ময়মনসিংহে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৬ at ১০:০৭ পূর্বাহ্ণ

14429252_666775686818352_1612929507_n

ময়মনসিংহের ভালুকায় সপ্তম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রী (১২) ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার হবিরবাড়ি পশ্চিম পাড়ায় এ ঘটনা ঘটলেও বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা হয়। পরে রোববার দুপুরে ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ধর্ষকসহ চারজনকে আসামি করে ভালুকা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই ছাত্রীর বাড়ি ত্রিশালে। সে স্থানীয় একটি মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। তার বাবা ভালুকার স্থানীয় কারখানায় শ্রমিক হিসেবে কর্মরত। তিনি পরিবারসহ কারখানার পাশেই ভাড়া থাকেন। ঘটনার দিন ওই ছাত্রী স্থানীয় সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক মোফাজ্জল হোসেনের বাসায় টিভি দেখতে যায়। টিভি দেখে বাসায় ফেরার সময় স্থানীয় মোফাজ্জলের কলেজপড়ুয়া ছেলে তুষার (১৯) ও তার বন্ধু হোসাইন ওই ছাত্রীকে তুষারের ঘরে তুলে নেয়। পরে গামছা দিয়ে ওই ছাত্রীর হাত-পা ও মুখ বেঁধে তুষার ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে ওই ছাত্রীর চিৎকারে তুষারের পরিবারের সদস্য ও আশপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে। মাদ্রাসাছাত্রী জানায়, গামছা দিয়ে হাত-পা বাঁধার পর হোসাইন চলে যায়। পরে তুষার তাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষিতার মা জানান, ঘটনার পর ওই বাড়ির লোকজন বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। পরে বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর স্থানীয় মাতব্বর ছাইমুদ্দিন বিষয়টি ফয়সালা করে দেয়ার নামে সময়ক্ষেপণ করেন। তিনি জানান, নিরুপায় হয়ে রোববার দুপুরে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে তুষার, তার বাবা, বোন তামান্না ও ছাইমুদ্দিনকে আসামি করে ভালুকা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ভালুকা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হযরত আলী জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

এ সম্পর্কিত আরও