ঢাকা : ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, বৃহস্পতিবার, ৮:০৫ পূর্বাহ্ণ
সর্বশেষ
ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম বন্ধে আইনি নোটিশ ‘রোহিঙ্গাদের অবারিত আসার সুযোগ দিতে পারি না’প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে ২১ হাজার রোহিঙ্গা মুসলিম দেশে এইচআইভি আক্রান্ত ৪ হাজার ৭২১ জন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানাজায় লাখো মানুষের ঢল,শেষ শ্রদ্ধায় শাকিলের দাফন সম্পন্ন ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা ৯৭ সংসদে রোহিঙ্গা ইস্যুতে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী বগুড়ায় জাতীয় বিদ্যুৎ ও জ্বালানী সপ্তাহ ২০১৬ উদ্বোধন ও র‌্যালী অনুষ্ঠিত অভিনয়েই নয় এবার শিক্ষার দিক দিয়েও সেরা মিথিলা শিশুদের ওজনের ১০ শতাংশের বেশি ভারী স্কুলব্যাগ নয়
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

আরো ইলিশ ধরা পড়বে নভেম্বরে

নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়বে বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকরা। তবে ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত মা ইলিশ রক্ষায় ২২ দিন মাছ ধরা বন্ধ থাকবে। সেই হিসাবে চলতি মৌসুমে জেলেদের জালে ইলিশ ধরা পড়বে আরো প্রয় ১৪ দিন।

তবে ২ নভেম্বরের পরও এক সপ্তাহ প্রচুর ইলিশ পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গত প্রায় দেড় মাস ধরেই ঝাঁকে-ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়ছে। আড়ৎদারদের ভাষ্য অনুযায়ী, গত এক যুগে এতো বেশি ইলিশ ধরা পড়েনি। তাই জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ পেয়ে খুশি জেলেরা।

চাঁদপুর মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও ইলিশ গবেষক ড. আনিছুর রহমান বলেন, ‘ইলিশ যেহেতু কমবেশি সারা বছরই ডিম ছাড়ে, তাই সারা বছরই এই মাছ পাওয়ার কথা। তবে সেপ্টেম্বর-অক্টোবর প্রধান প্রজননের সময়। এ সময় ৬০ থেকে ৭০ ভাগ ইলিশ পাওয়া যায় প্রজনন এবং বিচরণ অঞ্চলে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে অামাবস্যা-পূর্ণিমার সময় সবচেয়ে বেশি ইলিশ পাওয়া যাবে। বাকি সময় অপেক্ষাকৃত কম মাছ পাওয়া যাবে। প্রজননের সময় মা ইলিশ রক্ষায় ২২ দিন মাছ ধরা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এরপর মা ইলিশ ডিম ছেড়ে সাগরের দিকে চলে যাবে। এ সময় কয়েকদিন ইলিশ ধরা পড়তে পারে।’

ড. আনিছুর রহমান আরো বলেন, ‘নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহের পর থেকেই ইলিশ কম পাওয়া যাবে। আবার জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে গিয়ে কিছু পাওয়া যেতে পারে। এ সময়টা তাদের দ্বিতীয় প্রজনন সময়। কিন্তু এটা খুববেশি গুরুত্বপূর্ণ না বলে বিবেচনায় আনা হয় না।’

চাঁদপুর আখনেরহাটের আড়ৎদার আলমগীর হোসেন জানান, ‘গত দু’দিন মাছ কিছুটা কম পাওয়া গেলেও গতদিন একটু বেশি পাওয়া গেছে। এ দিন ৬০০-৮০০ গ্রাম ইলিশের হালি পাইকাররা কিনেছেন আড়াই থেকে তিন হাজার টাকায়। আর ৫০০ গ্রামের ইলিশের হালি ছিল আট’শ থেকে এক হাজার টাকা।

চাঁদপুর মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান কালু ভূঁইয়া জানান, ‘গত দুই দিন মাছের আমদানি আগের চেয়ে একটু কম। তবে এই কম একেবারেই কম না। বুধবারও চাঁদপুর মাছঘাটে প্রায় ২ হাজার মন ইলিশ আমদানি হয়েছে।’

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

গণধর্ষণের লজ্জায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা

মাদারীপুরের কালকিনির গোপালপুর এলাকায় গণধর্ষণের শিকার হয়ে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। তাকে উদ্ধার করে …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *