বলিউডের যেসব অভিনেতার চুল নকল

ss


পর্দায় অভিনেতাদের মাথায় চুল ভর্তি দেখালেও অনেক অভিনেতার বাস্তবে তেমন চুল নেই। হয়তো রোগের কারণে মাথার চুল পড়ার সম্ভাবনাও আছে অনেকের। কিন্তু দর্শকদের কাছে সেটা ফাঁস হয়ে গেলে আরেক বিপদ।

আবার মাথায় চুল থাকলেও যদি স্টাইল নজরকাড়া না হয় তাহলেও মুশকিল। দর্শকরা হা করে তাকিয়ে থাকবে না। কারণ তাদের মাথা ভর্তি চুল দেখতেই অভ্যস্ত তাদের ভক্তরা। কিন্তু জানেন কি তাদের এক মাথা চুলের পিছনের আসল রহস্য?

০১. সালমান খান: বেশ কয়েকবার হেয়ার ট্রান্সপ্লান্ট করিয়েছেন ‘ভাইজান’। ২০০৩ সালে দুবাই থেকে প্রথম ট্রান্সপ্লান্ট করেছিলেন তিনি।

০২. গোবিন্দা: বয়সজনিত কারণে চুল উঠে যাচ্ছিল। তাই ২০১২ সালে হেয়ার ট্রান্সপ্লান্ট করান এই অভিনেতা।

০৩. হিমেশ রেশমিয়া:  মাথার টাক ঢাকতে আগে টুপি ছাড়া প্রায় দেখাই যেত না তাকে। তবে সম্প্রতি হেয়ার ট্রান্সপ্লান্ট করিয়ে দিব্যি মাথা ভর্তি লম্বা চুলে পাবলিকলি টুপি ছাড়াই সাবলীল তিনি।

০৪. অভিজিৎ ভট্টাচার্য: পাতলা চুল ঢাকতে দুবাই থেকে লেসার ট্রিটমেন্ট করিয়েছিলেন অভিজিৎ।

০৫. সঞ্জয় দত্ত: হেয়ার লসের সমস্যায় জেরবার ছিলেন মুন্নাভাইও। ফলে রেসটোরেটিভ সার্জারি করতে হয়েছিল তাকে।

০৬. আদিত্য পাঞ্চোলি: পরচুলা একেবারেই পছন্দ করতেন না আদিত্য। তাই হেয়ার লসের সমস্যা ঠেকাতে দুবাই থেকে হেয়ার ট্রান্সপ্লান্ট সার্জারি করান আদিত্য।

০৭. অক্ষয় কুমার: বাদ যান না খিলাড়ি বয়ও। হেয়ার লসের সমস্যা থেকে রেহাই পেতে হেয়ার ট্রান্সপ্লান্টের দারস্থ হয়েছিলেন।

০৮. অমিতাভ বচ্চন: বলি-পাড়ায় কান পাতলে শোনা যায়, মিস্টার বচ্চনের এক মাথা ঘন কাঁচা পাকা চুল নাকি আসলে একটি পরচুলা। তবে এ বিষয়ে কখনওই মুখ খোলেননি শাহেনশা।

এ সম্পর্কিত আরও

Leave a Reply