ঢাকা : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, রবিবার, ৩:৫৬ পূর্বাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
প্রচ্ছদ > অর্থনীতি > আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে কমছে দেশি জাহাজের ব্যবহার

আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে কমছে দেশি জাহাজের ব্যবহার

0,,15698222_303,00


  • দেশি মালিকানার বিদেশগামী জাহাজের সংখ্যা কমে যাওয়ার কারণে আমদানি-রফতানিতে বিপুল অঙ্কের টাকা নিয়ে যাচ্ছে বিদেশি জাহাজগুলো। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের বিদেশগামী জাহাজের সংখ্যা ছিল ৬৩টি। গত অর্থবছরে তা কমে হয়েছে ৪৭টি । চট্টগ্রাম নৌবাণিজ্য অধিদপ্তরের প্রিন্সিপাল অফিসার প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘দেশের পতাকাবাহী বিদেশগামী জাহাজের সংখ্যা কমছে। জাহাজগুলোর অবস্থানগত ব্যয়, কর্মচারীদের বেতন ও আনুষঙ্গিক ব্যয় বেড়ে যাওয়ার কারণে এ সংখ্যা কমে যাচ্ছে। ফলে জাহাজ মালিকরা এসব জাহাজ স্ক্র্যাপ করে ইয়ার্ড মালিকদের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে।’
  •  নৌবাণিজ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, বন্ধ হয়ে যাওয়া জাহাজগুলোর মধ্যে রয়েছে আবুল খায়ের গ্রুপের ইসমা, আমেসি ও রামসি নামে তিনটি জাহাজ। এ ছাড়া বেনগার্ড, সিম্পনি শিপিং ম্যানেজমেন্ট, একে শিপিং ম্যানেজমেন্টের বিদেশগামী জাহাজগুলোও বন্ধ হয়ে গেছে। বেসরকারি এইচআরসি শিপিংয়ের মালিকানাধীন আটটি এবং সরকারি বিএসসির দুটি জাহাজও বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে বিদেশি জাহাজগুলোর মাধ্যমে বাড়ছে আমদানি-রফতানি। ফলে এসব জাহাজের ভাড়া বাবদ গুনতে হচ্ছে কোটি কোটি টাকা। বন্ধ হয়ে যাওয়া বেনগার্ড শিপিং করপোরেশনের কর্মকর্তা মো. শাহাদাৎ বলেন, আন্তর্জাতিক জাহাজগুলোর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে পারছে না দেশি পতাকাবাহী জাহাজগুলো। জ্বালানি খরচ বেশি হওয়া এবং জাহাজগুলোর অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়ার কারণে ভাড়া নিতে চান না আমদানিকারক ও রফতানিকারকরা। ফলে লোকসান গুনতে গুনতে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে দেশি জাহাজগুলো।’

এ সম্পর্কিত আরও

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *