ঢাকা : ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, বুধবার, ২:৫৫ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

হোয়াইটওয়াশডের লজ্জা এড়াতে পারল না অস্ট্রেলিয়া

এক পাশ আগলে রেখে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের বিধ্বংসী উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান রোমাঞ্চকর জয়ের আশা জাগিয়েছিলেন; কিন্তু শেষটায় আর পারেননি। টানা পঞ্চম হারে নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ব্যবধানে সিরিজ হারের লজ্জায় ডুবেছে ওয়ানডে র‍্যাংকিংয়ের সেরা অস্ট্রেলিয়া।

গতকাল (বুধবার) কেপটাউনের নিউল্যান্ডসে ৮ উইকেটে ৩২৭ রানের বিশাল স্কোর গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা। জবাবে ২৯৬ রানেই থেমে যায় অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস।

এই প্রথম পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের সবকটিতে হারলো অস্ট্রেলিয়া। এর আগে সবশেষ তারা সিরিজের সবকটি ম্যাচে হেরেছিল ২০০৬-০৭ মৌসুমে; নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজে।

বলার অপেক্ষা রাখে না, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এবারই এল দক্ষিণ আফ্রিকার সবচেয়ে বড় ব্যবধানে সিরিজ জয়। ২০০৯ সালে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৪-১ এ জিতেছিল প্রোটিয়ারা।

একাই লড়াই করা ওয়ার্নারের ব্যাট থেকে আসে অস্ট্রেলিয়ার মোট সংগ্রহের অর্ধেকেরও বেশি রান। এই সিরিজে দ্বিতীয় ও ক্যারিয়ারে নবম ওয়ানডে শতক করার পথে ১৭৩ রান করেন তিনি।

এক দিনের ক্রিকেটে এই নিয়ে তৃতীয়বার দেড়শ’ ছাড়ানো ইনিংস খেললেন।

হোয়াইটওয়াশ এড়াতে এই মাঠে রান তাড়ার রেকর্ড গড়তে হতো অতিথিদের। সে লক্ষ্যে শুরুটা খারাপ ছিল না, অ্যারন ফিঞ্চের সঙ্গে ৭২ রানের জুটি গড়েন ওয়ার্নার।

যদিও এর প্রায় পুরোটাই তার একার অবদান। ইমরান তাহিরের বলে ফিঞ্চ (৪০ বলে ১৯) বোল্ড হলে ভাঙে ১৩.৪ ওভার স্থায়ী জুটি।

ইনিংসের বাকি সময়টাতেও এই একই চিত্র। এক প্রান্ত আগলে রেখে ব্যাট চালিয়ে গেলেন ওয়ার্নার, আর দেখলেন আরেক দিকে সতীর্থদের যাওয়া আসা। অবশেষে ৪৮তম ওভারের প্রথম বলে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের রান আউটে অস্ট্রেলিয়ার শেষ আশাটুকুও শেষ হয়ে যায়।

প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে ১৩৬ বলের মারমুখী ইনিংসে ২৪টি চার মারেন ওয়ার্নার। অবশ্য ১১ রানে স্লিপে একবার জীবন পেয়েছিলেন তিনি। অতিথিদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৫ রান করে করেছেন মিচেল মার্চ ও ট্র্যাভিস হেড।

দক্ষিণ আফ্রিকার ইমরান তাহির, কাগিসো রাবাদা ও কাইল অ্যাবট ২টি করে উইকেট নেন।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নামা স্বাগতিকরা ৫২ রানে তিন উইকেটে হারিয়ে কিছুটা ব্যাকফুটে চলে গিয়েছিল। তবে চতুর্থ উইকেটে সিরিজ সেরা রাইলি রুশো ও জেপি দুমিনির ১৭৮ রানের জুটিতে বিশাল সংগ্রহ গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা।

সিরিজে দ্বিতীয় ও ক্যারিয়ারে তৃতীয় ওয়ানডে শতক করা রুশো ১২২ রান করেন। ১১৮ বলের ইনিংসে ১৪টি চার ও ২টি ছক্কা মারেন তিনি। আর ৭৫ বলে ৮টি চারের সাহায্যে ৭৩ রান করেন দুমিনি।

অস্ট্রেলিয়ার জো মেনি ও ক্রিস ট্রেম্যাইন ৩টি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

দক্ষিণ আফ্রিকা: ৫০ ওভারে ৩২৭/৮ (ডি কক ১২, আমলা ২৫, দু প্লেসি ১১, রুশো ১২২, দুমিনি ৭৩, মিলার ৩৯, ফেহলুকওয়াহো ১১, রাবাদা ৯*, অ্যাবট ০, স্টেইন ৬*; মেনি ৩/৪৯, ট্রেম্যাইন ৩/৬৪, বোল্যান্ড ২/৬৮)

অস্ট্রেলিয়া: ৪৮.২ ওভারে ২৯৬ (ওয়ার্নার ১৭৩, ফিঞ্চ ১৯, স্মিথ ০, বেইলি ২, মার্শ ৩৫, হেড ৩৫, ওয়েড ৭, মেনি ০, ট্রেম্যাইন ০, জ্যামপা ৬*, বোল্যান্ড ৪; ইমরান ২/৪২, অ্যাবট ২/৪৮, রাবাদা ২/৮৪, ফেহলুকওয়াহো ১/৫১)

ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা ৩১ রানে জয়ী

সিরিজ: ৫-০ ব্যবধানে দক্ষিণ আফ্রিকার

ম্যাচ সেরা: ডেভিড ওয়ার্নার (অস্ট্রেলিয়া)

সিরিজ সেরা: রাইলি রুশো (দক্ষিণ আফ্রিকা)

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

messi-turan

অবশেষে জয়ের ধারায় ফিরল বার্সা,বায়ার্নের প্রতিশোধ

একের পর এক হোঁচটে কোণঠাসা হয়ে পড়া দলকে পথে ফেরাতে হ্যাটট্রিক করলেন আর্দা তুরান। আক্রমণভাগের …

Mountain View

আপনার-মন্তব্য