Mountain View

সেদিন দ্রুততম সেঞ্চুরি নাও হতে পারতো ডি ভিলিয়ার্সের!

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৬ at ১২:১৮ অপরাহ্ণ

দ্রুততম সেঞ্চুরির মালিকের একটা ভুলের জন্য প্রায় রেকর্ডটা হাতছাড়া হতে যাচ্ছিলো তার। হ্যা, দক্ষিণ আফ্রিকার তারকা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সের দ্রুততম সেঞ্চুরি নাও হতে পারতো শুধু তার ছোট্ট একটা ‘না’ এর জন্য। কিন্তু, সেদিন দলের কোচ তার কথা শোনেননি আর তারই ফলশ্রুতিতে রেকর্ডবুকে স্থায়ী হয়ে গেল ভিলিয়ার্সের নাম।

 

২০১৫ সালের ১৮ জানুয়ারি। জোহানেসবার্গের নিউ ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে সেদিন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলাররা যে বেদম পিটুনি খেয়েছিল ডি ভিলিয়ার্সের কাছে, তা হয়তো কোন দিন ভুলতে পারবেন না তারা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৩১ বলে সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে ওয়ানডে ইতিহাসের দ্রুততম সেঞ্চুরির মালিক হয়ে যান তিনিম্যাচে ডি ভিলিয়ার্স তিন নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে নামেন। কিন্তু তখন ব্যাটিংয়ে নামতে চাননি তিনি। অনেকটা জোর করেই তাকে ব্যাট হাতে পাঠান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। ডি ভিলিয়ার্স ব্যাট হাতে যখন উইকেটে এলেন, তখন ৩৮.৩ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর এক উইকেট হারিয়ে ২৪৯। ১০ ওভার উইকেটে ছিলেন তিনি। যখন ফিরে গেলেন তার নামের পাশে ৪৪ বলে ১৪৯ রান! ৯টি চারের সঙ্গে ১৬টি ছক্কা। ৫০ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকা তুলেছিল দুই উইকেটে ৪৩৯ রান।

 

সেদিন অধিনায়ক ডি ভিলিয়ার্স চেয়েছিলেন, তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামুক ডেভিড মিলার। এ নিয়ে কোচকে দু’বার অনুরোধও করেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকান অধিনায়ক। তবে তার অনুরোধ রাখেননি কোচ। রাখলে ভিলিয়ার্সের বিশ্ব রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরিটি হয়তো নাও দেখতে পেত ক্রিকেট বিশ্ব!

 

সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে ভিলিয়ার্সের আত্মজীবনী, ‘এবি : দ্য অটোবায়োগ্রাফি’। সেখানেই এই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন তিনি। ভিলিয়ার্স লিখেছেন, ‘আমাদের স্কোর বিনা উইকেটে ২০০ ছাড়ানোর পর চেঞ্জিং রুমে আমি কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোকে অনুরোধ করেছিলাম। আমি কোচকে বললাম, পরের ব্যাটসম্যান হিসেবে ডেভ মিলার যাক। এটা ওর জন্য সঠিক হবে। প্রত্যুত্তরে সে (কোচ) বলেছিলেন, ‘না আব্বাস, পরের ব্যাটসম্যান হিসেবে তুমিই যাভিলিয়ার্স লিখেছেন, ‘মাঠে তখন আমলা (হাশিম) ও রুশো (রিলে) ছিলো। স্কোর ২২০ ছাড়ানোর পর আরো একবার অনুরোধ করলাম। বললাম, কোচ আমি কিন্তু সিরিয়াস। পরের ব্যাটসম্যান হিসেবে ডেভকে যেতে হবে। ডোমিঙ্গোর জবাব ছিল, না, এই পরিস্থিতিতে তুমিই সেরা ব্যক্তি।’

 

কোচের কথাই সেদিন সঠিক প্রমান করেছেন ডি ভিলিয়ার্স। তিনিই ওই সময়ের জন্য সঠিক ছিলেন। না হলে হয়তো, দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ডটি ডি ভিলিয়ার্সের নামের পাশে লেখা হতো না। বে।’।

এ সম্পর্কিত আরও