Mountain View

যশোরে পুরুষাঙ্গ কেটে ক্লিনিকে হিজড়া বানানোর অভিযোগ!

প্রকাশিতঃ জুলাই ১৪, ২০১৬ at ৯:০৪ অপরাহ্ণ

যশোরে এক যুবকের পুরুষাঙ্গ কেটে হিজড়া বানানোর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় একটি বেসরকারি ক্লিনিকের মালিক, ম্যানেজার ও নার্সকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সদরের বসুন্দিয়া মোড়ের মহুয়া সার্জিক্যাল ক্লিনিকে ভুক্তভোগীকে উদ্ধারের পর তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

আকটকৃতরা হলেন, মহুয়া সার্জিক্যাল ক্লিনিকের মালিক ও  সদর উপজেলার চেঙ্গুটিয়া গ্রামের খলিলুর রহমান ও তার ভাই ম্যানেজার ইউনুস আলী এবং বাঘারপাড়ার বহরামপুর গ্রামের আবু বক্করের মেয়ে সেবিকা (নার্স) রাজিয়া সুলতানা ওরফে হাবিবা।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিলো। ঘটনার শিকার ওই ব্যক্তি বরগুনা সদরের ধোপাদী গ্রামের বাসিন্দা।

আটক খলিলুর রহমানের স্ত্রী মাহমুদা খাতুন বলেন, ওই যুবক এক বছর আগে পুরুষাঙ্গ কেটে হিজড়া হন। এখন তার নাম শান্তা। তার প্রস্রাবের নালিতে জ্বালাপোড়া করায় তিনি বৃহস্পতিবার চিকিৎসা নিতে এসেছিলেন।

যশোর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইলিয়াস হোসেন বলেন, পুরুষাঙ্গ কেটে যুবককে হিজড়া বানানোর ঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়েছে। ক্লিনিকের বিষয়টি সিভিল সার্জনকে অবহিত করা হয়েছে।

সদর উপজেলার বসুন্দিয়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) সোহরাব হোসেন জানান, মহুয়া সার্জিক্যাল ক্লিনিকে পিরোজপুরের শিপনের বাড়ির ভাড়াটিয়া ও বরগুনা সদরের ধোপাদী গ্রামের বাসিন্দা এক ব্যক্তির পুরুষাঙ্গ কেটে হিজড়া বানানো হয়েছে এমন খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযানে যায়। সেখান থেকে ক্লিনিক মালিক, ম্যানেজার, নার্সসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে। আর লিঙ্গ পরিবর্তনের পর শান্তা নাম রাখা হিজড়াকে উদ্ধার করা হয়।

এসআই সোহরাব হোসেন আরও জানান, এর আগেও এই ক্লিনিকে এমন ঘটনা ঘটেছে। এই ক্লিনিকে কোন ডাক্তার নেই। তারা ক্লিনিক খুলে মানুষকে প্রতারিত করছে। এই ক্লিনিকে এর আগে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়েছেন। তখন মালিক খলিলুর রহমানকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View