Mountain View

মন্ত্রিসভার সদস্য, ভিআইপিদের সুরক্ষায় ৯ নির্দেশনা

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৬ at ৮:২৬ পূর্বাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক: মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও সমপদমর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি ও ভিআইপিদের সুরক্ষায় নয়টি নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ১৫ই সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের কাছে পাঠানো এ চিঠিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

 

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক- ১২ ফরিদ আহাম্মদ স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে নয় বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণ করার জন্য আদিষ্ট হয়ে অনুরোধ করা হলো। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বলা হয়, বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের দীর্ঘ ভ্রমণের সময় বর্তমানে অনুসরণ করা রীতি অনুযায়ী জেলা বা থানা পুলিশ কর্তৃক খণ্ডে খণ্ডে দেয়া সুরক্ষা ব্যবস্থা রহিত করে কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে নিরবচ্ছিন্নভাবে সুরক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা চালু করতে হবে। এ জন্য আলাদা ব্যাটালিয়ন গঠন করে তাদের ওপর দায়িত্ব ন্যস্ত করতে হবে।–মানবজমিন।

 

ভিআইপিদের যানবাহনের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, মন্ত্রী/ প্রতিমন্ত্রী/উপমন্ত্রী/সমপদমর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি ও ভিআইপিদের সুরক্ষার কাজে নিয়োজিত যানবাহনের ব্যবস্থা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ করতে হবে।

 

এছাড়া বর্তমান জরুরি প্রয়োজন মেটানোর জন্য পুলিশ বিভাগের টিওএন্ডই-এর বাইরে একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক যানবাহনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিতে হবে, যা পরবর্তীতে টিওএন্ডই-ভুক্ত করা হবে। মন্ত্রিসভার সদস্যদের হাউজগার্ডের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘গার্ড ব্যাটালিয়ান’ নামে পুলিশের দুইটি এবং আনসার ও ভিডিপি- তে দুইটি আলাদা ব্যাটালিয়ান সৃষ্টি করে তাদেরকে শুধুমাত্র হাউজগার্ড দেয়ার কাজে নিয়োজিত করতে হবে।

 

আনসার ও ভিডিপি বাহিনীর গার্ড ব্যাটালিয়ান সদস্যদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এছাড়া, হাউজগার্ড দেয়ার ক্ষেত্রে হাউজ গার্ডদের আবাসিক সুবিধা সরকারিভাবে এবং ক্ষেত্রমতে সংশ্লিষ্ট ভিআইপি কর্তৃক (নিজ বাসার ক্ষেত্রে) সৃষ্টির ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

 

প্রধানমন্ত্রীর অন্য নির্দেশনায় বলা হয়েছে, জেলা পর্যায়ে বিভিন্ন দপ্তর/সংস্থা কর্তৃক ব্যবহার করা অস্ত্র ও গোলাবারুদের হিসাব বিধি মোতাবেক নিয়মিতভাবে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সুপার পরীক্ষা করবেন। এছাড়া, বিভিন্ন বিভাগ/দপ্তর কর্তৃক গুলি ও গোলাবারুদ ব্যবহারের বিষয়টি নিবিড়ভাবে মনিটর করাসহ যথাযথভাবে হিসাব সংরক্ষণ নিশ্চিত করতে হবে। একই সঙ্গে সাইবার অপরাধ দমনে কার্যকর ও সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

 

পাশাপাশি ইস্টার্ন রিফাইনারির নিরাপত্তার বিষয়ে বিশেষ ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর এসব নির্দেশনার পর চিঠির শেষে বলা হয়েছে, এসব বিষয়ে দ্রুত কার্যক্রম গ্রহণ এবং গৃহীত কার্যক্রম সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে অবহিত করার জন্যও আদিষ্ট হয়ে অনুরোধ করা হলো।

 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম নেয়ার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন উইংকে চিঠি দেয়া হয়েছে। এখন বিভিন্ন উইং প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে। সহসাই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নের কাজ শুরু হবে বলে মনে করছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View