Mountain View

সখীপুরে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ১৭, ২০১৬ at ৮:৪১ পূর্বাহ্ণ

9i45-cuw_xyyjndsavyvmhtpdfjo52zufvnje86ma7q78rilw9ds4ysrotal7g4uxbzpdytsimtxdyqvhlxyiofcyallzqfttnfiqau_jszw2mhcykk1-quw500-h294-nc

টাঙ্গাইলের সখীপুরে যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী (৬) ধর্ষণের শিকার হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার যাদবপুর পূর্বপাড়া গ্রামে ওই শিশুর মা পাশের বাড়ির ফ্রিজ থেকে মাছ আনতে গেলে প্রতিবেশী দুই সন্তানের জনক বখাটে মজিবর (৩০) জোর পূর্বক পাকের ঘরে নিয়ে বটিদা দিয়ে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় সখীপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর (সংশোধনী ২০০৩) ৯ এর ধারায় শিশুটির মা বাদী হয়ে মামলা করেছেন।

ধর্ষক পলাতক রয়েছে। শিশুর মা জানিয়েছেন, স্বামী প্রবাসে থাকায় এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে বাড়িতে থাকি। শুক্রবার সন্ধ্যায় মেয়েটিকে একা বাড়ি রেখে পাশের বাড়ির ফ্রিজ থেকে মাছ নিয়ে বাড়ির পথে আমার মেয়ের উচ্চস্বরে কান্না শুনতে পেয়ে আমি দ্রুত ছুটে আসি। এ সময় রান্নাঘর থেকে মজিবর দৌড়ে পালিয়ে যায়। আমার মেয়েকে প্রায় অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে তার মাথায় পানি ডেলে কোন রকম সুস্থ করি। পরে সে সব ঘটনা আমায় খুলে বলে। তিনি আরও বলেন, মেয়েটি আমার খাওয়া দাওয়া ছেড়ে আস্তে আস্তে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। তার পশ্রাবের রাস্তা ফুলে গেছে। চিকিৎসা ও মামলা না করতে মজিবর তার লোকজন দিয়ে হুমকি দিচ্ছেন। মামলা করলে আমার ছেলে ও মেয়ের ক্ষতি করবে বলেও তারা হুমকি দিয়েছেন। পরে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন সখীপুর শাখার সহযোগিতায় আমি মামলা ও শিশুর চিকিৎসা নিতে সাহস পেয়েছি। মেয়েটি বাবা প্রবাস থেকে মুঠোফোনে বলেন, আমার শিশু মেয়েকে যে নর পিচাস নির্যাতন করেছে আমি তার সুষ্ঠু বিচার চাই। প্রতিবেশী অবসর প্রাপ্ত বিট কর্মকর্তা আবদুল হামিদ বলেন, বখাটে মজিবর এর আগেও এ রকম একটি ঘটনা সে ঘটিয়েছিল। তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত।

যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. নবাব আলী অবুঝ শিশুর ওপর পাশবিক নির্যাতনকারী বখাটে মজিবরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। সখীপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাকছুদুল আলম বলেন, এ ঘটনায় একাধিকবার গিয়ে ধর্ষককে পাওয়া যায়নি। গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

এ সম্পর্কিত আরও