Mountain View

ছবিটা দেখে আমাদের লজ্জা হওয়া উচিৎ

প্রকাশিতঃ জুলাই ২২, ২০১৬ at ৮:০২ অপরাহ্ণ

lojja

আমাদের দেশে পথচারীদের সড়ক পারাপারে ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারে উৎসাহিত করতে চলছে নানান উদ্যোগ। ব্রিজগুলোতে করা হয়েছে ফুলেল বাগানও। সড়কদ্বীপগুলোতে দেয়া দীর্ঘ ‘বেড়া’। কিন্তু কিছুতেই কিছু হচ্ছে না।

অবশেষে নেয়া হয়েছে জেল-জরিমানারও উদ্যোগ। সোজা আঙুলে ঘি না উঠলে একটু বাঁকাতেই হয় -কথাটা বোধহয় আমাদের জন্যই।‘শর্টকাট’ এই পথচারীদের জন্য রাজধানীর বিভিন্নস্থানে প্রায়ই অভিযান চালিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ভ্রাম্যমাণ আদালত। অনেককেই করা হয়েছে জরিমানা। তারপরও ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপারের চেষ্টা কমেনি।

এ বিষয়ে কথা হয় ডিএমপি ট্র্যাফিক (দক্ষিণ) বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) রিফাত রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন, আমাদের দেশে এটা বেশ বড় একটা সমস্যা। এই সমস্যার জন্য রাস্তায় অনেক সময়ই যানজট লেগে যায়, গাড়ির গতি কমে যায়। অনেক সময় একজনের জন্য পুরো সড়কে অনেক মানুষের সময় নষ্ট হয়।

তিনি আরো বলেন, ‘বিভিন্ন মিডিয়ার মাধ্যমে ও নিজেরা প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারকে উৎসাহিত করা হচ্ছে বেশ কিছুদিন থেকেই। তারপরও কমছে না।’সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ভাইরাল’ হয়ে ওয়ালে ওয়ালে ঘুরে ফিরছে একটি ছবি। ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে কিছু গরু ওভারব্রিজের ওপর দিয়ে সড়ক পার হচ্ছে। যদিও সড়কটি বেশ ফাঁকাই মনে হচ্ছিল।

ছবিটা আহামরি তেমন কিছু না, কোথায় তোলা তাও জানা যায়নি। অথচ আমাদের দেশে ওভার ব্রিজের ওপরে লোকজন ‘বাতাস খায়’, বসে নানা রকম দোকানের পসরাও।ছবিটি ফেসবুকে একজন শেয়ার করে লিখেছেন আমাদের লজ্জা হওয়া উচিৎ। আমি বলি আমাদের দেশের একটি ছবি এই ছবির পাশাপাশি রেখে সচেতনতা তৈরিতে হতে পারে প্রতীকী প্রতিবাদ।

আমরা চায়ের দোকানে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকলেও, ত্বরায় পড়ি সেলুনে গিয়ে। যেন আমার চেয়ে ব্যস্ত আর পৃথিবীতে কেউ নাই। ঠিক সড়কে নামলেও একই অবস্থা, সবার আগে যাওয়ার তৈরি হয়েছে অসুস্থ প্রতিযোগিতা।

এজন্য প্রাণ যাচ্ছে হাজারো মানুষের। প্রতিদিনই খবরের কাগজে বেরোচ্ছে সড়ক দুর্ঘটনার খবর। এসব দুর্ঘটনার জন্য যেমন বেপোরোয়া গাড়ি চালানোকে আমরা দায়ী করি তেমনি, আমরা পথচারীরা দায় এড়াতে পারি না। আমাদের চলা ফেরায় সাবধানতা অবলম্বন করা উচিৎ। একটু কষ্ট করে হলেও ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার করা উচিৎ, আর যাই হোক বাঁচা যাবে এমন লজ্জার হাত থেকে। আর বলতেও হবে না, ‘সত্যিই আমাদের লজ্জা হওয়া উচিৎ।’

এ সম্পর্কিত আরও