ঢাকাঃ সোমবার , ২৩ অক্টোবর ২০১৭ ৯:২৯ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / কর্মকর্তারা ছুটিতে ভোগান্তিতে বিটিসিএল গ্রাহকরা

কর্মকর্তারা ছুটিতে ভোগান্তিতে বিটিসিএল গ্রাহকরা

প্রকাশিত :

খুলনায় কারিগরি ত্রুটির কারণে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ না থাকায় বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনস্ কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল) এর কয়েক হাজার গ্রাহক ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন। গত ছয় দিন ধরে দিন-রাতের অধিকাংশ সময় বিটিসিএল-এর ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ থাকছে। ফলে ইন্টারনেট    নির্ভর অফিস, সাইবার ক্যাফে ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মকাণ্ড অনেকটা স্থবির হয়ে পড়েছে। ভুক্তভোগীরা বিটিসিএল অফিসে যোগাযোগ করেও সমাধান পাচ্ছেন না। ‘কর্মকর্তারা ছুটিতে রয়েছেন, কিছুই করার নেই’ বলে অফিস থেকে জানানো হচ্ছে। জানা যায়, ঢাকার অদূরে গাজীপুর থেকে ময়মনসিংহ পর্যন্ত চার লেন সড়কের কাজ চলছে। এখানে প্রায়শ বিটিসিএল এর ক্যাবল কাটা পড়ে। এতে খুলনা বিভাগের বিভিন্ন স্থানে দীর্ঘসময় ধরে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকছে। এছাড়া বিটিসিএল-এর মগবাজার সার্ভারে কারিগরি উন্নয়নের কাজ চলায় সংযোগ বন্ধ থাকছে। বিটিসিএল-এর খুলনা বিভাগীয় প্রকৌশলী শেখ ওয়াহিদুজ্জামান জানান, খুলনা জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন দফতর থেকে বারবার ফোন করে তদের অভিযোগ জানানো হলেও কারিগরি ত্রুটি পুরোপুরি নিরসন করা যায়নি। ৬ অক্টোবর থেকে টানা ৫ দিন খুলনায় ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ থাকার পর সোমবার ভোর থেকে আংশিক চালু হয়েছে। তবে গতকাল সকাল থেকে আবার বিভিন্ন এলাকায় ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। জানা গেছে, খুলনা মহানগরীসহ ৯ উপজেলা ও খালিশপুর এলাকায় বিটিসিএল এর আলাদা স্টেশন থাকলেও গ্রাহকদের কারিগরি ত্রুটি দূর করার মতো পর্যাপ্ত কারিগরি দক্ষ জনবল নেই। ভুক্তভোগী কয়েকজন গ্রাহক অভিযোগ করেন, গতকাল সমস্যা জানাতে গেলে অফিস থেকে জানানো হয় কর্মকর্তারা সবাই ছুটিতে আছেন। মুঠোফোনে বিটিসিএল-এর সার্ভার কর্মকর্তা আরাফাত বলেন, আমি ছুটিতে বাইরে আছি। অনেকেই অভিযোগ নিয়ে আমাকে ফোন করছেন কিন্তু কিছু করার নেই।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

সম্পদের তথ্য গোপন: দুদক কর্মকর্তা বরখাস্ত

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে এবার নিজেদের এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। সোমবার …

Leave a Reply