততোটা অভিজ্ঞ নন তারা। তাই একজন বিশেষজ্ঞ নিয়োগ দেয়া হবে। যার তত্ত্বাবধানে কাজ করবেন তারা।

এ বিষয়ে জালাল ইউনুস বলছেন, ‘বোলিং অ্যাকশন রিভিউর ব্যাপারটাতে আমরা অভিজ্ঞ নই। তাই একজন বিশেষজ্ঞ নিয়ে আসবো আমরা। এটার পেছনে খুব নিবিড়ভাবে সময় দিতে হবে আমাদের। কারণ এখানে প্রযুক্তির ব্যবহারও থাকছে। আমাদের এখন লম্বা বিরতি আছে। তো ভালোভাবে এটা সামলে নিতে পারবো। কমপক্ষে ১৩-১৪ জন বোলারকে রিপোর্ট করা হয়েছে। তাদের নিয়ে আমরা ঈদের পর কাজ শুরু করবো।’

জালাল ইউনুস ছাড়াও কমিটিতে আছেন সাবেক স্পিনার ওমর খালেদ এবং সাবেক দুই পেসার দিপু রায় চেীধুরী ও গোলাম ফারুক। রিপোর্ট হওয়া বোলার ও কমিটির তিন সদস্যকে নিয়ে জালাল ইউনুস বলছেন, ‘বোলিং অ্যাকশন দেখার জন্য সব বোলারকে নেটে ডাকবো আমরা। ওমর খালেদ, দিপু রায় ও গোলাম ফারুক তাদের দায়িত্ব বুঝে কাজ করবেন। ত্রুটি থাকলে তা শোধরাতে হবে আমাদের। এরপরও কাউকে নিয়ে রিপোর্ট করলে সে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হবেন।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হওয়া বাংলাদেশ পেসার তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানির বিষয়ে জানতে চাইলে জালাল ইউনুস বলেন, ‘আমাদের কার্যক্রমের আওতায় আরাফাত সানি ও তাসকিন আহমেদ নেই। জাতীয় দলের ম্যানেজম্যান্ট তাদের নিয়ে কাজ করছে। তাদের প্রিমিয়ার লিগের ভিডিও ফুটেজ দেখে যদি সন্তুষ্ট হওয়া যায়, একই সাথে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যায় তবে আগামী আন্তর্জাতিক সিরিজের আগে তারা তাদের দ্বিতীয় পরীক্ষা দিতে যাবে।’

এ সম্পর্কিত আরও