ঢাকা : ২৮ মার্চ, ২০১৭, মঙ্গলবার, ৮:২৫ পূর্বাহ্ণ
সর্বশেষ
আতিয়া মহলের নিচতলায় ৪টি লাশ হারের বদলা নিতে শ্রীলঙ্কা দলে যুক্ত বাড়তি দুই পেসার, পাল্টে ফেলেছে উইকেটের চিত্রও অভিনেতা মিজু আহমেদ মারা গেছেন মোটরসাইকেলে দুজনের বেশি ওঠলে ৩ মাসের কারাদণ্ড দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচের জন্য টাইগারদের শক্তিশালী একাদশ প্রকাশ আবারও আলোচনার টেবিলে মারুফ, সুখবরের আভাস শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচ আগামীকাল, যা বললেন মাশরাফি স্বপ্নের ফাইনালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিপক্ষ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শততম টেষ্টের জয় নিয়ে প্রশ্ন তোলায় আইসিসিকে ধিক্কার জানালো বিসিএসএফ ভারতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় মুসলিম হত্যা ও ঘর-বাড়িতে আগুন
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

মেরুদণ্ডের হাড় ভাঙলে

merudon

মেরুদণ্ডের হাড় ভাঙলে তা রোগীর জন্য বিপদের কারণ হয়, কেননা মেরুদণ্ডের ভিতরে থাকে স্পাইনাল কর্ড- যেকোনো সময় ক্ষতবিক্ষত হতে পারে। যদি স্পাইনাল কর্ড আক্রান্ত হয় তাহলে রোগীর শরীরের নিম্নভাগ অসাড় হয়ে যায়। তাই মেরুদণ্ডে আঘাতপ্রাপ্ত রোগীকে সর্বাধিক সতর্কতার সাথে প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে হবে। রোগীর মেরুদণ্ড ভেঙেছে সন্দেহ হলে কি করবেন?

– যদ্দুর সম্ভব রোগীকে কম নড়াচড়া করাতে হবে। তাকে এমনভাবে তুলতে হবে যেন আহত কশেরুকা বেঁকে, মুচড়ে বা জায়গা থেকে সরে না যায়। শোয়ানো অবস্থাতেই পরীক্ষা করতে হবে তার হাতের আঙুল, কব্জি, হাঁটু বা পায়ের পাতা নাড়াতে পারছে কি না। যদি নাড়াতে পারে বুঝতে হবে রোগীর অবস্থা কম ঝুঁকিপূর্ণ আর মোটেই নাড়াতে না পারলে বুঝতে হবে তার অবস্থা বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।

– রোগীকে শেয়ানোর সময় এমনভাবে শেয়াতে হবে যে ভঙ্গিতে শুলে রোগী আরামবোধ করেন। তবে সাধারণত চিত করে শোয়ালে রোগী স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে বেশি এবং হাড় নিরাপদে থাকে। রোগীকে কোনোভাবেই নড়াচড়া কিংবা বসানো চলবে না। এমনকি উপুড় করাও নিষেধ।

– রোগীকে শোয়ানোর সময় একাধিক ব্যক্তির সাহায্য নিতে হবে যাতে রোগীর নিজ থেকে শারীরিক চাপ প্রয়োগ করতে না হয়। রোগীর ঘাড় যাতে বেঁকে না যায় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

– রোগীর বুক, কোমর, মাথা এবং ঘাড়ের দু’পাশে বালিশ বা কম্বল রাখুন রাতে সে তার এসব অঙ্গ নাড়াতে না পারে রোগী যাতে ঠিকমতো শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পারে সেদিক খেয়াল রাখুন। অতঃপর রোগীক স্ট্রেচার কিংবা সমান্তরাল কাঠের তক্তায় উঠিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। এ সময়ে তার যাতে ঝাঁকি না লাগে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

– স্ট্রেচার বা কাঠের তক্তা পাওয়া না গেলে চারজন লোক ধরাধরি করে রোগীকে হাসপাতালে নিতে হবে। একজন রোগীর মাথার নিচে, দ্বিতীয়জন রোগীর কাঁধের হাড়ের নিচে, তৃতীয়জন রোগীর নিতম্বের নিচে ও চতুর্থজন রোগীর হাঁটু ও পায়ের নিচে হাত রেখে রোগীকে সমান্তরাল রাখতে হবে যাতে রোগীর মেরুদণ্ড বেঁকে না যায়।

এ সম্পর্কিত আরও

Best free WordPress theme

Check Also

২৪ বছর বয়সে যে ১০ দক্ষতা জরুরি

আপনার বয়স যখন ২৪ বছর তখন নিশ্চিতভাবেই আপনি যথেষ্ট পরিণত। এ সময়ের দক্ষতাগুলো, আপনার বাকি …