ঢাকা : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, সোমবার, ৮:৫১ অপরাহ্ণ
সর্বশেষ
পাকিস্তানের দ্বারস্থ হচ্ছে ভারত! ভিডিও বার্তার জবাবে হুমকি পেলেন সাব্বির! বান্দরবানে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির বার্ষিক সভা ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত ‘গণতন্ত্রের ভিত্তিকে শক্তিশালী করতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে’ ‘শান্তিরক্ষা মিশনে অস্ত্রশস্ত্র ভাড়া বাবদ বাংলাদেশের বার্ষিক আয় ৪৩৭,৫২,৯৫,২৬৪ টাকা’ দেশে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পরিচয় মিলল দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে নিহত হওয়া তিন যুবকের বিদেশের কারাগারে বন্দী ১০ হাজার বাংলাদেশি ‘২০১৮ সালের মধ্যে নিরক্ষরমুক্ত হবে দেশ’ গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ৫৩তম মৃত্যুবার্ষিকী
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

আশরাফুলের যে রেকর্ড এখনো ভাঙেনি

images(9)
স্পোর্টস ডেস্ক 
পনেরো বছর আগে কলম্বোর স্পোর্টস ক্লাব গ্রাউন্ডে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট খেলতে নেমেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। তখনো তাঁর চোখেমুখে লেগে ছিল কৈশোরের সারল্য। লিকলিকে এই ব্যাটসম্যানের হাত ধরেই যে ক্রিকেট ইতিহাসে নতুন একটি পাতা যোগ হবে, তা হয়তো কারো ধারণায়ও ছিল না। মুত্তিয়া মুরালিধরন, চামিন্দা ভাসদের দুর্দান্ত বোলিং মোকাবিলা করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছিলেন দলের সিনিয়র ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু ১৭ বছর বয়সী আশরাফুল লড়াই করেছিলেন বুক চিতিয়ে। শতরানের ইনিংস খেলে উল্টে দিয়েছিলেন রেকর্ডবুকের পাতা। যে রেকর্ডটি এখনো আছে আশরাফুলেরই দখলে।
সবচেয়ে কম বয়সে টেস্ট শতক করার রেকর্ডটি দীর্ঘদিন ধরে ছিল পাকিস্তানের মুশতাক মোহাম্মদের দখলে। ১৯৬১ সালে মাত্র ১৭ বছর ৭৮ দিন বয়সে ভারতের বিপক্ষে শতরানের ইনিংস খেলেছিলেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। দীর্ঘ ৪০ বছর পর ২০০১ সালের এই দিনেই (৮ সেপ্টেম্বর) মুশতাকের রেকর্ডটি ভেঙে দিয়েছিলেন আশরাফুল। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শতক করার সময় আশরাফুলের বয়স হয়েছিল ১৭ বছর ৬১ দিন। ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো অটুট আছে আশরাফুলের এই রেকর্ড।

২০০১ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটা ছিল বাংলাদেশের পঞ্চম টেস্ট ম্যাচ। অনভিজ্ঞতার ছোঁয়া ছিল বাংলাদেশের প্রতিটি পদক্ষেপেই। শুরুতে ব্যাট করতে নেমে মুরালি-ভাসের দুর্দান্ত বোলিংয়ে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস গুটিয়ে গিয়েছিল মাত্র ৯০ রানে। আশরাফুলই করেছিলেন সর্বোচ্চ ২৬ রান।
জবাবে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের বোলারদের নাজেহাল করে দেন জয়াবর্ধনে (১৫০), সাঙ্গাকারা (৫৪), জয়সুরিয়া (৮৯), আতাপাত্তুরা (২০১)। ৫ উইকেট হারিয়ে ৫৫৫ রান জমা করে ইনিংসের সমাপ্তি ঘোষণা করেন লঙ্কান অধিনায়ক জয়সুরিয়া। দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষেই প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের হার।
৪৬৫ রানের বিশাল ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং শুরু করে ৮১ রানেই বাংলাদেশ হারায় চারটি উইকেট। দ্বিতীয় দিনের শেষ পর্যায়ে ব্যাট করতে আসেন আশরাফুল। নির্বিঘ্নেই পার করে দেন দিনের বাকি সময়। তৃতীয় দিনে আশরাফুলের ব্যাট থেকে আসে ইতিহাসগড়া সেই ইনিংস। চার ঘণ্টারও বেশি সময় উইকেটে থেকে আশরাফুল মোকাবিলা করেছেন ২১২টি বল। ১৬টি চার মেরে করেছেন ১১৪ রান।
অভিষেকেই রেকর্ডগড়া শতক করে অনেক সম্ভাবনাই জাগিয়েছিলেন আশরাফুল। তাঁর হাত ধরে বাংলাদেশ পরে পেয়েছে আরো অনেক সাফল্য। কিন্তু ২০১৩ সালে ম্যাচ পাতানো কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েন প্রতিভাবান এই ব্যাটসম্যান। নিষিদ্ধ হন সব ধরনের ক্রিকেট থেকে। এ বছরের আগস্টে সেই নিষেধাজ্ঞা উঠেছে আংশিকভাবে। ঘরোয়া ক্রিকেটে অংশ নেওয়ার অনুমতি পেয়েছেন আশরাফুল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার জন্য অবশ্য অপেক্ষা করতে হবে আরো দুই বছর।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

received_341044489604527-300x225

এবার বিপিএলের কর্তারাও ধুয়ে দিলেন আসিফকে

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) এবার শুরুতে দারুণ ক্রিকেট খেলেছিল বরিশাল বুলস। তবে সে ধারা ধরে …

Mountain View