প্রতিবন্ধী জাহাঙ্গীর আলমের মানবেতর জীবন যাপন

jibon

তাজুল ইসলাম: বাংলাদেশ সরকারের সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক অর্থ সমাজের দুস্থ্য, অসহায়, বিধবা, স্বামী পরিত্যাক্ত, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, সর্বপোরী প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও সেই প্রতিবন্ধী তালিকাভুক্ত হবার ভাগ্য জোটেনি প্রতিবন্ধী জাহাঙ্গীর’র (৩৫) নামের কপালে ।

কিন্তু আশেপাশে তালিকাভুক্ত হয়েছে শত-শত এমনকি হাজার-হাজার প্রতিবন্ধীর নাম। তিনি বগুড়া জেলার গাবতলী উপজেলার বালিয়াদীঘি ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড দড়িপাড়া গ্রামের মৃত ইউসুফ আলী বাচ্চু প্রামানিক’র ছেলে । তিনি প্রায় চার-পাঁচ বছর পূর্বে পক্ষাঘাত (প্যারালাইসিস) রোগে আক্রান্ত হয়ে ডান পা অবশ হয়ে যায়। অনেক কবিরাজি ঝাঁড়ফুক ও ডাক্তারি চিকিৎসা করার পরও পা’টি বিকলঙ্গ হয়ে যায়।

৬মাস বয়সি ১ পুত্র সন্তান, মা, স্ত্রী নিয়ে তার ছোট্ট পরিবার। পরিবারের তিনিই একমাত্র উপর্জনক্ষম ব্যক্তি। স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে না পারলেও লাঠির উপর ভর করে ঠুকঠুক করে চলেন। এদিকে তিনিই একমাত্র উপর্জনক্ষম ব্যক্তি হওয়ায় তাকে সংসারের হাল ধরতে হয়েছে।

ভাড়ায় চালিত ব্যাটারি চালিত অটোভ্যান দিয়ে ভাড়া খেটে তার কোনোমত সংসার চলে। প্রতিদিন ১’শ পঞ্চাশ টাকা থেকে ২’শ টাকা রোজগার হলেও গাড়ির মালিক’কে ১’শ বিশ টাকা দেবার পর অবশিষ্ট টাকা দিয়ে দিনাতিপাতিতভাবে জীবন যাপন করছে জাহাঙ্গীর। এদিকে প্রাকৃতিক দৃর্যোগ ঝড়, বৃষ্টি, খরা, এমনকি বর্ষাকালে গুমোট আবহাওয়ার কারনে মাঝে মধ্যেই রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে যায়।

ফলে কোনদিন উপবাসও থাকতে হয় পরিবারের সদস্যদের। কিন্তু অনিষ্ঠর পরিহাসের কারনে অনেকেই তার গাড়িতে চড়তে চায়না । সরকারিভাবে কিছু আর্থিক অনুদান পেলে তার ভাগ্যর পরিবর্তন হতে পারে এমনটাই মনে করছেন স্থানীয় সুশীলসমাজের সুশীলব্যক্তিবর্গ। এব্যাপারে স্থানীয় সচেতন মহলের ব্যক্তিদয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মহদোয়ের দৃষিআকর্ষণের পাশাপাশি উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের সু:দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

এ সম্পর্কিত আরও

Leave a Reply