Mountain View

জাতীয় এবিটির সকালে ঘোষণা, রাতে হামলা

প্রকাশিতঃ জুলাই ২, ২০১৬ at ৫:৩৪ অপরাহ্ণ

hamla

ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলা চালিয়ে দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করার ঘটনায় দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএস (ইসলামিক স্টেট)। গতকাল শুক্রবার রাত ১টা ২৪ মিনিটে আইএসের কথিত মুখপত্র আমাক নিউজের বরাত দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জঙ্গি কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ এক টুইট বার্তায় এ খবর দিয়েছে। জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম ঘটনার পরপরই রাত ১০টা ৬ মিনিটে গুলশানে জিম্মির ঘটনার দায় স্বীকার করে টুইট করে। আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গ্রুপ আইএসের সর্বশেষ দাবি অনুযায়ী, গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় তাদের হামলায় ২৪ জন নিহত হয়েছে, আহত হয়েছে আরো ৪০ জন। গত রাত সাড়ে ৩টার দিকে আইএসের দ্বিতীয় দফার টুইটে এই তথ্য পাওয়া যায়।

 এদিকে গতকাল সকাল ১১টা ২ মিনিটে গুলশানে কূটনৈতিকপাড়ায় হামলার হুমকি দিয়ে টুইট করেছিল আনসার আল ইসলাম। তবে রাত ১টার দিকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উপকমিশনার শেখ নাজমুল আলম জানান, বন্দুকধারীরা যে উগ্রপন্থী গোষ্ঠীর সদস্য তা আপাতত মনে করা হচ্ছে। তবে তারা কোন  গোষ্ঠীর, সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

কিন্তু এই ভয়াবহ হামলার ঘটনা যে আগে থেকেই জানান দেওয়া হয়েছিল, তা পরখ করা গেল আনসার আল ইসলামের এক টুইট বার্তায়। যদিও ওই টুইট বার্তাটি হামলার আগে আগে মুছে দেয় তারা। গতকাল সকাল ১১টা ২ মিনিটে ওই টুইট বার্তায় গুলশানে কূটনৈতিকপাড়ায় আক্রমণের ঘোষণা দেওয়া হয়। আনসার আল ইসলাম বিডি নামের অ্যাকাউন্ট থেকে তারা এই আগাম হামলার তথ্য জানায়। তবে হামলার পর মধ্যরাতে টুইটারের এই অ্যাকাউন্ট আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। এটি হয় টুইটার কর্তৃপক্ষ বন্ধ করে দিয়েছে অথবা যারা এই হামলার আগাম তথ্য জানিয়েছিল তারাই বার্তাটি মুছে দিয়েছে।আনসার আল ইসলাম বিডি নামের ওই টুইট অ্যাকাউন্ট থেকে শুক্রবার সকাল ১১টা ২ মিনিটে হামলা সম্পর্কে বলা হয়, ‘বাংলাদেশের ডিপ্লোম্যাটিক জোনে এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় জিম্মি অপারেশন করতে যাচ্ছে আনসার আল ইসলাম ক্রুসেডার ও তার মিত্রদের বিরুদ্ধে। তবে মধ্যরাতে এই টুইট অ্যাকাউন্টটি আর সক্রিয় দেখা যায়নি।’

এদিকে গত রাত ১টা ৪৩ মিনিটে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গ্রুপ আইসিস প্রথম হামলার দায় স্বীকার করে। ওই সময় এ সাইটের কর্ণধার রিটা কার্টেজ একাধিক টুইট বার্তায় বলেন, ‘অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছে ঢাকা এমবাসি-পাড়ার এক রেস্টুরেন্টে আইএসের হামলায়। আর যারা জিম্মি রয়েছে তাদের মধ্যে বিদেশি দূতাবাসের দুজন অ্যাম্বাসাডরও রয়েছেন।’ এদিকে সকালে টুইটারে ঘোষণা দিয়ে এ রকম হামলা হওয়ার পর পুলিশ বিভাগের অনেকে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। কারণ ইন্টারনেট নজরদারির জন্য সরকারের একটি প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থাসহ সরকারের বেশ কিছু গোয়েন্দা সংস্থা সার্বক্ষণিক কাজ করে। কিন্তু এ রকম একটি ঘোষণা দেওয়ার পরও তা কারো চোখে পড়েনি, তা বিস্ময়ের।

সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, টুইট বার্তায় আজই (গতকাল ১ জুলাই) আনসারুল্লাহ বাংলা টিম রাজধানী ঢাকায় একটি অপারেশন করবে, এই ঘোষণা দেয়। হামলাকারীরা বিদেশিদের জিম্মি করবে, এটাও জানায়। এর পরও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা ছিল না, এটি দুঃখজনক। এ ধরনের হুমকিকে আমলে না আনা ভুল ছিল বলেও তাঁদের মত।

বাংলাদেশে এবিটি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন আইএসকে তাদের আদর্শ মনে করে। এ জন্য তারা নিজেদের আইএসের বাংলাদেশ শাখা হিসেবেও প্রচার করে থাকে। অন্যদিকে আইএসের নিজস্ব প্রচারমাধ্যম আমাক নিউজ থেকেও এ হামলার দায় স্বীকার করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View