Mountain View

মোটা ব্যাটে বাড়তি সুবিধা নিচ্ছেন ব্যাটসমানরা

প্রকাশিতঃ জুলাই ১৪, ২০১৬ at ৯:০৩ অপরাহ্ণ

bat

বিশ্ব ক্রিকেটে ব্যাটসম্যানদের বাড়তি সুবিধা কমাতে ব্যাটের পরিধি নিয়ন্ত্রণে এমসিসির সর্বশেষ উদ্যোগে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবি পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন। খেলোয়াড় হিসেবে মাঠ ছাড়ার পরও কোচ, জাতীয় দলের ম্যাসেজারসহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করে মাঠেই রয়েছেন সুজন। আধুনিক ক্রিকেটের বিভিন্ন পরিবর্তনটাও দেখছেন কাছ থেকেই। আধুনিক ব্যাটগুলো যে ব্যাটসম্যানদের বাড়তি সুবিধা দেয় সেটা তার নিজের অভিজ্ঞতায় স্পষ্ট।

তিনি বলেন, আমাদের সময়ে ব্যাটে এতো পাওয়ার ছিল না, সুইট স্পটে না লাগলে বল মাঠ পার হতো না। ক্যারিয়ারে বহুবার বাউন্ডারি লাইনে আউট হয়েছি। বর্তমান সময়ে ব্যাটসম্যানরা যেসব ব্যাট দিয়ে খেলেন সেগুলো পেলে বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ তুলে আউট হওয়ার অনুপাত অনেক কম হতো। ক্রিকেট ব্যাটে প্রযুক্তির সমন্বয় খেলার চেহারাই বদলে দিয়েছে, ক্রিকেটের ব্যাপক প্রসারের পেছনেও এর অবদান রয়েছে। চার-ছক্কা দেখে আনন্দ পাচ্ছেন দর্শকরা। সুজনের চোখে বেশি ধরা পড়েছে ব্যাটের ওজনের সঙ্গে আকৃতির অসামঞ্জস্যতা।

তিনি বলেন, আগে ব্যাট মোটা হলে ওজন অনেক বাড়তো। কিন্তু এখন তা হয় না। উইলোর মান এখন এতো ভালো এবং একটি ব্যাটকে যেভাবে প্রসেস করা হয় তাতে এর পুরুত্ব বাড়লেও ওজন আনুপাতিক হারে বাড়ে না। সে ক্ষেত্রে একজন ব্যাটসম্যান নিজের সুবিধা অনুয়ায়ী ব্যাট ব্যবহার করে সাফল্য লাভ করেন।

উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, দেখুন শারীরিক কাঠামোর কারণে ক্রিস গেইল ও মুশফিকুর রহিমের পাওয়ারে অনেক ব্যবধান থাকার কথা। কিন্তু দু’জনেই অবলীলায় বল মাঠ পার করছেন। অনুশীলন ও ফিটনেস তো লাগেই তবে ব্যাট এক্ষেত্রে রাখছে জোরালো ভূমিকা। নিজ নিজ ‘টেইলরড’ ব্যাট না হলে নানা অসুবিধার মুখে পড়তে হতো আধুনিক যুগের ব্যাটসম্যানদের। যা ক্রিকেটে ইতিবাচক ভূমিকা রাখত না। ওয়ানডে ও টি-২০তে ব্যাটসম্যনদের দাপট সম্পর্কে শুধু ব্যাটের ভূমিকাই থাকে এমন ধারণা মানতে নারাজ সুজন।

তার মতে, আসলে সব জায়গায়ই সংক্ষিপ্ত পরিসরের দুটি খেলাই হয় ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে। বোলাররা উইকেটে থেকে বেশি সাহায্য পায় না। তাই শুধু মোটা ব্যাটকে দোষ দেয়াটা ঠিক নয়। তবে শেষ পর্যন্ত একটি সুনির্দিষ্ট কাঠামো থাকলে তা সবার জন্য ভালো বলে মন্তব্য করেছেন সুজন। তিনি বলেন, বিশেষ ব্যাট দিয়ে যদি কেউ বাড়তি সুবিধা আদায় করে, তবে আইসিসি তা অবশ্যই খতিয়ে দেখবে। কিছু দৃষ্টান্ত রয়েছে বলেই তো এখন এসব বিষয় আলোচনায় আসছে। আমার বিশ্বাস নতুন যে নিয়মই আসুক না কেন তা ক্রিকেটের সার্বিক বিষয়গুলো পর্যালোচনা করেই করা হবে এবং ব্যাটসম্যনেরা এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না।

এ সম্পর্কিত আরও

আপনিও লিখুন .. ফিচার কিংবা মতামত বিভাগে লেখা পাঠান [email protected] এই ইমেইল ঠিকানায়
সারাদেশ বিভাগে সংবাদকর্মী নেয়া হচ্ছে। আজই যোগাযোগ করুন আমাদের অফিশিয়াল ফেসবুকের ইনবক্সে।