Mountain View

এবার সুন্দরবন রক্ষায় সোচ্চার হয়েছেন তারকারা

প্রকাশিতঃ আগস্ট ১, ২০১৬ at ৩:৪৮ অপরাহ্ণ

tarka

জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। মাধ্যমটিতে এখন প্রায় সব দেশের মানুষই সামাজিক প্রতিবাদ করছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। বর্তমানে সুন্দরবন বাঁচাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে বেশ আলোচনা-সমালোচনা। বেশিরভাগ মানুষই করছেন প্রতিবাদ। সেই তালিকায় আছেন তারকারাও।

মোস্তফা সরয়ার ফারুকী : প্রযুক্তির ‘উন্নত’ ব্যবহার মানেই পরিবেশের ওপর কিছুটা চাপ- সেটা না হয় বোঝা গেল। কিন্ত এখন সময় এসেছে ভাবার কোন চাপটা আমরা নেব এবং কতটুকু নেব। সকল প্রকার পারমাণবিক শক্তি প্রকল্প মানুষের রাক্ষুসে লোভের জলজ্যান্ত উদাহরণ। কথা সোজা, পরিবেশ নিয়া কথা বলা কোনো এনজিওবাদী ব্যাপার না। পরিবেশেই আমরা বাঁচি। পরিবেশ ধ্বংস তো আমরা ধ্বংস। উচ্চ রিজার্ভ বা উন্নয়নের মহাসড়ক কোনো কিছুই আদম সন্তানদের বাঁচাতে পারবে না। না চাইতেই যে বাতাস পাই, আলো পাই, পানি পাই- এগুলোর একটু গুরুত্ব দেই আসেন। না চাইতে পাই বলেই হেলায় বা লোভে পড়ে এগুলো ধ্বংস করবেন না। করলে কিছু ডলার ভাঙাইয়া কেনার উপায় নেই, গোলাম হোসেন!

অপি করিম : মাননীয় সরকার, আমি সৈয়দা তুহিন আরা করিম (অপি করিম) বাংলাদেশের নাগরিক। রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এই প্রতিবাদ আমলে নিন।

মারিয়া নূর : আমি মারিয়া নূর, জন্মসূত্রে বাংলাদেশের একজন নাগরিক এবং সংবিধানের ৭-এর (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক। আমি রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বিদ্যুৎ আমিও চাই কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে বিদ্যুতের দরকার নাই।

শবনম ফারিয়া : আমি ফারিয়া শবনম, জন্মসূত্রে বাংলাদেশের একজন নাগরিক এবং সংবিধানের ৭-এর (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক। আমি রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বিদ্যুৎ আমিও চাই, কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে বিদ্যুৎতের দরকার আছে বলে আমি বিশ্বাস করি না।

নওশাবা : বেঁচে থাকুক সুন্দরবন, বেঁচে থাকুক সুন্দরমন…

নিলয় আলমগীর : কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ সুন্দরবনবিনাশী ও দেশধ্বংসী সকল চুক্তি বাতিল এবং বিদ্যুৎ সংকট সমাধানের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে একটি খোলাচিঠি পোস্ট করেছেন তিনি।

শ্রাবণী ফেরদৌস : জন্মসূত্রে বাংলাদেশের একজন নাগরিক এবং সংবিধানের ৭-এর (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক। আমি রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বিদ্যুৎ আমিও চাই, কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে দরকার নাই। দয়া করে আপনিও আমার এ প্রতিবাদ আমলে নিন।

আলিফ আলাউদ্দিন : আমি আলিফ আলাউদ্দিন, জন্মসূত্রে বাংলাদেশের একজন নাগরিক এবং সংবিধানের ৭-এর (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক। আমি রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বিদ্যুৎ আমিও চাই, কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে বিদ্যুৎতের দরকার আছে বলে আমি বিশ্বাস করি না।

নাফিসা চৌধুরী নাফা : আমি নাফিসা চৌধুরী নাফা, জন্মসূত্রে বাংলাদেশের নাগরিক এবং সংবিধানের ৭-এর (১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক। আমি রামপাল ও রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বিদ্যুৎ আমিও চাই, কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে, দেশ ধ্বংস করে আমার বিদ্যুতের দরকার নাই।

আমব্রিনা সারজীন আমব্রিন : আমি আমব্রিনা সারজীন আমব্রিন। বাংলাদেশের একজন নাগরিক এবং সংবিধানের ৭-এর (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক। আমি রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বিদ্যুৎ আমিও চাই কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে আমার বিদ্যুতের দরকার নাই।

আশফাক নিপুণ : সংবিধানের অমুক তমুক অনুচ্ছেদ এর আলাপ দিয়া লাভ নাই। নিজেরে দেশের মালিক দাবি কইরাও লাভ নাই। দেশের মালিক আমি আপনি না। দেশের দশের মালিক একজনই। আপনারে আমারে খালি বাংলাদেশের ক্রিকেট ম্যাচের সময় মালিকানা ধার দেয়া হয় কয়েক ঘণ্টার জন্য যেন আমরা একটু সুখটান দিতে পারি!

বিদেশি হোন। উনারা বিদেশিদের কথা শুনেন। বিদেশিদের প্রেসকিপশন অনুযায়ী সুন্দরবন, টেংরাটিলা, রূপপুর, বাঁশখালি, গুলশান, বনানী, ধানমণণ্ডি, উত্তরা নিয়মিত টেস্ট করান। শেয়ারবাজার, বাংলাদেশ ব্যাংকে বিদেশিদের টাকা ডাকাতি হইলে কি হইত বুঝতেছেন? আপনের মিয়া সবুজ পাসপোর্ট। দেশে সবুজের কোনো নাম নিশানা রাখা হইতেছে না আর আপনে আপনার পাসপোর্টের সবুজ নিয়া ফাল পাড়তেছেন! লাইনে আসেন। বিদেশি হোন। বাংলাদেশ আপনার গ্যারান্টিড (বিএসটিআই এর সিলসহ)!

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View