ঢাকা : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, রবিবার, ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site

পলাতক আসামী শিমুলের জিনপিং-খালেদা বৈঠকে অংশ নেওয়ায় তোলপাড়

khaleda-bg20161016095314

চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের সঙ্গে রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বৈঠক শেষে গাড়িতে উঠে বিদায় নিচ্ছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির এক সদস্য। দিনটি গত শুক্রবার (১৪ অক্টোবর)।

হোটেলের সামনে বিমানবন্দর সড়কে গাড়ি ওঠামাত্রই ওই নেতার পাশে বসা বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা উদ্বিগ্ন হয়ে জানতে চাইলেন, খালেদা জিয়ার সঙ্গে জিনপিংয়ের আলাদা বা একান্ত কোনো বৈঠক হয়েছে কিনা।

জবাবে বিএনপির ওই নেতা আক্ষেপ করে বলেন, ‘সেই পরিস্থিতি কি তোমরা রেখেছ?’ অর্থাৎ বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকায় একান্ত সেই বৈঠক হয়নি, এমনটাই বোঝাতে চান ওই নেতা।

শি জিনপিংয়ের সঙ্গে খালেদা জিয়ার বৈঠকে শিমুল বিশ্বাসের অংশগ্রহণ নিয়ে দুইদিন ধরে তোলপাড় চলছে বিএনপির গণ্ডি পেরিয়ে বাইরেও। চীনের প্রেসিডেন্টের সফর ঘিরে যেখানে পুরো ঢাকা শহর নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা ছিল, সেখানে বিএনপির প্রতিনিধিদলের সদস্য না হয়েও কী করে পুরো ৪০ মিনিট ওই বৈঠকে শিমুল বিশ্বাস বসে থাকতে পারলেন, এর হিসেব মেলাতে পারছেন না বিএনপি নেতারা।

দলের এক নেতা জানান, আইনের চোখে শিমুল একজন পলাতক আসামি। তার নামে মামলা আছে ৪৭টি। এসবের মধ্যে অন্তত ১০টিতে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি আছে। কিন্তু পুলিশ তাকে ধরার উদ্যোগ নেয়নি একবারও। অথচ আদালতে হাজির হয়ে জামিন না নিলে বিএনপির অন্য নেতাদের বাসায় গিয়ে তল্লাশি চালিয়ে থাকে পুলিশ। এভাবে তাদের চাপের মধ্যে রাখা হয়।

বিএনপি নেতাদের মতে, রহস্যময় কারণে ওই ধরনের কোনো চাপ নেই শিমুল বিশ্বাসের ওপর।

শিমুল হয় খালেদা জিয়ার বাসায়, নয়তো অন্য কোথাও আত্মগোপনে থাকেন। ফলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এমনকি গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর নিরাপত্তা ব্যূহ ভেদ করে শুক্রবারের ওই বৈঠকে শিমুলের যোগদানের ঘটনা বিএনপি নেতারা সন্দেহের চোখে দেখছেন। কেউ কেউ বিষয়টি রহস্যজনক বলে মনে করছেন।

অনেকে মনে করেন, সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের সবুজ সংকেত ছাড়া এ ঘটনা কিছুতেই সম্ভব হতে পারে না। কেউ কেউ এক ধাপ এগিয়ে এ কথাও বলছেন যে খালেদা-জিনপিং বৈঠকের তথ্য-উপাত্ত পাওয়ার জন্যই শিমুলকে আগেভাগে বৈঠকস্থলে বসিয়ে রাখা হয়েছিল। এ কারণে গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন তাকে দেখেও না দেখার ভান করেছেন অথবা তাকে ঢুকতে সাহায্য করেছেন।

সব মিলিয়ে গতকাল শনিবার (১৫ অক্টোবর) সারা দিনই বিএনপিসহ রাজনৈতিক মহলে আলোচনায় ছিল ওই বৈঠকে শিমুলের যোগদানের ঘটনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা তুঙ্গে। বৈঠকের পর বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে খালেদাসহ বিএনপি নেতাদের সঙ্গে শিমুল বিশ্বাসকেও বসে থাকতে দেখা যায়।

বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা বলছেন, শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকে দলীয় প্রতিনিধি ছাড়া কর্মকর্তা পর্যায়ের কারো উপস্থিতির এমন ঘটনা নজিরবিহীন।

কর্তব্যরত এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘চীনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকে যোগদানের জন্য বিএনপির মোট সাত নেতার নাম ছিল আমাদের কাছে। কিন্তু বৈঠকের অনেক আগে থেকে শিমুল বিশ্বাস হোটেলে গিয়ে বসে ছিলেন। এক প্রশ্নের জবাবে ওই কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘কীভাবে শিমুল বিশ্বাস ঢুকেছেন জানি না। এটি বুঝে নিতে হবে।’

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক ও বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য শ ম রেজাউল করিম বলেন, আইনের দৃষ্টিতে ফৌজদারি মামলায় পলাতক আসামিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গ্রেফতার করতে বাধ্য। পলাতক আসামিকে গ্রেফতার না করা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে এ ধরনের অপরাধী থাকা বা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রশ্রয়ে থাকা সংশ্লিষ্ট আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যের জন্যও ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। এছাড়া বিষয়টি দায়িত্বে অবহেলা ও চাকরি শৃঙ্খলাবিধির আওতায়ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। দণ্ডবিধির ২২১ ও ২২২ ধারায় এই বিধান রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খালেদা জিয়া ও শি জিনপিংয়ের বৈঠকে উপস্থিত বিএনপি নেতারাও নিজেদের মধ্যে এ নিয়ে আলোচনা করেছেন। বিষয়টি তাদের কাছেও খটকা লেগেছে। কারণ বৈঠকের জন্য বিএনপির পক্ষ থেকে দেওয়া তালিকায় শিমুল বিশ্বাসের নাম ছিল না।

বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, চীনাদের কাছে বিএনপি প্রতিনিধিদের নাম আমিই দিয়েছি; কিন্তু সেখানে শিমুল বিশ্বাসের নাম ছিল না। শিমুল কীভাবে সেখানে ঢুকেছে তা আমার জানা নেই।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবিহউদ্দিন আহমেদ বলেন, আমি বলতে পারবো না শিমুল বিশ্বাস সেখানে কীভাবে ঢুকেছেন। আমি তা খেয়াল করিনি। তবে এটি ঠিক যে এ রকম উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে আগে এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি।

খালেদা জিয়া ছাড়াও বৈঠকে যোগদানের জন্য নাম দেওয়া হয়েছিল দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, নজরুল ইসলাম খান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ভাইস চেয়ারম্যান সাবিহউদ্দিন আহমেদ ও রিয়াজ রহমানের। যানজটে আটকা পড়ায় রিয়াজ রহমান সময় মতো বৈঠকে উপস্থিত হতে পারেননি। ফলে তার আসনটি খালি থাকে এবং ওই আসনে গিয়ে প্রথম সারিতেই বসে থাকেন শিমুল বিশ্বাস।

প্রটোকলে না মিললেও গুলশান কার্যালয়ের ক্ষমতাবান ব্যক্তি শিমুল বিশ্বাসকে উপস্থিত বিএনপি নেতারা আসন ছাড়ার কথা বলতে পারেননি। অন্যদিকে চেয়ারপারসনও তাকে এ বিষয়ে কোনো নির্দেশনা দেননি। এ বিষয়ে বিএনপির একাধিক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এটি তাদের নয়, দলীয় চেয়ারপারসনের বলার কথা।

এ ধরনের শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকে দোভাষী ছাড়াও কখনও কখনও সাহায্যকারী হিসেবে অনেকের প্রয়োজন হয়। কিন্তু আনুষ্ঠানিক বৈঠক শুরু হওয়ার পর প্রটোকল অনুযায়ী তাদের বেরিয়ে যেতে হয়।

অথবা তারা বৈঠকস্থল থেকে অনেক দূরে বসে থাকেন। এ ধরনের বৈঠকে কর্মকর্তা পর্যায়ের কারো এভাবে বসে থাকার ঘটনা নজিরবিহীন বলে বিএনপি নেতারা জানান। তাদের মতে, এ ঘটনায় বিএনপির প্রতি চীনাদের আস্থা নষ্ট হবে।

এ সম্পর্কিত আরও

Check Also

বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিতে আগ্রহী কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত

বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে কাতার ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। শনিবার (১০ ডিসেম্বর) …

Mountain View

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *