যে কারণে ইনফর্ম শাহরিয়ারকে বসিয়ে টেস্টেও অফফর্মে থাকা সৌম্য

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ১৭, ২০১৬ at ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

sahriar

জাহিদুল ইসলাম, বিডি টুয়েন্টিফোর টাইমস : ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের জন্য প্রথম ম্যাচের দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। সেখানে ৬ টি পরিবর্তন এসেছে শেষ টেস্টে খেলা দলটি থেকে। গত দুই বছর ধরে সাদা পোশাকের ক্রিকেট তথা লংগার ভার্সনে রানের বন্যা বইয়ে দেয়া শাহরিয়ার নাফিসকে আবারও উপেক্ষিত রাখায় দল নিয়ে সারাদেশের চায়ের টেবিলে বিতর্ক শুরু হয়েছে। ঘুরে ফিরে একটাই প্রশ্ন দলে কেন অফ ফর্মে থাকা সৌম্য সরকার। রঙিন পোশাকে  তথা ওয়ানডে ক্রিকেটে তিনি মাস ছয়েক দারুন ছন্দে ছিলেন। এরপর গত ২/৩ মাস ধরে তার ব্যাটে রান নেই। জিম্বাবুয়ে সিরিজের পর আফগানিস্তান সিরিজেও ব্যাটে রানখড়া। এর আগে টেস্ট অভিষেক হলেও নিজেকে টেস্ট ম্যাচের জন্য উপযোগী প্রমাণ দিতে পারেননি। ২ টেস্টের ৪ ইনিংসেই উইকেট দিয়ে এসেছেন।

মারকাটারি এই ব্যাটসম্যানকে দিয়ে তাই এখনই টেস্ট -এ কাজ চালানো একেবারেই অনুচীত বলে মনে করেন বেশির ভাগ টাইগার সমর্থকরা। অন্যদিকে গেল মৌসুমে দেশের ঘুরোয়া ক্রিকেটের ইতিহাস নতুন করে লিখেছেন এই দলটিরই প্রধাণ নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর রেকর্ড ভেঙে দিয়ে। এরপরও মন গলাতে পারেন নি শাহরিয়ার নাফিস। ২ দিন আগেও এই ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই একেবারে নিখাদ সলিড ব্যাটিং করে হার না মানা ফিফটি করে দেখিয়েছেন সাদা পোশাকে খেলার জন্য কতটা প্রস্তু তিনি।

কিন্তু আখেরে কোন লাভ হয় নি। ভাগ্যের চাকা ঘোরে নি শাহরিয়ার নাফিসের। নিজেকে দূর্ভাগা ভাবতে পারেন আব্দুল মজিদও। যারা বাংলাদেশের জাতীয় লিগ ও বিসিএলের খোঁজ খবর রাখেন তারা বলতে পারবেন গত ৩/৪ বছর ধরে কতটা ধারাবাহিক ময়মনসিংহের এই টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান।  একাধিকবার জাতীয় লিগের সেরা রান সংগ্রাহকও হয়েছেন। দল ঘোষণার ঠিক আগেই তো ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করলেন। তাতেও কাজ হলো না।

অন্যদিকে বারবার ব্যর্থ হয়েও লংগার ভার্সনের জন্য পস্তু ও যথার্থ না হওয়া সত্বেও বারবার সুযোগ পাচেছন সৌম্য সরকার। যার কারণ হিসেবে থাকছে কোচের ব্যাক্তিগত ভালো লাগার বিষয়টি। এখানেই প্রশ্ন। আপনার যাকে খুশি ভালা লাগবে আর তাকেই ম্যাচের পর ম্যাচ সুযোগ দিবেন এমনটা তো হওয়া উচিৎ নয়। অবশ্যই সুযোগের সমতা প্রয়োজন। বাংলাদেশের সংবিধানে ১৯ নং অনুচ্ছেদেও বলা আছে সুযোগের সমতার কথা। নির্বাচক এবং কোচদের সে বিষয়েও একটু ওয়াকিবহাল হওয়া প্রয়োজন আর কি। দিন শেষে দলটি কিন্তু কোচ কিংবা নির্বাচকত্রয়ীর নয়। এটি বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তাই নিজের ব্যাক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ এসব মাথায় থেকে ঝেড়ে ফেলুন। ফর্মে থাকা সেরা ও যোগ্যদের নিয়েই দল গড়ুন।

লেখক : সাবেক ক্রিকেটার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সাংবাদিক ও কলাম লেখক [email protected]

এ সম্পর্কিত আরও