Mountain View

ইসির স্মার্টকার্ডের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডরে মাশরাফিকে চায় ইসি

প্রকাশিতঃ আগস্ট ২২, ২০১৬ at ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ

Smart_Card_BG20160821225755

বেশ উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বা স্মার্টকার্ড আগামী সেপ্টেম্বর থেকেই নাগরিকদের বিতরণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের (একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে) অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে চায় সংস্থাটি।

সূত্রগুলো জানিয়েছে, ইতিমধ্যে ম্যাশকে (মাশরাফির ডাক নাম) স্মার্টকার্ডের অ্যাম্বাসেডর হিসেবে অফিসিয়ালি নিয়োগ দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি) চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

ইসির এনআইডি শাখার মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সুলতানুজ্জামান মো. সালেহ উদ্দিনের ১৮ আগস্ট স্বাক্ষরিত চিঠিটি বিসিবি’র সভাপতিকে রোববার (২১ আগস্ট) পাঠানো হয়েছে।

এতে সুলতানুজ্জামান বলেছেন, নির্বাচন কমিশন খুব শিগগিরই স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে। বর্তমানে স্মার্ট এনআইডি ১৮ বছর বা তদূর্ধ্ব নাগরিকদের প্রদান করা হবে এবং ভবিষ্যতে সব নাগরিকদের জন্য প্রস্তুত ও বিতরণ করা হবে।

এ পরিচয়পত্র আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন জাতীয় পরিচয়পত্রের চাহিদা পূরণ করার পাশাপাশি সঠিক ব্যক্তির সঠিক সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণ, বিভিন্ন সেবার ক্ষেত্রে নাগরিকদের যথাযথ শনাক্তকরণ, ই-গর্ভন্যান্স কার্যক্রমকে শক্তিশালীকরণসহ ডিজিটাল বাংলাদেশকে আরো একধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।

এনআইডি মহাপরিচালক আরো বলেন, স্মার্টকার্ডের বৈশিষ্ট্য, গুরুত্ব ইত্যাদি সঠিক ও সুন্দরভাবে জনগণের সামনে উপস্থাপনের জন্য মাশরাফি বিন মর্তুজা যথার্থ ব্যক্তি হতে পারেন বলে নির্বাচন কমিশন মনে করে।

বিসিবিকে জাতীয় স্বার্থ, স্মার্টকার্ডের গুরুত্ব ও সরকারি কার্যক্রম বিবেচনা করে মাশরাফি বিন মর্তুজাকে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে অফিসিয়ালি নিয়োজিত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলেছে নির্বাচন কমিশন বাংলাদেশ।

সূত্রগুলো জানিয়েছে, ২০১৪ এবং ২০১৫ সালের প্রায় ১ কোটি ভোটারের স্মার্টকার্ড প্রস্তুত করেছে নির্বাচন কমিশন। পহেলা সেপ্টেম্বর থেকেই তা বিতরণের নীতিগত সিদ্ধান্তও নিয়েছিলো কমিশন।

এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতির সময় প্রদানের ভিত্তিতেই সেপ্টেম্বরেই স্মার্টকার্ড বিতরণে যাবে ইসি। এতে ঢাকার ভোটাররাই অগ্রাধিকার পাচ্ছেন।

এদিকে উন্নতমানের এ কার্ড বিতরণের সময় নাগরিকদের ১০ আঙুলের ছাপ ও চোখের আইরিশের প্রতিচ্ছবিও সংরক্ষণ করবে ইসি। স্মার্টকার্ড প্রস্তুত করছে ফ্রান্সের একটি কোম্পানি।

১৮ মাসের চুক্তিতে দেশের ৯ কোটি ভোটারের স্মার্টকার্ড প্রস্তুত করে দেবে তারা। দেশে বর্তমানে ভোটার রয়েছেন ১০ কোটির বেশি।

২০০৮ সালে এটিএম শামসুল হুদার নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন দেশের নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার পরিকল্পনা হাতে নেয়। এরপর ২০১১ সালের বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় স্মার্টকার্ড সরবরাহের প্রকল্পটিও ওই কমিশনই হাতে নেয়।

স্মার্টকার্ডে ২৫ ধরনের নিরাপত্তা কোড রয়েছে। যা নকল করা প্রায় অসম্ভব। এছাড়া এটি দিয়ে অন্তত ২০টিরও বেশি নাগরিক সেবা সহজেই ভোগ করতে পারবেন ভোটাররা। পর্যায়ক্রমে দেশের সব নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার পরিকল্পনাও বাস্তবায়নাধীন রেখেছে সংস্থাটি।

এ সম্পর্কিত আরও