যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাশিয়া-চীনের যুদ্ধ অনিবার্য

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ৯, ২০১৬ at ১১:০১ অপরাহ্ণ

maxresdefault
এই যুদ্ধের তীব্রতা এবং গতি মানুষের পক্ষে চিন্তা করাও কঠিন হবে : জেনারেল হিক্স ইনকিলাব ডেস্ক : রাশিয়া এবং চীনের সঙ্গে যুদ্ধ প্রায় অনিবার্য বলেই ধারণা করছে মার্কিন সেনাবাহিনী। এ যুদ্ধে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং চৌকস অস্ত্রই হবে মার্কিন সেনাবাহিনীর প্রধান অবলম্বন। ওয়াশিংটনে অ্যাসোসিয়েশন অব দ্য ইউএস আর্মি’র এক বৈঠকে এমন পূর্বাভাস দিয়েছেন মার্কিন সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল উইলিয়াম হিক্স। এটু/এডি নামে পরিচিত অঞ্চলভিত্তিক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলায় এমনটি হতে পারে বলে মনে করেন তিনি। ভবিষ্যৎ এ যুদ্ধের তীব্রতা এবং গতি মানুষের পক্ষে চিন্তা করাও কঠিন হবে বলে উল্লেখ করেন জেনারেল হিক্স।
তিনি বলেন, সুদূর ভবিষ্যতে যন্ত্র এত দ্রুত সিদ্ধান্ত নেবে যে, তার সঙ্গে তাল রাখা মানুষের পক্ষে দুষ্কর হয়ে উঠবে; ফলে মানুষ এবং যন্ত্রের মধ্যে সম্পর্কের কথা নতুন করে ভাবতে হবে। জেনারেল হিক্স বলেন, রাশিয়া এবং চীন ব্যাপকভাবে প্রচলিত সামরিক শক্তি অর্জন করছে। মার্কিন বাহিনী নজিরবিহীন সহিংসতার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোরীয় যুদ্ধের পর এমন ব্যাপকমাত্রার সহিংসতা আর কখনই দেখা যায়নি। একই বৈঠকে ভবিষ্যতে যুদ্ধ প্রায় অনিবার্য বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ জেনারেল মার্ক এ মিল্লি। কোরীয় যুদ্ধের পর থেকে বিশ্বে বিমান আধিপত্য রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের। কিন্তু ভবিষ্যতে এ আধিপত্য হয়তো থাকবে না বলেও ধারণা তার।
অন্যদিকে জেনারেল হিক্স বলেন, ভবিষ্যৎ যুদ্ধে মার্কিন নৌবাহিনীও হয়তো কার্যকর ভূমিকা নিতে পারবে না। ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পরমাণু ও জ্বালানি খাতে সহযোগিতা চুক্তি বাতিল করেছে রাশিয়া। রুশ প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভের সই করা এক বিবৃতিতে এ ঘোষণা দেয়া হয়েছে। শত্রুতামূলক আচরণের অভিযোগে রাশিয়া পরমাণু অস্ত্র বানানোর উপযোগী প্লুটোনিয়াম ধ্বংসের চুক্তি বাতিল করার পর পরমাণু খাতে সহযোগিতা চুক্তি বাতিল করল মস্কো।
নতুন এ ঘোষণায় বলা হয়েছে- ৯০ দিনের মধ্যে চুক্তি বাতিলের এ ঘোষণা কার্যকর হবে। এপি জানায়, পরমাণু জ্বালানি শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের উদ্দেশ্যে বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তি সহযোগিতা বিষয়ে দু’দেশ ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এ চুক্তি করেছিল। চুক্তি বাতিলের বিষয়ে রুশ বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিয়মিতভাবে নিষেধাজ্ঞা নবায়ন করায় যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি ছিল সময়ের দাবি। সে পরিপ্রেক্ষিতে জ্বালানি খাতে রুশ-যুক্তরাষ্ট্র সহযোগিতা চুক্তি বাতিল করা হলো।
এদিকে, রাশিয়ার এ ঘোষণায় দুঃখ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র মার্ক টোনার বলেছেন, যদিও এ বিষয়ে তারা রাশিয়ার কাছ থেকে কোনো নোটিশ পাননি তবে গণমাধ্যমের খবরে তারা রাশিয়ার ঘোষণাটি দেখেছেন। তিনি বলেন, যদি এ খবর সঠিক হয় তাহলে আমরা বলব যে, রাশিয়া একতরফাভাবে এমন কিছু বাতিল করল যা দু’দেশের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ ছিল বলে আমরা মনে করি। আরটি, ওয়েবসাইট।

Copyright Daily Inqilab

এ সম্পর্কিত আরও