ঢাকা : ২৫ জুন, ২০১৭, রবিবার, ৬:১৭ পূর্বাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

১৭৮ বলে মাত্র ৪ রান

austina

জয়ের জন্য পাল্লেকেল্লে টেস্টের শেষ দিনে সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার দরকার ছিল ১৮৫ রান। স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার দরকার ছিল সাত উইকেট। এমন অবস্থায় দলকে বাঁচানোর জন্য প্রাণপণ লড়ে গেলেন অস্ট্রেলিয়ার পিটার নেভিল ও স্টিভ ও’কিফ।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর রক্ষা হলো না। রোমাঞ্চের অবসান ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত জয়ের হাসি হেসেছে স্বাগতিকরা। তবে এরই মধ্যে সবচেয়ে লো-রান রেটের জুটির রেকর্ড গড়ে ফেললেন নেভিল ও ও’কিফ। দু’জনে মিলে ১৭৮ বলে মাত্র ৪ রান করেন। তাদের রান রেট ছিল ০.১৩।

পাল্লেকেলেতে ২৬৮ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে রীতিমতো ধ্বস নামে টেস্টের এক নম্বর দলের ব্যাটিংয়ে। অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ছাড়া কেউই হাফ-সেঞ্চুরি করতে পারেননি। ম্যাচের শেষ দিকে সফরকারীরা যখন আশা ছেড়েই দিয়েছিল, ঠিক তখনই যুদ্ধ শুরু করেন সাত ও ১০ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামা নেভিল-ও’কিফ জুটি।

নেভিল ১১৫ বলে এক চারে নয় রান করেন। আর ও’কিফ ৯৮ বলে চার রান করেন। স্পিনার ও’কিফের চার রান আসে আবার একটি বাউন্ডারির সাহায্যেই। এই জুটি রেকর্ড ভাঙেন দক্ষিণ আফ্রিকান হাশিম আমলা ও এবি ডিভিলিয়ার্সের।

গেল বছরের ডিসেম্বরে প্রোটিয়া দুই তারকা ভারতের বিপক্ষে ২৫৩ বলে ২৭ রান করেন। সেই জুটির রান রেট ছিল ০.৬৪। তৃতীয় রেকর্ডটি নিউজিল্যান্ডের হ্যারিস আর রিচার্ডসনের জুটিতে। তারা ১২৫ বলে করেছিলেন ১৬ রান, রানরেট ০.৭৬। ২০০২ সালে ভারতের বিপক্ষে তাদের এই জুটিটি হয়েছিল।

চতুর্থ রেকর্ড জুটিটি ১০০ বলে ১৪ রানের। ২০০০ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে যেটি গড়েছিলেন জিম্বাবুয়ের ক্যাম্পবেল-হিথ স্ট্রিক, রান রেট ছিল ০.৮৪। এবং পঞ্চম রেকর্ড জুটিটি গড়েন এবিডি ভিলিয়ার্স আর কাইল অ্যাবোট মিলে। ২০১৪ সালে অজিদের বিপক্ষে ০.৯১ রানরেটে ১৭৭ বল খেলে তারা করেছিলেন ২৭ রান।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

প্রধান নির্বাচকের ‘মিথ্যাচারে’ হতবাক নাফিস

শাহরিয়ার নাফিস – দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় দলের বাইরে আছেন। কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি নিয়মিতই অসাধারণ …

আপনার-মন্তব্য