Mountain View

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠা্নে আগস্টে উদ্বোধন হচ্ছে ২০০১টি ডিজিটাল ল্যাব

প্রকাশিতঃ জুলাই ২২, ২০১৬ at ৮:০৫ পূর্বাহ্ণ

Computer-lab


  • ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নপূরণে সারা দেশে ২০০১টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায়। আগস্টের যে কোনো দিন সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাবগুলো একযোগে উদ্বোধন করা হবে। মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টরা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
  • সশ্লিষ্টরা জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে দেশে আইসিটি শিক্ষা সম্প্রসারণ এবং দক্ষ জনশক্তি গড়ার প্রত্যয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদফতরের তত্ত্বাবধানে ‘দেশব্যাপাী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপন প্রকল্প’ বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় ৬৪টি জেলায় ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাবসহ সারা দেশে ২০০১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে (মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক ও সমমানের মাদরাসা) কম্পিউটার এবং ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপন শেষ হয়েছে। এখন তা উদ্বোধনের অপেক্ষায়। আর ২০০১টি কম্পিউটার ল্যাবের নামকরণ করা হয়েছে ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব’।
  • এরই মধ্যে সারা দেশে ৬৫টি ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাবসহ ২০০১টি কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১৭ জেলায় ৫৪৪, চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জেলায় ৩৮৭, খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় ২২৮, রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় ২৯৫, রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় ২১৮, বরিশাল বিভাগের ৬ জেলায় ১৮৩ ও সিলেট বিভাগের ৪ জেলায় ১৪৬। উল্লেখ্য, ২০০১টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন শুধু জিওবি অর্থায়নে বাস্তবায়িত হচ্ছে।
  • প্রতিটি কম্পিউটার ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাবে রয়েছেÑ একটি ইন্সট্রাক্টর টেবিল, একটি স্টুডেন্ট/ট্রেনি টেবিল (ডাবল) আটটি (১৬ জনের জন্য) এবং স্টুডেন্ট/ট্রেনি চেয়ার ১৬টি। ল্যাপটপসহ আইটি সরঞ্জাম-ব্রান্ড ল্যাপটপ কম্পিউটার ১৭টি, প্রিন্টার (লেজার) একটি, স্ক্যানার – একটি, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর (স্ক্রিনসহ)-একটি, ৩জি পকেট রাউটার – একটি এবং হেডফোন ১৭টি ( শুধু ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাবের জন্য)। প্রতিটি ল্যাব মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, সাইবার সেন্টার ও ট্রেনিং ল্যাব হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।
  • যুগান্তকারী এই পদক্ষেপের ফলে শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা তাদের দোরগোড়ায় ল্যাপটপসহ ডিজিটাল ল্যাবের সুযোগ পাবেন। শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবের মাধ্যমে প্রতি বছর ১০ লাখ শিক্ষার্থী ও বেকার তরুণ-তরুণী আইটি শিক্ষায় সামর্থ্য অর্জনে সক্ষম হবে; যা কর্মসংস্থানে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।
  • এ বিষয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ২০০১টি ল্যাব স্থাপনের ফলে তথ্য ও যোগাযোগ সেবা জনসাধারণের দোরগোড়ায় পৌঁছানো সম্ভব হবে এবং প্রতিটি ল্যাবে ইন্টারনেট সংযোগ থাকায় সাইবার কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠেছে। ফলে শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী ও আগ্রহী বেকারদের আইসিটি ক্ষেত্রে সামর্থ্য বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

এ সম্পর্কিত আরও