Mountain View

ওয়ানডেতে নাসিরের প্রতিদ্বন্দ্বী মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৬ at ৫:৩৯ অপরাহ্ণ

received_335634700118211
গত নয় মাস কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার সৌভাগ্য হয়নি বাংলাদেশ জাতীয় দলের। তবে সব অপেক্ষার অবসান ঘটতে যাচ্ছে চলতি মাসেই।

চলতি মাসের শেষের দিকে আফগানিস্থান দলের বিপক্ষে তিন ম্যাচে ওয়ানডে সিরিজ খেলবে টাইগাররা। এই সিরিজের পরই রয়েছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিনটি ওয়ানডে ও দুটি টেস্ট।

এই দুটি সিরিজ শেষ হওয়ার পর পেছনে ফিরে তাকানোর সময় টুকুও হয়তো হবেনা মাশরাফি-তামিমদের।
কারণ সামনের বছরের জুন মাস পর্যন্ত প্রায় ৩১টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে হবে বাংলাদেশকে।
এখন সামনের ম্যাচ গুলো নিয়ে অনুশীলনে ভারী ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছে টাইগাররা। লক্ষ্য একটাই ইংল্যান্ড ও আফগানিস্থান সিরিজে ভালো কিছু করার।

তবে নয় মাস ধরে ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে বিরত থাকার কারণে পুরোদমে জ্বলে উঠা হয়তো একটু কষ্টকর হবে তামিম-সাকিবদের জন্য। তবে সিরিজ দুটিতে ভালো পারফর্ম করার ব্যপারে আশাপবাদি সবাই।

চিন্তার বিষয় হল ঈদের আগে অনুশীলনের সময় আঙ্গুলে চোট পেয়েছেন জাতীয় দলের ওপেনার তামিম। যার কারণে আফগানিস্থানের বিপক্ষে সিরিজে খেলার ব্যপারে নিশ্চিত নন তিনি।

তামিম ছাড়াও জাতীয় দলের ফ্রন্ট লাইন পেস বোলার মুস্তাফিজের কাঁধের ইনজুরি এবং অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের দায়ে নিষিদ্ধ দুই বোলার তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানিকেও এই সিরিজে পাওয়ার ব্যপারে নিশ্চিত নয় বাংলাদেশ দল।
যার কারণে বাড়তি চাপ থাকবে খেলোয়াড়দের উপর। তবে এই সিরিজকেই হয়তো সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাতে পারেন জাতীয় দলের অলরাউন্ডার নাসির হোসেন।

এক সময়ে জাতীয় দলের নিয়মিত খেলোয়াড় হলেও বাজে ফর্মের কারণে ২০১৪ সালের এশিয়া কাপের পর দল থেকে বাদ পড়েন নাসির।

এরপরে স্কোয়াডে জায়গা পেলেও একাদশে নিয়মিত জায়গা পেতে হিমশিম খেতে হচ্ছে নাসিরের।
তাইতো জাতীয় দলের হয়ে ৫৬টি ওয়ানডে খেলা নাসিরের সামনে সুযোগ থাকছে আফগানিস্থানের বিপক্ষে ভালো পারফর্ম করে আবারও নিজের জায়গা পাকা করে নেয়ার।

দলের ৭ নম্বর পজিশনে ব্যাটিং এবং ৫-৭ ওভার বোলিং করে দলকে সাফল্য এনে দেয়াই এখন হবে নাসিরের প্রধান কাজ।

এছাড়াও চলতি বছরের ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে অলরাউন্ড পারফর্মেন্সে মাঠেই ক্রিকেট কর্তাদের কড়া জবাব দিয়েছেন নাসির। ব্যাট হাতে ১৬ ম্যাচে ১২ ইনিংসে দ্বিতীয় সেরা ৭৫.৪২ গড় ও ৯৬.৮৮ স্ট্রাইক রেটে রান করেছেন ৫২৮।
সর্বোচ্চ ৯৭ রানের ইনিংসের সহ চারটি অর্ধশতক হাঁকান পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে। বল হাতেও কম যাননি তিনি। ১৬ ম্যাচ খেলে ৪.২৬ ইকনোমিতে উইকেট নিয়েছেন ১৪টি।

তবে নাসিরের জন্য চিন্তার বিষয় তার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে থাকতে পারেন মোসাদ্দেক হোসেন।

চলতি বছরের ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে লোয়ার মিডেল অর্ডার বা জাতীয় দলের হয়ে সাত নম্বর পজিশনে ব্যাট হাতে দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ের সাথে বল হাতে উইকেট শিকারেও নিজের দক্ষতার প্রমান রেখেছেন তিনি।

টুর্নামেন্ট জুড়ে স্ট্রাইক রেট ছিল দুর্দান্ত। ডেথ ওভারে দ্রুত রান তোলায় পটু মোসাদ্দেক হতে পারে ভবিষ্যতের তারকা। সেরা রান সংগ্রাহকের তালিকায় মোসাদ্দেক আছেন ষষ্ট অবস্থানে।

১৬ ম্যাচে ১৪ ইনিংসে ৭৭.৭৫ গড়ে ও ১০৪.৮৯ স্ট্রাইক রেটে রান করেছেন ৬২২।
সর্বোচ্চ ৭৮ রানের ইনিংসসহ পাঁচটি অর্ধশত রানের ইনিংস খেলেন এই তরুণ ডানহাতি।
পাশাপাশি বল হাতে ১৬ ম্যাচ খেলে ২৮ গড়ে ও ৪.২০ ইকনোমি রেটে উইকেট নিয়েছেন ১৫টি। রুপগঞ্জের বিপক্ষে সুপার লীগের ম্যাচে ৪৩ রান খরচায় ৫ উইকেট তুলে নেন তিনি।

.তবে জাতীয় দলের হয়ে এখনও ওয়ানডে খেলার সৌভাগ্য না হলেও একটি টি-টুয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন এই অলরাউন্ডার। তবে হয়তো এই সিরিজ দিয়েই জাতীয় দলের ভাগ্য খুলে যেতে পারে মোসাদ্দেকের।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View