Mountain View

ভারতে লাশ কাঁধে ৬ কিমি হাঁটলেন বাবা

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৬ at ৬:২০ অপরাহ্ণ

ভারতের ওড়িশা রাজ্যের মিতালি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল সাত বছর বয়সী বর্ষা খেমুডু। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে মালকানগিরি জেলা হাসপাতালে পাঠান চিকিৎসকেরা। গুরুতর অসুস্থ মেয়েকে নিয়ে মালকানগিরির উদ্দেশে রওনা হন বর্ষার বাবা দীনবন্ধু খেমুডু। কিন্তু কিছুদূর যাওয়ার পর বর্ষার মৃত্যু হয়। চালক এটা জানার সঙ্গে সঙ্গে অর্ধপথেই দীনবন্ধুদের অ্যাম্বুল্যান্স থেকে নামিয়ে দেন। মৃত মেয়ের মরদেহ নিয়ে হাঁটতে থাকেন দীনবন্ধু এবং তার স্ত্রী।
দীর্ঘ ৬ কিলোমিটার হাঁটার পর গ্রামবাসীরা তাদের দেখে পাশে এসে দাঁড়ায়। স্থানীয় বিডিও’র হস্তক্ষেপে দ্রুত আরেকটি গাড়িতে তাদের বাড়িতে পৌঁছনোর ব্যবস্থা করা হয়।
দীনবন্ধু বলেন, চালক আমার মেয়ের অবস্থা জানতে চায়। মরা গেছে বলার সঙ্গে সঙ্গে অ্যাম্বুলেন্স থেকে আমাদের নামিয়ে দেয়া দেয়।
মালকানগিরির জেলা কালেক্টর কে সুধাকৃষ্ণন চক্রবর্তী জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য অফিসার উদয়শঙ্কর মিশ্রকে এই ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। এ ধরনের কাজ সম্পূর্ণ বেআইনি ও ফৌজদারি অপরাধ। ওই অ্যাম্বুল্যান্সের চালক এবং উপস্থিত সকলের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হবে। পাশাপাশি ওই পরিবারকে আর্থিক সাহায্যও করা হয়েছে বলে তিনি জানান।
কেন্দ্রীয় তফশিলি বিষয়কমন্ত্রী জুয়াল ওরাম বলেন, ওড়িশা এবং গোটা ভারতের পক্ষে অত্যন্ত লজ্জাজনক ঘটনা। তফশিলিদের উন্নয়নে রাজ্য সরকার যে ব্যর্থ, তা আবার প্রমাণিত হল।
দানা মাঝির ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জে পি নড্ডা বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকারের দেয়া ন্যাশনাল রুরাল হেলথ মিশনের বরাদ্দ টাকা ওড়িশা সরকারের ঠিকভাবে খরচ করা উচিত।

এ সম্পর্কিত আরও