Mountain View

পদ্মা সেতু চালু হলে বদলে যাবে দেশের অর্থনীতি

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ৭, ২০১৬ at ৭:০৩ অপরাহ্ণ

জোবায়ের তুহিন: পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন ছিল দীর্ঘদিনের মানুষের স্বপ্ন।কিন্তু পদ্মা সেতু নিয়ে অনেক জল্পনা-কল্পনা চলছিল বিশ্বব্যাংক তার অর্থায়ন প্রত্যাহার করার পর।তখন প্রধানমন্ত্রী ঘোষনা দিলেন নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়ন হবে পদ্মা সেতু।14568170_913178192121166_2471965184361139203_n

ঘোষনা দিয়েই সরকার বসে থাকে নি,কাজ শুরু করে পূর্ণদমে।ইতিমধ্যে পদ্মাসেতুর বেচ সহ ৩৫% কাজ শেষ হয়েছে।গার্ডার তৈরি ও দুপাশে পূর্ণবাসন প্রক্রিয়ার কাজ ও প্রায় শেষ।তাই দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের মনে নতুন স্বপ্ন জেগেঁ ওঠেছে,তাদের অবস্থা বদলে যাবার স্বপ্ন দেখছে সেতুটি চালু হলে।যোগাযোগ ব্যাবস্থা সম্পূর্ণরুপে বদলে যাবে সেতুটির কাজ শেষ হলে।

তাছাড়া অর্থনীতিতে রাখবে এক বিশাল অবদান।পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বেড়ে যাবে। ফলে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) বেড়ে যাবে প্রায় ১ দশমিক ২৩ ভাগ। একইসঙ্গে পদ্মার ওপারে জেলাগুলোর পরিস্থিতিই পাল্টে যাবে।মুন্সিগঞ্জ, ফরিদপুর, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, বরিশাল, পটুয়াখালীসহ দক্ষিণাঞ্চলের জিডিপি বেড়ে যাবে ২ দশমিক ৬ ভাগ। স্বপ্নের এই সেতুটি ইতিমধ্যেই ৩৩ শতাংশ কাজের অগ্রগতি হয়েছে।

মূল সেতুর ৪২টি পাইলের মধ্যে ৫টি পাইলের কাজ শুরু হয়েছে। সেতু নির্মাণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ভূমি অধিগ্রহণ, হুকুম দখল, ভূমি উন্নয়ন এবং পুনর্বসনের কাজ প্রায় শেষের দিকে। পদ্মা সেতু প্রকল্প পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানালেন প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম।প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, পদ্মা সেতুর মোট ভৌত কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৩৩ শতাংশ।

মোট ৬টি ভাগে বাস্তবায়ন হচ্ছে পদ্মা সেতুর কাজ। এর মধ্যে মূল সেতুর কাজ শেষ হয়েছে ২১ দশমিক ৫০ শতাংশ, নদী শাসন কাজের অগ্রগতি হয়েছে ১৮ দশমিক ২৩ শতাংশ, জাজিরা সংযোগ সড়কের ৬৮ দশশিক ৭০ শতাংশ, মাওয়া সংযোগ সড়কের বাস্তবায়ন হয়েছে ৭৯ দশমিক ২০ শতাংশ কাজ এবং সার্ভিস এরিয়া-২ এর অগ্রগতি হয়েছে ৮৫ শতাংশ কাজ।

টোল প্লাজা, পুলিশ স্টেশন ও ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। এ সেতুটি দক্ষিণ অঞ্চলের ১৯টি জেলার সঙ্গে ঢাকাসহ পূর্বাঞ্চলের যোগাযোগ স্থাপন করবে। তা ছাড়া এটি এশিয়ান হাইওয়ের সঙ্গে যুক্ত হবে এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন করবে।পদ্মাসেতু বাস্তবায়ন হলে শিল্পকারখানা ও প্রচুর পরিমাণে স্থাপন হবে নদীর তীর ঘেষে।এতে একদিকে অর্থনীতির চাকা ঘুরবে অন্যদিকে বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান ও হবে।দেশবাসীর প্রত্যাশা তাই খুব শিগগিরই তার কাজ সুষ্ঠভাবে সম্পূর্ণ হবে।

এ সম্পর্কিত আরও