Mountain View

ডাই অ্যামোনিয়া ফসফেট প্ল্যান্টের ট্যাংকে লিকেজ, শ্বাসকষ্টে ভুগছে মানুষ

প্রকাশিতঃ আগস্ট ২৩, ২০১৬ at ১:৪২ পূর্বাহ্ণ

Capture

চট্টগ্রাম নগরীর আনোয়ারা উপজেলার কর্ণফুলী থানার সিইউএফএল সংলগ্ন ডাই অ্যামোনিয়া ফসফেট (ডিএপি) প্ল্যান্টের ৩০০ টনের অ্যামোনিয়া রিজার্ভ ট্যাংকে লিকেজের কারণে গ্যাস ছড়িয়ে পড়েছে।(সোমবার) ২২ আগস্ট রাত ১১টার দিকে এ ঘটনায় নগরীর পতেঙ্গা, ইপিজেড, আগ্রাবাদ এলাকায় গ্যাসের কারণে শিশু ও বৃদ্ধরা শ্বাসকষ্টে ভোগেন।

নগর পুলিশের বন্দর জোনের সহকারী কমিশনার জাহিদুল ইসলাম জানান, ডিএপি কারখানা থেকে অ্যামোনিয়া গ্যাস ছড়িয়েছে। ফলে কেউ কেউ শ্বাসকষ্টে ভুগছেন। সার কারখানার প্রকৌশলীরা কাজ করছেন ত্রুটি সারাতে। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

সিইউএফএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, ডিএপি কারখানার এমডির সঙ্গে তিনিও দুর্ঘটনাস্থলে আছেন। প্রকৌশলীরা কাজ করছেন দ্রুত ত্রুটি সারাতে।ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের আগ্রাবাদ নিয়ন্ত্রণ কক্ষের দায়িত্বরত মো. মামুন জানান, পটিয়া, লামারবাজার, নন্দনকানন স্টেশন থেকে চারটি গাড়ি পাঠানো হয়েছে।sa

ডিএপির একজন কর্মকর্তা জানান, অ্যামোনিয়া গ্যাসে আক্রান্তদের পানিতে ভিনেগার মিশিয়ে খাওয়াতে হবে। চোখে মুখে পানি ছিটাতে হবে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই পঙ্কজ বড়ুয়া জানান, শ্বাসকষ্ট নিয়ে ৪০ জন ভর্তি হয়েছে। এরমধ্যে বেশ কয়েকজন আনসার সদস্যও আছেন।

তবে কীভাবে ওই ট্যাংক ছিদ্র হলো তা তাৎক্ষণিকভাবে কেউ জানাতে পারেননি।

এদিকে ঘটনাস্থলে দমকলকর্মীদের পাঠানো হয়েছে বলে আগ্রাবাদ ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

আগ্রাবাদ ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক জসিম উদ্দিন বলেন, অ্যামোনিয়া গ্যাস যাতে বেশি ছড়াতে না পারে সেজন্য দুর্ঘটনা কবলিত ট্যাঙ্কের আশপাশে বিপুল পরিমাণ পানি ছিটানো হচ্ছে।

কারখানায় কাছাকাছি তিনটি ট্যাংকের একটিতে ছিদ্র হলেও বাকি দুটি ঠিক আছে বলে জানান তিনি।

মহসিন কলেজের রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ইদ্রিস আলী বলেন, বাতাসে অ্যামোনিয়া ছড়ালে এর প্রভাবে মাথায় ঝিমুনি, বমি ভাব ও শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

এ অবস্থায় নিরোধক ‘মাস্ক’ ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View