Mountain View

ভিক্ষাবৃত্তি করে কেমব্রিজের ইঞ্জিনিয়ার!

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৬ at ৩:৩৩ অপরাহ্ণ

ফুটপাথই ছিল যার ঠিকানা। রাস্তায় রাস্তায় ভিক্ষাবৃত্তি করে চলত যার সংসার। আজ চেন্নাইয়ের ফুটপাথ থেকে সেই খুদে জয়ভেলা পৌঁছে গিয়েছে লন্ডনের ক্যামব্রিজে।
প্রথম দিকে চেন্নাইয়ের রাস্তায় ভিক্ষা করে যা আয় হত তা মায়ের হাতে তুলে দিতেন তিনি। কিন্তু তার মা নেশা করে উড়িয়ে দিত সেই টাকা। খেয়ে না খেয়ে বেঁচে থাকতে হত তাকে। ছিল না মাথা গোজার ঠাঁই। সেই ছেলেটি বিশ্ববিখ্যাত ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাডভান্স অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে পড়াশোনা করছেন। আগামী মাসে ইতালি যাওয়ার কথা রয়েছে তার।
যেভাবে স্বপ্ন পূরণ :
১৯৯৯ সালের ঘটনা। তার এই উঁচু শিখরে যাওয়ার নেপথ্যে রয়েছে এক দম্পতি। একদিন পেটের দায়ে চেন্নাইয়ের রাস্তায় ভিক্ষা করছিল জয়াভেল। এ সময় পরিচয় হয় উমা মুথুরামন নামে এক মহিলা ও তার স্বামীর সঙ্গে। তারা দুজনেই একটি বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে যুক্ত। যে সংস্থা পথ শিশুদের নিয়ে কাজ করে।
ওই দিন জয়াভেলকে ভিক্ষা করতে দেখে তার সঙ্গে পরিচয় হতে যান দম্পতি। কিন্তু বিষয়টি জয়াভেলের মা ভালো চোখে দেখল না। তিনিসহ অন্য পথ শিশুদের পরিবার তাদের মারধর করতে উদ্যত হয়েছিলেন। তারা যে জয়াভেলের ভালর জন্যই কাজটি করছেন তা বোঝাতে বেশ বেগ পেতে হয়েছিল ওই দম্পতির।
শেষমেশ অনেক বুঝিয়ে তাকে ভাল খাওয়া এবং শিক্ষা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে নিজেদের সংস্থায় নিয়ে আসেন তারা। তার সঙ্গে আরও বেশ কিছু পথ শিশুকেও নিয়ে এসেছিলেন উমা। তাদেরকে স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেয়া হয়। প্রথম দিকে স্কুলে থাকতে ভাল লাগত না জয়াভেলের। সারাদিন শুধু খেলতে ইচ্ছা করত। কিন্তু স্কুলের দ্বাদশ শ্রেণীতে উঠে ভাল নম্বর নিয়ে পাশ করলেন তিনি। একপর্যায়ে কঠোর পরিশ্রমে খুব তাড়াতাড়ি ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশিকা পরীক্ষাতেও উত্তীর্ণ হলেন। শেষ পর্যন্ত জায়গা করে নিলেন বিখ্যাত এই বিশ্ববিদ্যালয়ে। বর্তমানে এখানে তিনি পারফরম্যান্স কার এনহ্যান্সমেন্ট টেকনোলজি ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে পড়াশোনা করছেন।
তবে এতদূর গিয়েও চেন্নাইয়ের সেই ফুটপাথকে ভোলেননি জয়াভেল। দেশে ফিরলে সময় করে একবার অন্তত সেখানে ঢুঁ মেরে আসেন তিনি। এখন তার বয়স ২২ বছর।

এ সম্পর্কিত আরও