Mountain View

গুলশানে হামলাকারী রোহান ইমতিয়াজ আওয়ামীলীগ নেতার ছেলে

প্রকাশিতঃ জুলাই ৩, ২০১৬ at ১:১২ অপরাহ্ণ

Screenshot_২০১৬-০৭-০৩-১৩-০৭-৪৪
কমন্ডো অভিযানে মুক্ত গুলশানের ক্যাফে থেকে উদ্ধার পাওয়া ব্যক্তিদের ১২ ঘণ্টার ‘দুঃস্বপ্ন’ কাটছে না। তাদের চোখেমুখে এখনো আতঙ্কের ছাপ। শুক্রবার রাতে একদল বন্দুকধারী রাজধানীর কূটনীতিকপাড়ার হলি আর্টিজান বেকারি নামক রেস্টুরেন্টে ঢুকে বিদেশিসহ বেশ কয়েকজনকে জিম্মি করে।

শনিবার সকালে কমান্ডো অভিযানে মুক্ত হন তাদের অনেকে। রুদ্ধশ্বাস এই অভিযানে জঙ্গীদের হাতে মৃত্যু হয় বিভিন্ন দেশের সহ বাংলাদেশের মোট ২০ জন নাগরিক ও দুজন পুলিশ অফিসারের । পরে যৌথ অভিযানে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে নিহত হন ৫ জঙ্গী ।

গুলশান ক্যাফেতে ‘হামলাকারীদের’ ছবি সাইট ইন্টেলিজেন্স প্রকাশের পর শনিবার রাতে এই জঙ্গীদের ছবি পুলিশও প্রকাশ করে । পুলিশ এই পাঁচজনের নাম বলেছে- আকাশ, বিকাশ, ডন, বাঁধন ও রিপন। তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানানো হয়নি।

তবে এরপর থেকেই তাদের একের পর এক পরিচয় বেরিয়ে আসছে ফেইসবুকে। পুলিশের দেয়া নামের সাথেও নেই মিল।

আইএসের সাইট ও পরবর্তীতে বাংলাদেশ পুলিশ কতৃক নিহত পাঁচ জঙ্গীর ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে একে একে বের হতে শুরু করে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য ।

গুলশানে হামলাকারী অন্যতম নিহত জঙ্গী রোহান ইমতিয়াজ আওয়ামীলীগ ঢাকা মহানগর কমিটির যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক ইমতিয়াজ খান বাবুলের ছেলে।

নিহত পাঁচ জঙ্গীর পরিচয় ইতমধ্যেই মিলেছে। এরা সবাই বিত্তবান পরিবারের সন্তান। এবং তাদের মধ্যে আগে থেকেই পরিচয় ছিলো । প্রায় সকলেই আকস্মিক ভাবে গত কয়েকমাস ধরে নিখোঁজ ছিলেন ।

নিচের ছবিতে নিহত জঙ্গী রোহানের বাবা ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতার ফেসবুকে শেয়ার করা একটি ‘মেমোরিড পোস্টে’ দেখা যাচ্ছে গত জুনের ২১ তারিখে তিনি রোহানের ফিরে আসার অনুরোধ জানিয়ে তাদের বাপ ছেলের একটি পোস্ট শেয়ার করছেন।

সরকারী দলের একজন শীর্ষ নেতার আধুনিক সন্তানের এমন ভয়ানক জঙ্গী হয়ে উঠার বিষয়টি অবাক করেছে সবাইকে। ফেসবুকে এসব নিয়ে চলছে আলোচনার ঝড় ।

imtiaj-joggi

ফেসবুক দেখে বোঝা যায় তিনি কিছুদিন ছেলেকে খুঁজে পাচ্ছিলেন না। রোহান ইমতিয়াজ নামের স্কলাসটিকার সাবেক ছাত্র।

বাবা-মার সঙ্গে তার ছবি ও বাবার সঙ্গে আলাদা একটি ছবি প্রকাশ পেয়েছে ফেসবুকে ।

যে পাঁচ জঙ্গির ছবি প্রকাশ করা হয়েছে তার মধ্যে তিনজনের পরিচয় তুলে ধরেছেন তাদের স্কুল-কলেজ সূত্রে পরিচিতজনরা।
ঢাকার কূটনীতিকপাড়া গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে একদল অস্ত্রধারী ঢুকে দেশি-বিদেশি অতিথিদের জিম্মি করে। প্রায় ১২ ঘণ্টা পর শনিবার সকালে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে কমান্ডো অভিযানের মধ্য দিয়ে রেস্তোরাঁর নিয়ন্ত্রণ নেয় নিরাপত্তা বাহিনী।

স্কলাসটিকার ছাত্র মীর সাবিহ মুবাশ্বের এ লেভেল পরীক্ষার আগে গত মার্চ থেকে নিখোঁজ বলে তার এক সহপাঠীর ভাষ্য।
সেখান থেকে ১৩ জন জিম্মিকে জীবিত উদ্ধার এবং ২০ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতদের মধ্যে ১৭ জনই বিদেশি বলে আইএসপিআর জানায়।রেস্তোরাঁয় নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে ছয় হামলাকারী নিহত এবং একজনকে গ্রেপ্তার হয় বলে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন।

ওই হামলায় জড়িত দাবি করে সাইট ইন্টিলিজেন্স যে পাঁচজনের ছবি প্রকাশ করেছে সেগুলোর সত্যতা বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা যায়নি।

এদিকে পুলিশ শনিবার রাতে নিহত পাঁচজনের লাশের ছবি প্রকাশ করেছে। দুই ছবির অন্তত চারজনের চেহারার মিল ধরা পড়ে। বাকি একজনের ছবি একই ব্যক্তির কি না, তা স্পষ্ট নয়।

এই হামলায় জড়িতদের পাঁচজন চিহ্নিত জঙ্গি বলে পুলিশ প্রধান এ কে এম শহীদুল হক ইতোমধ্যে বলেছেন। তাদের খোঁজা হচ্ছিল বলেও জানিয়েছেন তিনি।

পুলিশ এই পাঁচজনের নাম বলেছে- আকাশ, বিকাশ, ডন, বাঁধন ও রিপন। তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানানো হয়নি।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View