Mountain View

সবচেয়ে বেশি বয়সে টেস্ট সেঞ্চুরির কীর্তিটা এখন মিসবাহ”র

প্রকাশিতঃ জুলাই ১৪, ২০১৬ at ১১:১০ অপরাহ্ণ

আগের ২৭ ইনিংসে সেঞ্চুরির দেখা না পাওয়া মিসবাহ আজ দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করলেন সেই চাপের মুখেই। ঠিক সেঞ্চুরি করেই অবশ্য আউট হয়ে গেছেন। তবে সেঞ্চুরি দিয়েই নাম লিখিয়েছেন রেকর্ড বইয়ে।

পাকিস্তানের পক্ষে সবচেয়ে বেশি বয়সে টেস্ট সেঞ্চুরির কীর্তিটা এখন তাঁরই। মিসবাহ ভেঙে দিয়েছেন পাকিস্তান কিংবদন্তি জহির আব্বাসের রেকর্ড।পাকিস্তানের তৃতীয় অধিনায়ক হিসেবে ইংল্যান্ডে প্রথম টেস্টে ১০০ বা এর বেশি রান করলেন মিসবাহ।

এর আগে এই কৃতিত্ব দেখিয়েছেন পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক হানিফ মোহাম্মদ ও জাভেদ মিয়াঁদাদ।

১৯৬৭ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডস টেস্টেই পাকিস্তানের প্রথম ইনিংসে অপরাজিত ১৮৭ রান করেছিলেন হানিফ মোহাম্মদ। ১৯৯২ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এজবাস্টন টেস্টের প্রথম ইনিংসে অপরাজিত ১৫৩ রান করেছিলেন মিয়াঁদাদ। এবার সেঞ্চুরি করলেন মিসবাহ।misah

৪২ বছর ৪৭ দিন বয়সে খেলতে নামা মিসবাহ লর্ডস টেস্টে সেঞ্চুরি করা সবচেয়ে বয়স্ক সফরকারী অধিনায়কও। মিসবাহর চেয়ে বেশি বয়সে ইংল্যান্ডে টেস্টে ১০০ বা এর বেশি রান করা সফরকারী ক্রিকেটার আছেন আর একজন- ওয়ারেন ব্র্যাডসলি। প্রাক্তন অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান ১৯২৬ সালে ৪৩ বছর ২০২ দিন বয়সে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডস টেস্টেই করেছিলেন অপরাজিত ১৯৩ রান।

আবুধাবি টেস্টেও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয়ের স্বপ্ন দেখছে পাকিস্তান। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে ৭২ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এখনো পাকিস্তানের প্রথম ইনিংসের চেয়ে ১২১ রানে পিছিয়ে আছে তারা। জিতলে এটি হবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে পাকিস্তানের মাত্র চতুর্থ টেস্ট জয়। সর্বশেষ জয়টিও ২০০৭ সালের জানুয়ারিতে।১৯৩ রানের বিশাল লিড পেয়েছিল পাকিস্তান। তাতে অবশ্যই বড় কৃতিত্ব মিসবাহর সেঞ্চুরির।

৩ উইকেটে ২৬৩ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছিল পাকিস্তান। আগের দিন ১৩১ রানে অপরাজিত খুররম মঞ্জুর অবশ্য আজ আর ১৫ রান যোগ করেই বিদায় নিয়েছেন। তবে তাঁর বিদায়ে পাকিস্তানের যে খুব বেশি ক্ষতি হয়নি, সেটাই মিসবাহ বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন আসাদ শফিককে সঙ্গে নিয়ে।

শফিকের সঙ্গে ৮২ রানের জুটি গড়েন পঞ্চম উইকেটে। ৫৪ রান করে শফিক বিদায় নেন। তবে অন্যপ্রান্তে মিসবাহ ছিলেন অবিচল। নিজের চতুর্থ সেঞ্চুরিটিও তুলে নেন মিসবাহ। কিন্তু সেঞ্চুরি করার পরের ওভারেই আউট হয়ে যান ডেল স্টেইনের বলে। মিসবাহর বিদায়ের পর অবশ্য খুব বেশি টেকেনি পাকিস্তানের ইনিংস। মাত্র ১৯ রানে পড়েছে শেষ ৪ উইকেট। স্টেইন ও ফিল্যান্ডার নিয়েছেন ৩টি করে উইকেট।

প্রায় দুই শর মতো রানে পিছিয়ে থেকে প্রোটিয়ারা শুরুটা কিন্তু বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই করেছিল। বিনা উইকেটে ৩৮ তুলে ফেলার পরই শুরু হলো পা হড়কানো। স্কোরবোর্ডে পরের ৩৪ জমা হতেই সাজঘরে ফিরেছেন পিটারসেন (১৭), স্মিথ (৩২), ক্যালিস (০) এবং আমলা (১০)। এর মধ্যে একেবারে দিনের শেষ ওভারে আমলার বিদায় পাকিস্তানের জন্য সবচেয়ে বড় সুখবর। পাকিস্তানের চার বোলারই একটি করে উইকেট নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে কোণঠাসা করতে রেখেছেন সমান অবদান।

রেকর্ড গড়ার দিনটা বেশ তৃপ্তি নিয়েই কাটালেন মিসবাহ। পাকিস্তানের পক্ষে সবচেয়ে বেশি বয়সে টেস্ট সেঞ্চুরির রেকর্ডটা মিসবাহ গড়েছেন ৩৯ বছর ১৪১ দিন বয়সে। জহির আব্বাসের রেকর্ডটি ছিল ৩৭ বছর ৮৫ দিন বয়সে করা। ১৯৯৩ সালে করা গ্রাহাম গুচের সেঞ্চুরির পর ৩৯ পেরিয়েও এই প্রথম কেউ সেঞ্চুরির দেখা পেলেন। সবচেয়ে বেশি বয়সে টেস্ট সেঞ্চুরির বিশ্ব রেকর্ডটা জ্যাক হবসের (৪৬ বছর ৮২ দিন)।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View