ঢাকা : ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, রবিবার, ৩:৫৩ পূর্বাহ্ণ
সর্বশেষ
রামোসই বাঁচালেন রিয়াল মাদ্রিদকে রাজধানীতে শিক্ষকের অমানবিক নির্যাতনে শিশু শিক্ষার্থী আহত মধ্যবর্তী নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বললেন ‘স্বপ্ন দেখা ভালো’ এখনো বেঁচে আছি, এটাই গুরুত্বপূর্ণ : প্রধানমন্ত্রী আলাদা বিমান কেনার মতো বিলাসিতা করার সময় আসেনি: প্রধানমন্ত্রী চলছে স্প্যানের লোড টেস্ট দৃশ্যমান হতে চলেছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হতে পারে! ১৭ বছর বয়সী আফিফ নেট থেকে মাঠে অত:পর গেইলদের গুড়িয়ে দিলেন (ভিডিও) রংপুর জেতায় ছিটকে গেলো কুমিল্লা-বরিশাল আইএস জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইরাকে নিরাপত্তা বাহিনীর ১৯৫৯ সদস্য নিহত
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

আবারো বাড়ল গুলশান-বনানী-বারিধারা লেকের ব্যয়, বাড়ছে ৭০০ শতাংশ!

Lake220160817065228

৭০০ শতাংশ ব্যয় বাড়তে যাচ্ছে ‘গুলশান-বনানী-বারিধারা লেক উন্নয়ন’ প্রকল্পের। মূল উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনায় (ডিপিপি) ব্যয় ছিল ৪১০ কোটি ২৫ লাখ টাকা। সংশোধিত ডিপিপিতে ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ২ হাজার ৭৭৩ কোটি ৫ লাখ টাকা। ফলে সংশোধিত প্রকল্পে ব্যয় বাড়ছে ২ হাজার ৩৬৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা বা ৭০০ শতাংশ।

পরিকল্পনা কমিশনে এমনই অবাস্তব বাড়তি ব্যয়ের প্রস্তাব করেছে রাজউক (রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ)। কয়েক দফা পিইসি সভা হয়ে এ অতিরিক্ত ব্যয় প্রায় চূড়ান্তও হয়ে গেছে।

অথচ পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছিলেন, ‘এক প্রকল্পে একাধিক বার ব্যয় বৃদ্ধি করা যাবে না। দরকার হয় আলাদা আলাদা প্রকল্পের আওতায় কাজ করতে হবে। বার বার একই প্রকল্পের ব্যয় বাড়ানোর পরিবর্তে প্রকল্পের কাজ একেবারে সম্পন্ন ঘোষণা করে নতুন প্রকল্পের আওতায় কাজ নিয়ে আসতে হবে’।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জা আজিজুল ইসলাম, ‘এটা হওয়া উচিত না। একেনেক (জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি) অনুমোদন এবং এডিপিতে(বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি) বরাদ্দ পাওয়ার জন্য ভুলভাল করে ডিপিপি তৈরি করা হয়েছে। প্রকল্পের সময় বাড়লে ব্যয়ও বাড়ে। ফলে জনগণের সম্পদের অপচয় হয়। প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বাড়ানোর এ ভুল প্রক্রিয়া থেকে বের হওয়া উচিত’।

রাজউকের দাবি, চূড়ান্ত নকশার ভিত্তিতে লেকের পাশে ৮৬ দশমিক ৪২ একর ভূমি অধিগ্রহণ, মাটি ভরাট, পানির গুণগত মান রক্ষা ও কড়াইল বস্তির বাসিন্দাদের পুনর্বাসন কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। এসব কারণে প্রকল্পের ব্যয় বাড়ছে।

২০১০ সালের জুলাই থেকে ২০১৩ সালের জুন মেয়াদে ৪১০ কোটি ২৫ লাখ টাকায় শুরু হয়েছিল লেক উন্নয়নের কাজ। ২০১৩ সালের জুলাই থেকে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত দ্বিতীয় মেয়াদেও কাজ শেষ হয়নি। এবার ২ হাজার ৭৭৩ কোটি ৪৭ লাখ টাকা ব্যয়ের পাশাপাশি ২০২০ সালের জুন পযর্ন্ত প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে পরিকল্পনা কমিশনে।

প্রকল্পের আওতায় অবৈধ দখল থেকে লেক উদ্ধার, হাতিরঝিলের মতো ৮টি সেতু নির্মাণ ও চারটি ওভারপাস নির্মাণ, লেকের পানির ধারণ ক্ষমতা পুনরুদ্ধার, পানির গুণগত মান রক্ষা, প্রাকৃতিক পরিবেশ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন, সৌন্দর্য বৃদ্ধি এবং বিনোদনমূলক কাযর্ক্রমের ব্যবস্থা করা হবে।

প্রকল্প এলাকায় ২৪ হাজার ৬২২ দশমিক ১৬ মিটার রানিং মিটার ওয়াকওয়ে, ২ লাখ ২৬ হাজার ৭৯৮ মিটার ওয়াকওয়ে, ১১ হাজার ৬৪ মিটার ড্রাইভওয়ে, দুই হাজার মিটার ওয়াল, ২ দশমিক ১০ একর আয়তনে পার্ক ও ২ হাজার ৪৮০ মিটার ড্রেনেজ লাইন নির্মাণ, দেড় হাজার রানিং মিটার তীর সংরক্ষণ, ৬৯ হাজার ৬১ বর্গমিটার টার্ফিং, ৭৫০টি পিট ও তিন হাজার বৃক্ষরোপণ, ২২ হাজার ১১৮ রানিং মিটার আরসিসি পাইপ স্থাপন ও পারমর্শক নিয়োগ দেওয়া হবে।

১৯৬১ সালে তদানীন্তন ডিআইটি (বর্তমান রাজউক) ‘গুলশান মডেল টাউন প্রকল্প’ বাস্তবায়নের কাযর্ক্রম শুরু করে। একই সময়ে প্রায় আবাসিক ব্যবহারের জন্য এক হাজার জমির (বনানী-বারিধারা) উন্নয়ন কাযর্ক্রম শুরু হয়। ১৯৯২ সাল নাগাদ গুলশান মডেল টাউন, আংশিক বনানী এবং বারিধারা আবাসিক এলাকার কাযর্ক্রম এক হাজার একর ভূমি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় শুরু হয়।

তবে দুইশ’ একর এলাকা জুড়ে বনানী মডেল টাউন ও গুলশান মডেল টাউনের মধ্যে একটি করে লেক উন্নয়নের কাজ আজও অধরায়। লেকটির উন্নয়নের প্রধান বাঁধা হিসেবে দেখা দিয়েছে অস্বাভাবিক ব্যয় বৃদ্ধি। কয়েক মাস ধরে প্রকল্পের ডিপিপি পরিকল্পনা কমিশন ও রাজউকের মধ্যে ঘুরপাক খাছে। এছাড়া প্রয়োজনীয় ভূমিও পাওয়া যাচ্ছে না।

ফলে কবে নাগাদ গুলশান, বনানী ও বারিধারা লেকের উন্নয়ন সম্পন্ন হবে জানেন না সংশ্লিষ্টরা।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

full_486740402_1480740541

৫৫০ ছবি নিয়ে আজ থেকে স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব

আজ ৩ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে ১৪তম আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব। বিকেল চারটায় …

Mountain View