ঢাকাঃ রবিবার , ২২ অক্টোবর ২০১৭ ৭:২৯ অপরাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
প্রচ্ছদ / রাজনীতি / ভালো নেই সুরঞ্জিত, শরীরে বাসা বেঁধেছে জটিল রোগ

ভালো নেই সুরঞ্জিত, শরীরে বাসা বেঁধেছে জটিল রোগ

প্রকাশিত :

full_1975054218_1476588582

আগের সেই আর তেজোদীপ্ত বক্তব্য নেই বর্ষীয়ান প্রবীণ রাজনীতিক সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের। তার স্বভাবসুলভ চাঁছাছোলা বক্তব্য বহুদিন ধরে গণমাধ্যমে আর শোনা যায় না। আসলে সুরঞ্জিত রাজনীতিতে আর সেভাবে সক্রিয়ই নন।

শরীরের ওজন অনেকটাই হারিয়েছেন প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ। তার শরীরে বাসা বেঁধেছে জটিল রোগ। যত দূর জানা গেছে, তার সমস্যা রক্তে। ক্যান্সারের আগের পর্যায়ে আছে সেটি। এ কারণে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডেও তেমন অংশ নেন না তিনি। হারিয়ে ফেলছেন মানসিক শক্তিও।

সুরঞ্জিতের ঘনিষ্ঠজনদের সূত্রে জানা গেছে, তার রক্তের হিমোগ্লোবিনে সমস্যা রয়েছে। এ কারণে ১৫ দিন অন্তর এক ব্যাগ রক্ত দিতে হয়। রক্তের গ্রুপ ‘ও পজিটিভ’। পরিচিতজনদের মধ্য থেকেই এই রক্ত নেয়া হয়। এ জন্য একটি গ্রুপও খুলেছেন তারা। তিনি গত দুই বছরে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে একাধিকবার চিকিৎসা করিয়েছেন। এখনো নিয়মিত ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

সুরঞ্জিতের ঘনিষ্ঠ একজন বলেন, ‘লিডারের ব্লাড ক্যান্সারের গুজব ছড়ালেও এই রোগ হয়নি তার। তবে অবস্থা ভালোও নয়।’

সর্বশেষ গত শনিবার ঢাকেশ্বরী মন্দিরে প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে হোঁচট খেয়ে ব্যথা পান সুরঞ্জিত। এই ঘটনাতেও তিনি তিন দিন হাসপাতালে ছিলেন। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে সুরঞ্জিতের অসুস্থতা নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। বাবার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে ফেসবুকে বার্তা পাঠানো হলেও সুরঞ্জিতের ছেলে সৌমেন সেনগুপ্ত কোনো জবাব দেননি।

বর্ণিল রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী তুখোড় পার্লামেন্টারিয়ান সুরঞ্জিতের রাজনীতির শুরু বামপন্থী সংগঠনে। সাম্যবাদী দর্শনে দীক্ষা নিয়ে ছাত্রাবস্থায় রাজনৈতিক জীবন শুরু করা এই নেতা দীর্ঘ ৫৯ বছর দাপটের সঙ্গেই চলেছেন।

রাজনৈতিক জীবনের কঠিনতম সময়ে কাউকে পাত্তা দিয়ে চলেননি সুরঞ্জিত। দুর্দান্ত সাহস দেখিয়ে দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অর্জন করেছেন বহু সম্মান। তবে শেষ জীবনে রোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি বেশ দুর্বল হয়ে পড়েছেন।

সাম্যবাদী দর্শনে দীক্ষা নিয়ে ছাত্রাবস্থায় রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন এই প্রবীণ নেতা। স্বাধীন দেশের প্রথম সংসদ সদস্যসহ চার দশকের বেশির ভাগ জাতীয় সংসদেই নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। পালন করেছেন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।

মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনের সক্রিয় যোদ্ধা ছিলেন সুরঞ্জিত। তিনি ৫ নম্বর সেক্টরের সাব-সেক্টর কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ চলতি নবম জাতীয় সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী কমিটিরও কো-চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

১৯৩৯ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি সুনামগঞ্জের দিরাইয়ের আনোয়ারপুর গ্রামে জন্ম সুরঞ্জিতের। তার বাবা চিকিৎসক দেবেন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত ও মা সুমতি বালা সেনগুপ্ত। তিনি দিরাই উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং সিলেট এম সি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে সন্মান ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। পরে ঢাকা সেন্ট্রাল ল কলেজ থেকে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন।

দেশের এই প্রবীণ রাজনীতিক ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ছিলেন।

সত্তরের ঐতিহাসিক প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে আওয়ামী লীগের বিজয়ের সময়ও ন্যাপ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭৩, ১৯৭৯, ১৯৮৬, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ এবং ২০০৯, ২০১৪ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বামপন্থী সুরঞ্জিত ১৯৯৬ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগে যোগ দেন।

দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে একবারই মন্ত্রিত্বের স্বাদ পান সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। তবে ২০১২ সালে রেলপথ মন্ত্রী হওয়ার অভিজ্ঞতা অবশ্য সুখকর ছিল না। রেলের উন্নয়নে বেশ কিছু প্রকল্প হাতে নিলেও মন্ত্রীর একান্ত সহকারী ওমর ফারুক ৭০ লাখ টাকাসহ আটক হওয়ার পর ওঠা বিতর্কের পর মন্ত্রিত্ব থেকে সরে দাঁড়ান তিনি। আটক হওয়া কর্মকর্তা দাবি করেছিলেন, ওই টাকা তিনি সুরঞ্জিতের বাসায় নিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে পরে তদন্তে এই দাবির সত্যতা পাওয়া যায়নি। যদিও সুরঞ্জিতের রাজনৈতিক জীবনে এটাই সবচেয়ে কালো অধ্যায় হিসেবে ধরা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

বিএনপি নেতার গাড়িতে হামলা, সিরাজগঞ্জে অর্ধদিবস হরতাল আগামীকাল

সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সাংসদ রুমানা মাহমুদের গাড়ি বহরে হামলার প্রতিবাদে আগামীকাল সোমবার …

Leave a Reply