ঢাকা : ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, রবিবার, ১০:২১ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

এখন থেকে মামলা ছাড়াই গ্রেপ্তার করতে পারবে দুদক

duduk

অনুসন্ধান পর্যায়েই অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করতে পারবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদক আইন ২০০৪–এর দুটি ধারার সংশোধনের ফলে সন্দেহভাজন যে কাউকেই গ্রেপ্তার করার ক্ষমতা পেয়েছে সংস্থাটি।

দুদক মনে করে, এ সংশোধনীর মাধ্যমে দুদকের সক্ষমতা বেড়েছে। দুদক সচিব আবু মো. মোস্তফা কামাল বলেন, অনুসন্ধান পর্যায়ে দুদক কর্মকর্তাদের ক্ষমতা বাড়ার কারণে অনুসন্ধান অনেক তথ্যবহুল হবে।

আগে তল্লাশি ও আলামত বা নথি জব্দ করার ক্ষমতা না থাকার কারণে অনুসন্ধান প্রতিবেদন অনেকটা অসম্পূর্ণ হতো। এর ভিত্তিতে মামলা হতো। এখন তথ্যবহুল প্রতিবেদন ও নথিপত্রের সহায়তায় পাকাপোক্ত ভিত্তির ওপর মামলা করা সম্ভব হবে।

দুদকের মতো প্রতিষ্ঠানের জন্য এ ধরনের ক্ষমতা জরুরি বলে মনে করেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান। সংস্থাটির সক্ষমতা বাড়লেও এ আইনের অপব্যবহারের ঝুঁকির বিষয়টিও উড়িয়ে দেননি তিনি।

গত ২১ জুন সংশোধিত আইনের গেজেট প্রকাশিত হয়। ওই গেজেটে প্রকাশিত সংশোধনী অনুসারে দুদক আইন ২০০৪–এর ২০ ধারার তিনটি উপধারায় ‘তদন্তের’ জায়গায় ‘অনুসন্ধান ও তদন্ত’ প্রতিস্থাপিত হয়। একইভাবে ২৬ ধারার উপধারা ১–এ তদন্তের পরিবর্তে অনুসন্ধান ও তদন্ত শব্দ দুটি প্রতিস্থাপিত হয়।

দুদক আইনে মামলার আগের প্রক্রিয়াকে বলা হয় অনুসন্ধান। আর মামলার পরের কার্যক্রমকে বলা হয় তদন্ত। নতুন এ আইনের ক্ষমতাবলে অনুসন্ধান ও তদন্ত—দুই পর্যায়ে দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার ক্ষমতা ভোগ করবেন।

আইন সংশোধনের আগে কেবল মামলার পরেই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার ক্ষমতা ছিল দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তার। সে ক্ষমতাবলে তদন্ত কর্মকর্তারা মামলা সংশ্লিষ্ট নথিপত্র জব্দ করা, তল্লাশি করা এবং গ্রেপ্তার করতে পারতেন। সংশোধনীর ফলে অনুসন্ধান পর্যায়েই একই ক্ষমতা ভোগ করবেন দুদক কর্মকর্তারা।

এ ক্ষমতা প্রয়োগ করে গত ১ অক্টোবর খুলনা থেকে এক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে দুদক। মুজিবর রহমান খান নামের ওই ব্যবসায়ী গম আমদানির ঋণপত্রের বিপরীতে প্রিমিয়ার ব্যাংক খুলনা শাখা থেকে ৮৭ কোটি টাকা নেন। পরবর্তী সময়ে সুদসহ ওই টাকার পরিমাণ দাঁড়ায় ১০২ কোটি টাকা।

সময়মতো ঋণ পরিশোধ না করে আত্মসাতের অভিযোগটি অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। দুদকের উচ্চপর্যায়ের এক কর্মকর্তা জানান, অনুসন্ধান পর্যায়েই ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ায় এবং তাঁর পালিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। অবশ্য গ্রেপ্তারের পরই প্রধান কার্যালয় থেকে তাঁর বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দেওয়া হয় এবং আদালতে হাজির করার সময় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, এ ধরনের ক্ষমতা প্রয়োগের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকাটা জরুরি। মনে রাখতে হবে, এটি যেন হয়রানির জন্য ব্যবহৃত না হয়। ব্যক্তির অবস্থান বা পরিচয়ের ঊর্ধ্বে উঠে নিরপেক্ষভাবে যাতে ক্ষমতার প্রয়োগ করা হয়, সে বিষয়ে নজর রাখা জরুরি।

দুদক সচিব বলেন, এই ক্ষমতা নতুন নয়, ব্যুরোর আমলে দুদক কর্মকর্তাদের এ ক্ষমতা ছিল। এ ক্ষমতার অপব্যবহারের আশঙ্কা প্রসঙ্গে দুদক সচিব বলেন, যৌক্তিক কারণ ও সঠিক তথ্য ছাড়া কেউ গ্রেপ্তার করতে পারবেন না।

কমিশন বিষয়টি কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ, পরিবীক্ষণ ও তদারক করবে। কেউ অপব্যবহার করেছেন, এমন প্রমাণ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেবে।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

23cac260e0e06efa81849ba8495e00cfx236x157x8

স্কুল পর্যায়ে সব বই পৌঁছে যাবে ১৫ দিনেই: শিক্ষামন্ত্রী

আগামী ১৫ দিনের মধ্যেই স্কুল পর্যায়ে সব নতুন বই পৌঁছে যাবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *