ঢাকা : ২৯ এপ্রিল, ২০১৭, শনিবার, ৯:৩৬ পূর্বাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

ধলেশ্বরীতে বিলীন হচ্ছে নাগরপুরের ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা

মোঃনাজমুল হাসান : টাংগাইল জেলা নাগরপুর থানাধীন মোকনা ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা,দিনে দিনে ধলেশ্বরী নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে।বর্ষা মৌসুমে নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে মোকনা ইউনিয়নের কয়েক কিলো মিটার জাগয়া নদী গর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে। কৃষকের অাবাদী জমি সহ ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা ঘাট নদীগর্ভে চলে যাওয়ার ফলে জনসাধান চরম দূভোগে অাছে। প্রতিনিয়ত নদীর অাগ্রাসনে হারিয়ে যাচ্ছে মানুষের অাবাদী জমি জমা সহ বসত বাড়ি, স্কুল,হাসপাতাল,মসজিদ,মন্দির,পোস্ট অফিস, ও শত বছরের ঐতিহ্যবাহি বাজার। নদী পাড়ের হাজারো মানুষের রাত কাটে এখন র্নিঘুম অার অনিরাপত্তায়। খোলা অাকাশে নিচে বসবাস করছে অনেক পরিবার অনেকে অাবার দাবী করছে রাতে চোরের অাক্রমনের।

রাস্তা ঘাট ভেঙ্গে যাওয়ার ফলে স্কুলও কলেজ গামী ছাএ ছাএী পড়ালেখার ব্যপক ক্ষতি হচ্ছে।কয়েক কিলোমিটার, অাবাদি জমি ধান পাট,ভোট্টা,বিভিন্ন প্রকার বাগন সহ ফসলি জমি। ধলেশ্বরী নদী পারের মানুষের হতাশা দিন দিন চরমে নদী ভাঙ্গনের বিষয়ে তাদের কাছে জানতে চাইলে তারা চরম ক্ষোভ অার হতাশা ব্যক্ত করেন। কেউ কেউ অাবার সমাজের কিছু সুবিধা ভোগী কূচক্রি মানুষের দোষ তুলে ধরেন।

তারা অারো বলেন স্থানীয় কোন জন প্রতিনিধি এখন পযন্ত কেউ ভাঙ্গন এলাকায় অাসে নাই। তবে কোন কোন এলাকায় স্থানীয় এমপি খন্দকার অাব্দুল বাতেন নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করে সাহায্য সহোযগিতার কথা বলেও এখন পযন্ত তা কার্যকর হয়নি। স্থানীয় এলাকাবাসির দাবি এখনি যদি ধলেশ্বরী নদী ভাঙ্গন রোধ না করে অচিরেই মোকনার ফসলি জমি,রাস্তা ঘাট সহ ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা সমূহ নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

মোহাম্মদপুরে মসজিদ উচ্ছেদ করে নাট্যশালা তৈরির পরিকল্পনা

উন্নয়নের নামে মুহাম্মদপুর বেড়িবাঁধ সংলগ্ন নিজস্ব ও সরকারি খাস জমির উপর দীর্ঘ ২৫ বছর পূর্বে …

আপনার-মন্তব্য

Loading...

টাইমস is Stephen Fry proof thanks to caching by WP Super Cache