Mountain View

দেশের ৬৪টি জেলায় ৬৬টি ত্রাণ গুদাম নির্মাণের সিদ্ধান্ত

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ১১, ২০১৬ at ১০:০১ পূর্বাহ্ণ

images

দেশের ৬৪টি জেলায় ৬৬টি ত্রাণ গুদাম নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতর। ১৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে জুলাই ২০১৬ থেকে জুন ২০১৯ মেয়াদে ত্রাণ গুদামগুলো নির্মাণ করা হবে। ৬৪টি জেলাসহ পটুয়াখালী ও ঢাকা জেলায় বাড়তি একটি করে ত্রাণগুদাম নির্মিত হবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দুর্যোগে তাৎক্ষণিক সাড়া দানের অংশ হিসেবে ত্রাণ সামগ্রী সরবরাহের জন্য পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদকরণের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণের পাশাপাশি স্থানীয় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সাময়িক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করে আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করাও এই প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য।

ত্রাণ গুদামগুলোর প্রতিটিতে ১৫’শ ওয়াট করে ৬৬টিতে মোট ৯৯ কিলোওয়াট সোলার সিস্টেম থাকবে। যেন কোনো কারণে সংশ্লিষ্ট এলাকা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলে কোনো সমস্যা না হয়। ত্রাণ সামগ্রী সহজে পরিবহনের লক্ষ্যে প্রতি স্থাপনায় ৪১৬ ফুট আরসিসি অ্যাপ্রোচ রোড নির্মাণ করা হবে।

মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (ত্রাণ) জাকির হোসেন আকন্দ বলেন, আমরা প্রতিটা জেলায় একটি করে ত্রাণ গুদাম নির্মাণ করবো। ত্রাণ গুদামের অভাবে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় এবং পরিত্যক্ত ভবনে ত্রাণ সামগ্রী রাখতে হচ্ছে। ফলে অনেক সামগ্রী নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

বিশেষ করে চাল, ঢেউটিন ও তাবু রাখার জন্য নিরাপদ পরিবেশ দরকার। দুর্যোগকালীন সময়ে মানুষকে রান্না করে খাবার খাওয়ানো হয়। অনেক মানুষের জন্য এক সঙ্গে খাবার রান্না করার সময় প্রয়োজন রান্না সামগ্রী। এগুলো সংরক্ষণ করার জন্যও পর্যাপ্ত স্থান দরকার, যা আমাদের নেই। তাই দেশব্যাপী ৬৬টি ত্রাণগুদাম আমরা নির্মাণ করবো। জরুরি মুহূর্তে চিড়া, মুড়িসহ শুকনা খাবার সংরক্ষণে এসব ত্রাণ গুদাম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

প্রতিটা ত্রাণগুদাম হবে তিনতলা বিশিষ্ট। নিচতলায় ত্রাণ সামগ্রী রাখার ব্যবস্থা করা হবে। দ্বিতীয় তলায় শুকনা খাদ্য সামগ্রী সংরক্ষণের ব্যবস্থা রেখে বাকি জায়গায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সেলের ব্যবস্থা রাখা হবে।

তৃতীয় তলায় পরিদর্শন বাংলো হিসেবে দু’টি রুমের ব্যবস্থা রাখা হবে। ত্রাণ গুদাম নির্মাণের স্থানটির দৈর্ঘ্য ১১০ এবং প্রস্থ ৬০ ফুট হবে।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View