Mountain View

ঈদে বিশেষ জঙ্গি সতর্কতা

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৬ at ১১:৫১ পূর্বাহ্ণ

গুলশানের হলি আর্টিজানে ও ঈদুল ফিতরের দিন শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ঘটনায় এবারের ঈদে বিশেষ সতর্কতা গ্রহণ করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। রাজধানীর জাতীয় ঈদগাহ ও বায়তুল মোকাররম মসজিদসহ বিভিন্ন ঈদগাহ ময়দান ও মসজিদ ঘিরে নিরাপত্তা বলয়ে আনা হয়েছে ব্যাপক পরিবর্তন।1460492815-600x330

গুলশান ও শোলাকিয়ার ঘটনা ছাড়াও নারায়ণগঞ্জের পাইকপাড়া, রাজধানীর কল্যাণপুর, রূপনগর ও আজিমপুরে বিশেষ অভিযানের পর এবারের ঈদে বিশেষ এই সতর্কতা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা। পুলিশ ও র‌্যাবের পাশাপাশি দায়িত্ব পালন করছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরাও।

পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি কর্মকর্তারা জানান, ঈদের বিশেষ নিরাপত্তায় তারা সম্পূর্ণ প্রস্তুত। যেকোনও ধরনের নাশকতা ও সন্ত্রাসী হামলা মোকাবিলায় সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।রাজধানীসহ দেশের বড় বড় শহরগুলো ছাড়াও জেলা শহর ও সড়ক-মহাসড়কগুলোতে তল্লাশি চৌকি বসানো হয়েছে।সন্দেহভাজন ব্যক্তি ও যানবাহন সবকিছুই তল্লাশি করা হবে।

রাজধানীতে বায়তুল মোকাররম মসজিদ ও জাতীয় ঈদগাহের নিরাপত্তায় পুলিশ ও র‌্যাবের কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা দিয়ে সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রাখা হচ্ছে গোটা এলাকা। পুরো সপ্তাহ জুড়েই ঈদকে সামনে রেখে সার্বিক নিরাপত্তায় কাজ শুরু করে র‌্যাব। গরুর হাটগুলোর নিরাপত্তায়ও নানামুখী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

থাকবে পুলিশ ও র‌্যাবের ডগ স্কোয়াড এবং বোম ডিস্পোজাল ইউনিটের সদস্যরাও। সোমবার সকাল থেকেই বায়তুল


মোকাররম ও জাতীয় ঈদগাহসহ রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে অবস্থান নিয়েছে পুলিশ ও র্যা ব সদস্যরা। বায়তুল মোকাররম মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়া মুসল্লিদেরও তল্লাশি করে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

গত ঈদুল ফিতরের দিন কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ঘটনায় এবার নতুন করে ওই ঈদগাহের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হয়েছে। ঈদুল আজহার জামাতকে নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি তিন প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া দেশের অন্য কোথাও বিজিবি মোতায়েন করা না হলেও বিজিবির বিভিন্ন রিজিয়ন, সেক্টর ও ব্যাটালিয়নকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। প্রয়োজনে অল্প সময়ের মধ্যেই যাতে তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে সার্বিক নিরাপত্তায় সিভিল প্রশাসনকে সহায়তা করতে পারে।

বিজিবি’র সদর দফতরের ভারপ্রাপ্ত অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) কর্ণেল জিল্লুল হক বলেন, ‘ঈদ জামাতকে ঘিরে নেওয়া নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কেবল শোলাকিয়াতেই তিন প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া সিভিল প্রশাসনকে সহযোগিতায় সারা দেশেই বিজিবি সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।’

বিজিবি’র চট্টগ্রাম রিজিয়নের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খোন্দকার ফরিদ হাসান বলেন, ‘তার প্রশাসনিক এলাকায় এখনও বিজিবি মোতায়েন করা হয়নি। তবে তারা সতর্ক রয়েছেন। যখনই সিভিল প্রশাসন তাদের সহযোগিতা চাইবে তখনই তারা মাঠে নামার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন।’

জাতীয় ঈদগাহ পরিদর্শনে গিয়ে রবিবার র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ বলেছেন, ‘গত জুলাইয়ে গুলশানের হলি আর্টিজান ও ঈদুল ফিতরের দিন শোলাকিয়ায় ঈদ জামায়াতের পাশে জঙ্গি হামলার বিষয়টি মাথায় রেখেই এবার দেশজুড়ে বিশেষ সতর্কবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সাজানো হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা।’ তিনি বলেন, ‘গুলশান ও শোলাকিয়া হামলাসহ সাম্প্রতিক ঘটনাবলী ও গোয়েন্দাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই এবারের ঈদে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হয়েছে।’ এসময় তিনি দ্রুত তল্লাশি ও নিরাপত্তার স্বার্থে ঈদগাতে শুধুমাত্র জায়নামাজ নিয়ে আসার জন্য মুসুল্লিদের অনুরোধ জানান।

ঈদ উদযাপন নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক। ঈদ নিরাপত্তায় করণীয় নিয়ে পুলিশ সদর দফতরে পুলিশ ও র্যা বের শীর্ষ কর্মকর্তাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এ নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, ‘ঈদকে কেন্দ্র করে যাতে কোনও ব্যক্তি বা গোষ্ঠী আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটতে না পারে সেজন্য সকলকে সর্তক থাকতে হবে।’

ঢাকা মহানগর পুলিশের জনসংযোগ শাখার উপ কমিশনার মাসুদুর রহমান জানান, ‘সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলা ও ঘটনার প্রেক্ষাপটে এবারের ঈদে বিশেষ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। রাজধানীতে মোবাইল পেট্রোলে বিপুল পরিমাণ পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। কূটনৈতিক জোনের বিশেষ নিরাপত্তা ছাড়াও রাজধানীজুড়ে থাকবে তল্লাশি চৌকি। এবারই প্রথম গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা পুরো রাজধানীকে তীক্ষ্ম নজরদারি করতে এরইমধ্যে মাঠে নেমেছেন। গাড়ি পেট্রোল টিম নিয়েও থাকবেন গোয়েন্দা সদস্যরা।’

এ সম্পর্কিত আরও