ঢাকা : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, রবিবার, ১২:১০ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

শেরপুরে আইএসের হুমকীতে আতংক, নিরাপত্তা বৃদ্ধি

nira

মো.জিহান মিয়া,নকলা (শেরপুর) প্রতিনিধিঃ-কথিত ‘আইএস’ ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের নামে চিঠি দিয়ে শেরপুরের নকলায় মসজিদ, ইউএনও অফিস, থানা ভবন ও আওয়ামী লীগ নেতার বাসা গ্রেনেড ও বোমা মেরে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে। ১৮ জুলাই সোমবার রাতে নকলা উপজেলা আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী অনিল কুমার রায়ের বাসায় ওই চিঠি দেওয়া হয়। ওই ঘটনায় রাতেই নকলা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করা হয়েছে।

এদিকে হুমকি সমেত ওই চিঠির ঘটনা জানাজানি হওয়ার পরপরই আওয়ামী লীগ নেতার পরিবারসহ সর্বত্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরে দ্রুত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার ও সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নেওয়া হয়। ১৯ জুলাই মঙ্গলবার সকাল থেকেই সংশ্লিষ্ট এলাকাসহ শহরজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করা হয়। রাস্তায় বসানো হয় চেকপোস্ট।

এদিন বিষয়টি নকলার গন্ডি পেরিয়ে বিভিন্ন এলাকায় ‘টক অব দি জেলা’ হিসেবে আলোচিত হতে থাকে। অন্যদিকে সাম্প্রতিক প্রেক্ষাপটে বিষয়টিকে হালকাভাবে না নিয়ে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় রয়েছে পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

জানা যায়, সোমবার রাত পৌনে ৯টার দিকে নকলা উপজেলা আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক অনিল কুমার রায়ের শহরের কামারপট্টি এলাকাস্থ বাসভবনের প্রধান ফটকে দুর্বৃত্তরা এ চিঠি রেখে যায়। ওই সময় তিনি বাড়িতে ছিলেন না। পরে তিনি রাত ৯টার দিকে বাড়িতে গিয়ে ওই চিঠি পড়েন।

আওয়ামী লীগ নেতা অনিল রায় জানান, ওই চিঠিতে ছাত্র শিবির ও আইএসের বরাত দিয়ে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘৫০ সদস্যের একটি দল একযোগে ২শ গ্রেনেড মেরে অনিল বাবুর বসতবাড়ি, নকলা উপজেলা সদরের সকল মসজিদ, ইউএনও অফিস ও থানা ভবন উড়িয়ে দেওয়া হবে। এছাড়া নকলা শহরের আব্বাস আলী রোডস্থ গোলাম স্যারের বাসার ভাড়াটিয়া একটি পারী নামক একটি এনজিওতে কর্মরত বরিশালের বাসিন্দা ২ খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সদস্যকেও হত্যা করা হবে।

দুই পৃষ্ঠার ওই চিঠির উপরের অংশ আরবীতে লেখা এবং নিচের অংশ আরবীর বাংলা অনুবাদ করা হয়েছে। শেষাংশে বলা হয়েছে, ‘যেকোনো মূল্যে ওই কর্মসূচী বাস্তবায়ন করা হবে। আমরা জীবন দিতে প্রস্তুত। মৃত্যুকে পরোয়া করি না।’

মঙ্গলবার দুপুরে নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. গোলাম হায়দার ওই ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করে এই প্রতিনিধিকে বলেন, এই ঘটনায় থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। কারা চিঠি দিয়েছে তা খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে। ঘটনার পর থেকে শহরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার ও সতকর্তামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।এ ব্যাপারে শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল ওয়ারীশ এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, আইএস ও শিবিরের নামে দেওয়া চিঠির বিষয়টি নিছক আতঙ্ক ছড়ানো না সত্যিকার অর্থেই সে ধরনের কিছু তা তদন্ত ছাড়া এখনই বলা যাচ্ছে না।

এ সময়ে দেশে যেহেতু বড় বড় ধরনের হামলা-নাশকতার ঘটনা ঘটছে, সেহেতু হুমকির বিষয়টিকেও একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। সবই হওয়া সম্ভব। আর সেগুলো বিভিন্ন ধরনের মোটিভ থেকেই হতে পারে। তবে নাশকতার আশঙ্কা মাথায় রেখেই শহরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারকরণসহ মঙ্গলবার উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনসহ রাজনৈতিক, সামাজিক নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে জনসচেতনতা।

শেরপুরের জেলা প্রশাসক ডা. এ এম পারভেজ রহিম বলেন, প্রায় ৮ মাস আগে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার ভবন উড়িয়ে দেওয়া হবে- এমন হুমকি দিয়ে আমাদের কাছেও কাফনের কাপড় পাঠানো হয়েছিল। যারা ওইসব কাজ করে তারা ভীরু ও কাপুরুষ। সাহস থাকলে সামনে এসে কথা বলুক। তিনি আরও বলেন, ওইসব নিয়ে ভয়ের কোনো কারণ নেই। প্রশাসন সতর্ক রয়েছে।

আমরা কাউকে ছেড়ে কথা বলবো না। এদিকে নকলা শহরে প্রবেশ করার বিভিন্ন সড়ক মহাসড়কে সব ধরনের যানবাহন তল্লাশী চালায় নকলা থানার পুলিশ সহ অতিরিক্ত পুলিশ। তল্লাশী চলাকালে শাহীন নামের এক পলাতক পেশাধার চুরকে আটক করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

পটুয়াখালীতে ১২ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই

টুয়াখালীর পায়রাগঞ্জ ফেরিঘাট সংলগ্ন এলাকায় আগুনে ১২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে গেছে। এ ঘটনায় প্রায় ২৬ …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *