ঢাকা : ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, শনিবার, ৪:৪৭ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

অপারেটর বদল এমএনপি’র আবেদনের সময় বাড়লো

BTRC-SM20160810001703

মোবাইল নম্বর অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর বদল বা এমএনপি সেবার জন্য আগ্রহী অপারেটরদের আবেদন গ্রহণের সময় বৃদ্ধিসহ অন্যান্য সূচি পরিবর্তন করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

তবে এমএনপি’র নিলামের পূর্ব নির্ধারিত দিন ২১ সেপ্টম্বর অপরিবর্তিত রয়েছে।

নতুন সূচি অনুযায়ী আগামী ২২ আগস্ট পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করে যোগ্য আবেদনের তালিকা প্রকাশ করা হবে ৫ সেপ্টেম্বর।

বিড আর্নেস্ট মানি জমার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ সেপ্টেম্বর। ৮ সেপ্টেম্বর আবেদন গ্রহণ বা বাতিলের পর নিলামের জন্য পরামর্শক সভা অনুষ্ঠিত হবে ১৯ সেপ্টেম্বর।

গতকাল (মঙ্গলবার) ৯ আগস্ট বিটিআরসি’র লিগ্যাল অ্যান্ড লাইসেন্সিং বিভাগের পরিচালক (লাইসেন্সিং) এম.এ. তালেব স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে আবেদন প্রার্থীদের নতুন সূচি অনুসরণ করতে বলা হয়েছে।

গত ১৪ জুন সংবাদ সম্মেলন করে নিলামের রোডম্যাপ ঘোষণা করেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ।

পূর্বের সূচি অনুযায়ী ১৬ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ছিল নিলামের সময়। প্রাক-দরপত্র সভা ১৪ জুলাই এবং ২১ জুলাইয়ের মধ্যে প্রশ্ন নিয়ে ১ আগস্টের মধ্যে নিস্পত্তি করার কথা ছিল।

১১ আগস্ট কমিশনে আবেদন পাঠানোর পর মনোনীতদের তালিকা প্রকাশ করার কথা ছিল ২৪ আগস্ট। ৩১ আগস্ট বিড আর্নেস্ট মানি জমাদানের পর ৪ সেপ্টেম্বর আবেদন গ্রহণ ও বাতিল এবং ৭ সেপ্টেম্বর নিলাম-বিষয়ক পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, প্রাথমিকভাবে ১৫ বছর লাইসেন্সের মেয়াদ রেখে এমএনপি সেবা উন্মুক্ত করা হবে।

গ্রাহকরা ৩০ টাকা চার্জ দিয়ে ৯০ দিনের জন্য চলতি বছরের শেষে অপারেটর বদল করতে পারবেন বলে জানিয়েছিল বিটিআরসি।

এমএনপি সেবার জন্য সরকার একটি অপারেটরকে লাইসেন্স প্রদান করা হবে।

নিলামে বাংলাদেশি কোনো মোবাইল ফোন অপারেটর অংশ নিতে পারবে না। আবেদনকারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কাজে ৩ বছরের অভিজ্ঞতা এবং এমএনপি সেবায় ন্যূনতম ১ কোটি গ্রাহককে সেবা প্রদানের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

প্রাথমিকভাবে লাইসেন্সের মেয়াদ হবে ১৫ বছর, পরবর্তীতে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে ৫ বছরের জন্য নবায়ন করা যাবে।

আগ্রহী প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ টাকা ফি দিয়ে লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে হবে। এক্ষেত্রে বিড আর্নেস্ট মানির পরিমাণ ১০ লাখ টাকা। লাইসেন্স ফি নিলামের মাধ্যমে নির্ধারিত হলেও ভিত্তি মূল্য হবে ১ কোটি টাকা।

লাইসেন্সধারী সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে বাৎসরিক ফি প্রদান করতে হবে ২০ লাখ টাকা। রাজস্ব ভাগাভাগি বাবদ প্রথম বছর কোনো ফি না দিলেও দ্বিতীয় বছর থেকে ৫ দশমিক ৫ শতাংশ অর্থ প্রদান করতে হবে। ব্যাংক গ্যারান্টি বাবদ দিতে হবে ১ কোটি টাকা।

নেটওয়ার্ক রোল আউট অনুযায়ী, দেশের সর্বমোট মোবাইল ব্যবহারকারীর মধ্যে হতে লাইসেন্স প্রাপ্তির পরে ১৮০ দিনের মধ্যে ১ শতাংশ, ১ বছরের মধ্যে ৫ শতাংশ এবং ৫ বছরের মধ্যে ১০ শতাংশ এমএনপি সেবা প্রদান করতে হবে।

লাইসেন্সপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের ১৮০ দিনের মধ্যে ১ শতাংশ সেবা সম্পন্ন করতে ব্যর্থ হলে তাদের জমাকৃত ব্যাংক গ্যারান্টি হতে ৫০ শতাংশ কমিশনের অনুকূলে নগদায়ন করা হবে।

এছাড়াও নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রোল-আউট টার্গেট পূরণে ব্যর্থ হলে অবশিষ্ট ব্যাংক গ্যারান্টি নগদায়নসহ লাইসেন্স বাতিল করা হবে। সেক্ষেত্রে পরবর্তী বিডারকে লাইসেন্স প্রদান করা হবে বলে জানায় বিটিআরসি।

গত বছরের ২ ডিসেম্বর এমএনপি নীতিমালায় অনুমোদন দেয় অর্থ মন্ত্রণালয়। এরপর স্বচ্ছতা আনতে নীতিমালায় বেশ কিছু পরিবর্তনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুমোদন শেষে নিলাম প্রক্রিয়া ঘোষণা করা হয়।

বিটিআরসি গত বছরের মাঝামাঝি এমএনপি নীতিমালা ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে পাঠানো হয়েছিল।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

তথ্য প্রযুক্তিতে নেতৃত্ব দেবে বাংলাদেশ

বিশ্বের তথ্য প্রযুক্তিখাতে ভবিষ্যতে বাংলাদেশ নেতৃত্ব দেবে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *