ঢাকা : ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, শনিবার, ১২:৪৩ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

রাঁচি হাসপাতালে মেঝেতে খাবার দেওয়া হল রোগীকে

full_1637199537_1474624563

হাসপাতালে প্লেট নেই, তাই ভারতের রাঁচি ইন্সটিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্স হাসপাতালে মেঝেয় খাবার দেওয়া হল রোগীকে।

রাঁচির সবচেয়ে বড় সরকারি হাসপাতালের এই ছবি তখন প্রকাশ্যে এল, যখন দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে গরীব মানুষদের পরিষেবা দেওয়া নিয়ে নানা বিতর্ক শুরু হয়েছে।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ার সৌজন্যে দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে দরিদ্র মানুষরা কতটা উপেক্ষিত তার ছবি প্রকাশ্যে এসেছে। দেখা গিয়েছে দেশের অনেক রাজ্যে মৃত্যুর পর অ্যাম্বুলেন্স নেই বলে সরকারি হাসপাতাল থেকে দেহ কাঁধে নিয়ে বাড়ি ফিরতে হয়েছে পরিবারের সদস্যকে। কখনও আবার জ্বরে বাসের মধ্যে রোগীর মৃত্যু হলে, দেহ মাঝ রাস্তায় ফেলে পালিয়ে যায় বাস চালক।

অনেক সময় আবার হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স না থাকায়, রোগীর মৃত্যুর পর, রোগীর দেহ টুকরো টুকরো করে ভেঙে বাঁশের সঙ্গে বেঁধে পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তে। এই বিতর্কের মাঝেই ঝাড়খণ্ডের সবচেয়ে বড় সরকারি হাসপাতালের এই করুণ ছবি সামনে এল।

পালমতী দেবী, যাঁর একটি হাত ভেঙে গিয়েছে এবং চিকিত্সার জন্যে তিনি এখন ওই সরকারি হাসপাতালে চিকিত্সাধীন। বুধবার ওয়ার্ড বয় পালমতী দেবীকে হাসপাতালের মেঝেয় ভাত, ডাল, সবজি খেতে দেন। তারআগে ওই রোগীকে হাসপাতালের মেঝে পরিস্কার করারও নির্দেশ দেয় ওই ওয়ার্ড বয়।

অথচ বছরে এই হাসপাতাল সরকারের থেকে ৩০০ কোটি টাকা সাহায্য পায়। এই ঘটনার কথা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কানে পৌঁছনোর সঙ্গে সঙ্গে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাসপাতালের ডিরেক্টর বিএল শেরওয়াল। তাঁর দাবি এধরনের ঘটনা সাধারণত সেখানে ঘটে না। কেন এমন ব্যবহার করলেন হাসপাতালের কর্মীরা, সেবিষয় তিনি খবর নেবেন বলে জানিয়েছেন। -এবিপি আনন্দ।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

324ea45b4b7410a942d408ae3e1f0eb8x800x706x79

পাইলটের রেকর্ড করা বক্তব্য ফাঁস: অনুরোধ করেও অবতরণের অনুমতি পাননি বিধ্বস্ত বিমানের পাইলট

ব্রাজিলের ক্লাব ফুটবল দলসহ ৭৭ আরোহী নিয়ে কলম্বিয়ায় বিধ্বস্ত বিমানটি জ্বালানি ফুরিয়ে যাওয়ায় পাইলট বারবার …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *