ঢাকা : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, সোমবার, ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

যে যুদ্ধের শেষ নেই

3e89d83f9f0c224c524b92accebe4fc4-soldier-war

আফগানিস্তানে মার্কিন আগ্রাসনের পর দেড় দশক কেটে গেছে। দেশটিতে আজও শান্তি আসেনি। সেখানে এক অন্তহীন যুদ্ধ চলছে।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে কথিত সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের নামে একই বছরের ৭ অক্টোবর আফগানিস্তানে অভিযান শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্র ২০১৪ সালের শেষ নাগাদ আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু করে। দেশটিতে এখনো কয়েক হাজার মার্কিন সেনা আছে। কিন্তু যে তালেবানকে সমূলে উৎখাত করতে আফগানিস্তানে হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র, তারা বহাল তবিয়তেই আছে। সেখানে আছে আল-কায়েদার উপস্থিতিও। নতুন করে যুক্ত হয়েছে আইএসের উৎপাত।

ভয়ংকর সব জঙ্গি হামলায় আফগানিস্তানে প্রায় প্রতিদিনই রক্ত ঝরছে। আফগানিস্তানে জাতিসংঘ মিশন বলছে, দেশটির পরিস্থিতি দিনকে দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। ২০১৬ সালের প্রথম ৬ মাসে ৫ হাজার ১৬৬ জন বেসামরিক মানুষ হতাহত হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৬০১ জন নিহত এবং ৩ হাজার ৫৬৫ জন আহত হয়েছে।

বিভিন্ন প্রতিবেদন ও বিশ্লেষণ অনুযায়ী, আফগানিস্তানের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ এখন তালেবানের নিয়ন্ত্রণে। ২০০১ সালের চেয়ে তারা বেশি ভূখণ্ড ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করছে।

১৫ বছর ধরে আফগানিস্তানে চলমান সংঘাতে বহু মানুষ হতাহত হয়েছে। এই হতাহতের প্রকৃত হিসাব বের করা সত্যিই অসম্ভব। কারণ, যুদ্ধের প্রথম দিকের বছরগুলোর হতাহত মানুষের হিসাব সংরক্ষণ করা হয়নি।

যুদ্ধ-সংঘাতে আফগানিস্তানের অবকাঠামোও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই ক্ষতির প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভুক্তভোগী দেশটির সাধারণ মানুষ।

বছরের পর বছর ধরে আফগানরা যুদ্ধ-সংঘাতের ধকল বইছে। তারা ক্লান্ত-শ্রান্ত। তাদের সামনে কোনো আশা নেই। নেই শান্তির আভাস।

আফগান সরকারের অবস্থাও খুব একটা ভালো না। তাদের ভিত্তি দুর্বল। অদক্ষতা, অব্যবস্থাপনা ও সর্বব্যাপী দুর্নীতিতে সরকারের অবস্থা লেজেগোবরে।

আফগানরা মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। অনেকে হয়েছে বাস্তুচ্যুত।

নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় আফগান জনগণ সব সময় তটস্থ। যখন-তখন তালেবান হানা দিচ্ছে। ভূখণ্ড দখল করে নিচ্ছে। তাদের মোকাবিলায় আফগান বাহিনী কার্যত ব্যর্থ। এই পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানের জন্য কাঙ্ক্ষিত স্থিতিশীলতা অধরাই রয়ে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জন্য আফগানিস্তান এক ‘গলার কাঁটা’। ইতিমধ্যে দেশটিতে তাদের অনেক সেনার প্রাণ গেছে। গুনতে হয়েছে বিপুল খরচ। তারা চাইলেও হুট করে আফগানিস্তান থেকে উঠে আসতে পারছে না। ২০১৭ সালেও দেশটিতে কয়েক হাজার মার্কিন সেনা থাকছে।

আফগানিস্তান থেকে বিদেশি সেনারা পুরোপুরি সরে এলে দেশটির পরিস্থিতি যে কী হবে, তা তালেবানের সাম্প্রতিক তৎপরতায় অনুমান করা যায়। মার্কিন সামরিক কর্মকর্তারাও সম্প্রতি স্বীকার করেছেন, আফগান-পরিস্থিতি ভয়াবহ। বার্তা সংস্থা এএফপি ও টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইন অবলম্বনে

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

casto

ফিদেল কাস্ত্রোকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে মানুষের ঢল

সদ্যপ্রয়াত কিউবার বিপ্লবী নেতা ফিদেল কাস্ত্রোকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে জড়ো হয়েছেন দেশটির হাজারো নাগরিক, সঙ্গে …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *