ঢাকা : ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, রবিবার, ৬:১৭ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

তিন যুদ্ধাপরাধীর ছেলেকে ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান এইচআরডব্লিউ’র

2016-10-asia-bangladesh-policeনিউজ ডেস্ক:
তিন যুদ্ধাপরাধীর পুত্রদের ছেড়ে দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)। ওই তিনজন হচ্ছেন সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী’র পুত্র হুম্মাম কাদের চৌধুরী, মীর কাশিম আলীর পুত্র মীর আহমেদ বিন কাশেম এবং গোলাম আজমের পুত্র আমান আজমী।

এইচআরডব্লিউ’র দাবি গত আগস্টে তাদের গুম করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ ব্যাপারে নির্ভরযোগ্য তথ্য থাকলেও সরকার বিষয়টি স্বীকার করছে না।

১৩ অক্টোবর বৃহস্পতিবার নিউ ইয়র্ক থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সরকারের প্রতি এ আহ্বান জানায় সংস্থাটি। একইসঙ্গে তারা বাংলাদেশে নির্বিচারে ও গোপনে গ্রেফতার বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ-এর এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামস। তিনি  বলেন, ‘বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে গ্রেফতার ও গুমের দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। এরমধ্যে লোকজনকে আটক করা এবং পরে ওই ব্যক্তি যে তাদের হেফাজতে আছেন; সেটা অস্বীকার করা। অনেক ক্ষেত্রেই আটককৃত ব্যক্তিরা নির্যাতন এমনকি খুনেরও শিকার হন। সরকারের উচিত দ্রুত এই তিন ব্যক্তির ব্যাপারে চার্জ গঠন করা অথবা তাদের মুক্তি প্রদান করা এবং গুম ও অবৈধ আটকের অবসান ঘটানো।’

ব্র্যাড অ্যাডামস বলেন, ‘সরকারের কাছে যদি এই তিন ব্যক্তির কারও বিরুদ্ধে প্রমাণ থাকে, তাহলে শিগগিরই তাদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা উচিত। দ্রুত আইনজীবী ও পরিবারের সদস্যদের দেখা করার সুযোগ দেওয়াসহ অন্যান্য প্রক্রিয়া অনুসরণ করা উচিত।’

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের প্রতিবেদনে বলা হয়, সরকার সন্ত্রাসবিরোধী লড়াইয়ের নামে তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে বারবার বাজে আচরণ করছে। বাংলাদেশের দাতা দেশ এবং সন্ত্রাসীবিরোধী লড়াইয়ে যেসব দেশ ঢাকার সঙ্গে একযোগে কাজ করছে তাদের এ বিষয়ে কথা বলা উচিত।

গুমের শিকার বিরোধীদলীয় তিন রাজনীতিকের পুত্রকে কোনও বিচারিক বা আনুষ্ঠানিক চার্জ ছাড়াই আটক করা হয়। আইন অনুযায়ী তাদের কোনও ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে হাজির করা হয়নি। পরিবারের সদস্য বা আইনজীবীদেরও তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ দেওয়া হয়নি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে তাদের গ্রেফতারের বিষয়ে নির্ভরযোগ্য বিবৃতি আসার পরও সরকার ওই ব্যক্তিদের তাদের হেফাজতে থাকার বিষয়টি অস্বীকার করছে।

তিন রাজনীতিকের ‘নিখোঁজ’ পুত্রদের মধ্যে শুধু হুম্মাম কাদের চৌধুরী সক্রিয়ভাবে রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। মীর আহমেদ বিন কাশেম একজন আইনজীবী এবং তার কোনও রাজনৈতিক পদ নেই। আমান আজমী একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল। গ্রেফতারের আগে তারা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগের কথা জানিয়েছিলেন। এর মধ্যে হুম্মাম এবং আমান আজমী তাদের বাসায় পুলিশি নজরদারির কথাও বলেছিলেন।

বাংলাদেশে ব্লগার, নাস্তিক, বিদেশি এবং এলজিবিটি অ্যাক্টিভিস্টদের ভয়ঙ্কর হত্যাকাণ্ড, গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে জঙ্গি হামলার মতো বিষয়গুলোও তুলে ধরেছে এইচআরডব্লিউ। গত ১ জুলাই গুলশানের ওই হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ নিহত হন ২২ জন। এসব হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে সরকার প্রথমদিকে সামান্যই পদক্ষেপ নিয়েছে।

হলি আর্টিজানের দুই জিম্মিকেও গোপনে আটক করা হয়েছিল। এক মাসেরও বেশি সময় পর জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চাপের মুখে সরকার বিষয়টি স্বীকার করে। তিন মাস আটক থাকার পর ওই দুজনের মধ্যে একজনকে পরে কোনও চার্জ গঠন ছাড়াই ছেড়ে দেওয়া হয়। অন্যজন এখনও আটক রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে যদি অভিযোগ গঠন করা হয় তাহলে সেটা কেমন হতে পারে সে বিষয়টি এখনও পরিষ্কার নয়।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

d UNIT DU

ঢাবি ঘ ইউনিট জালিয়াতি : ১ম ও ২য় ভয়ে অসেননি, ৩য়-কে থানায় সোপর্দ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি): ঢাবি ঘ ইউনিট জালিয়াতির সম্ভাব্য পরিণতি আন্দাজ করতে পেরে সাক্ষাৎকারেই অংশ নেননি পরীক্ষায় …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *