Mountain View

‘মাশরাফির নামে স্টেডিয়াম চাই’

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ১৩, ২০১৬ at ৪:১১ অপরাহ্ণ

5

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডেতে সবচেয়ে সফল অধিনায়ক। দায়িত্ব’টা এখনও রেয়েছে তার কাঁধে, তবে ক্রিকেটের সীমানা ছাড়িয়েছেন অনেক আগেই। হাজার হাজার তরুণ-তরুণী, যুবক-যুবতীর অনুপ্রেরণার নিরন্তর উৎস তিনি। কোটি কোটি বাঙ্গালির হৃদয়ের স্পন্দন মাশরাফি বিন মুর্তজা।

চলতি মাসের ৫ অক্টোবর ৩৩ পূর্ণ হলো এই মানুষটির। একই দিন তৃতীয় বছরে পা রাখলেন তার দ্বিতীয় সন্তান সাহেল। ২০০১ সালের ৮ নভেম্বর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় টাইগারদের এই মহানায়কের। তারপর থেকে দলকে দিয়ে যাচ্ছেন দুই হাত ভরে।

ক্রিকেট এখন যেন বাঙালির অস্তিতের সাথে মিশে গেছে। আর সেই ক্রিকেটের জন্য অসংখ্য বার ছুরি-কাঁচির খোঁচায় বদলে গেছে তার মানচিত্র। দুই হাঁটুতে সাতবার করেছেন অপারেশন। তারপরও যেন পিছিয়ে পড়তে নারাজ ৩৩ বছর বয়সি টাইগারদের এই অভিভাবক।

মাশরাফিকে নিয়ে আমাদের মনে আগ্রহের কমতি নেই। আফগানিস্তান সিরিজে মাশরাফির পাগল ভক্ত, মেহেদীর কথা নিশ্চয় মনে আছে সবার। নিরাপত্তা কর্মীদের থেকে কিভাবে আগলে রেখেছেন এই ভক্তকে।

মাশরাফি এমন একজন মানুষ যার জন্য নিজের জীবন বাজি রাখতে প্রস্তুত তার হাজারও ভক্ত। আর এই বীরের জন্য কত কিছুই না করছে তার ভক্তরা। অনেকেই বলছে ‘আমরা ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি তবে দেখেছি মাশরাফির যুদ্ধ।’

তার অনেক ভক্ত তাকে অতিমানব, মহামানব বলে। মাঝে মাঝে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভক্তরা সময় এই যুগের মুক্তিযোদ্ধা বলে ফেলে। কেউ কেই তো আবার তাঁকে দেশের অষ্টম বীরও উপধি দিতে গ্রুপ পেজ খুলছেন।

বেশ কিছুদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেখা মিলছে একটি ছবির। মিরপুরের গ্যালারিতও দেখা যাচ্ছে ছবিটির ‘মাশরাফির নামে স্টেডিয়াম চাই।’ এর আগে তার নামে সিনেমা বানাতে বেশ কয়েকটি ইভেন্ট খুলছে মাশরাফি ভক্তরা।

জানিনা তাদের এই দাবি কতটুক বাস্তবায়ন হবে। মাশরাফি তার এক সাক্ষাতকারে বলেছেন ক্রিকেটারদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা টানলে তার খুব খারাপ লাগে। মাশরাফির মতে সামান্য ক্রিকেট খেলা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে তুলনা বাতুলতা ছাড়া আর কিছু নয়।

এর দ্বারা বুঝা যায় তিনি কখনোই দেশের অষ্টমবীরের খেতাব নিবেন না। তবে তার নামে তো হতে পারে একটি স্টেডিয়াম। যতদিন এই বাংলার বুকে ক্রিকেট থাকবে তত দিন যাতে তাকে মনে রাখতে পারে বাঙ্গালীরা।

আগামী ৮ নভেম্বর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার ১৫ বছর পূর্ণ হবে। ইনজুরির সাথে যুদ্ধ করে এখন পর্যন্ত দেশের হয়ে খেলেছেন ২৫০টি ম্যাচ।
টেস্ট-ওডিআই-টি টোয়েন্টি সব ফর্মেট মিলিয়ে খেলেছেন ২৫০টি ম্যাচ। এর মধ্যে ১৬৫টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ, ৩৬টি টেস্ট ম্যাচ ও ৪৯টি টি – টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন এই ক্রিকেটার।

এ সম্পর্কিত আরও