ঢাকা : ১৬ আগস্ট, ২০১৭, বুধবার, ৮:৫৯ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

বঙ্গবাহাদুরকে সাফারি পার্কে নিতে ট্রাক ও ক্রেন প্রস্তুত

received_1671803489807854

জাহিদ হাসান
সরিষাবাড়ী (জামালপুর)প্রতিনিধি
বঙ্গবাহাদুরকে সাফারি পার্কে নিতে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। আজ তিন সদস্যের একটি প্রশিক দল সিলেট থেকে আসছে। প্রস্তুত রয়েছে হাতি বহনে ট্রাক ও হাতিটি ট্রাকে তুলতে ক্রেন। হাতিটি ৪-৫ টন ওজন হবে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

গতকাল রোববার ভোরে হাতিটি শিকল ও ডা-াবেড়ি ভেঙে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে সরিষাবাড়ী উপজেলার কামরাবাদ ইউনিয়নের কয়ড়া গ্রামের এক কিমি. দূরে (পোড়াবন্দ) স্থানীয় জনগণের সহায়তায় ও উদ্ধারকারী দলের চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।
হাতিটিকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে গতকাল সকাল ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে দেওয়া হয়েছে তিনটি ডার্ট। পরে চেতনানাশক ওষুধের গুণাগুণ নষ্ট করার জন্য ১২টার দিকে দেওয়া হয়েছে একটি এন্টিডার্ট। ডার্ট দেওয়ার ফলে হাতিটি নিয়ন্ত্রণে আসে। হাতিটির সামনের দুই পা রশি ও পেছনের দুই পা শিকলের ডা-াবেড়ি দিয়ে বাঁধা হয়েছে। হাতিটিকে শক্ত খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছে। হাতিটিকে দ্বিতীয়বারের মতো চারটি ডার্ট প্রয়োগ করেন কক্সবাজার সাফারি পার্কের বন্যপ্রাণী সংরক ডা. মোস্তাফিজুর রহমান।

কক্সবাজার সাফারি পার্কের বন্যপ্রাণী সংরক ডা. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, হাতিটিকে সিডিউল মোতাবেক খাদ্য দেওয়া হচ্ছে। হাতিটি সুস্থ রয়েছে। নতুন করে সমস্য না হলে হাতিটি উদ্ধার করে সাফারি পার্কে নেওয়া হবে।

ঢাকার বন অধিদপ্তরের সাবেক উপপ্রধান বন সংরক ড. তপন কুমার দে বলেন, হাতিটি উদ্ধারে ৭০ সদস্য কাজ করছেন। তিনি আরও বলেন, নতুন করে কোনো সমস্যা না হলে আজ সোমবার গাজীপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাফারি পার্কে আনা সম্ভব হবে।

বঙ্গবাহাদুর হাতিটি এবার সরিষাবাড়ীর অতিথি। উৎসুক জনতার ভিড় এড়াতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে প্রশাসন। সরিষাবাড়ী উপজেলা প্রশাসন উদ্ধারকৃত হাতিটি নিয়ন্ত্রণে রাখা এবং সাফারি পার্কে স্থানান্তরের সুবিধার্থে অতিরিক্ত ভিড় এড়ানোর ল্েয রাস্তার পেছনের গ্রামবাসী ব্যতীত বাইরের জনসাধারণের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইয়েদ এ জেড মোরশেদ আলী এ কথা জানান। নিরাপত্তার জন্য রয়েছে র‌্যাব, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, গ্রামপুলিশ ও স্থানীয় জনগণ। এ বিষয় নিয়ে স্থানিয় সাংবাদিক দের সাথে অনেক কথা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *