রাবি -চবির ভর্তি পরীক্ষায় সময়সূচি নিয়ে বিপাকে ভর্তিচ্ছুরা

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ১৮, ২০১৬ at ৫:৩৫ অপরাহ্ণ

একই সময়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে করে বিপাকে পড়েছেন ভর্তিচ্ছুরা। তবে সময়সূচি নির্ধারণ নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছেন দুই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।full_35574820_1476789925

জানা গেছে, আগামী ২৪ থেকে ২৭ অক্টোবর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৩ থেকে ৩১ অক্টোবর ভর্তি পরীক্ষায় সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কলা অনুষদের পরীক্ষা ২৬ অক্টোবর সকাল ৯টা থেকে ১০টা এবং ১১টা থেকে ১২টা দুই শিফটে অনুষ্ঠিত হবে।

অন্যদিকে, চট্টগ্রামে কলা অনুষদের ভর্তি পরীক্ষা ২৬ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে। ফলে একই দিনে একই ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলে শিক্ষার্থীদের যে কোনো একটি বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়তে হবে। এছাড়া অন্যান্য অনুষদগুলোর পরীক্ষাও একই অবস্থা। ফলে চবিতে কোনো পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে আবার রাবিতে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা প্রায় অসম্ভব।

ভর্তিচ্ছু বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, দুইটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষার একই সময়ে অনুষ্ঠিত হবে। তার মধ্যে এতে একটি ইউনিটে একই দিনে পরীক্ষা। সমমানের এই দুইটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে কোনটাকে প্রাধান্য দিবো বুঝতে পারছি না।

আরেক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী বলেন, আগে থেকে প্রায় সবগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ে কমবেশি ফর্ম তুলেছি। এখন রাবি-চবির প্রশাসনে এমন সিদ্ধান্তে টাকা তো নষ্ট হবেই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে পারার সুযোগও কমে যাবে। তবে এ বিষয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়র কর্তৃপক্ষ বলছেন, তারা আগে সূচি ঘোষণা করেছেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ একই দাবি করছেন।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ১৮ জুন ভর্তি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ করে। অন্যদিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ২৭ জুন প্রকাশ করেছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক কামরুল হুদা বলেন, আমরা পরীক্ষার সময়সূচি আগে প্রকাশ করেছি। তাই আমাদের পরীক্ষা সূচি পরিবর্তনের কোনো সুযোগ নেই।

জানতে চাইলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন বলেন, আমরা আগে ভর্তি পরীক্ষার সময় ঘোষণা করেছি। সে হিসেবে তাদের উচিত ছিল আমাদের সঙ্গে সমন্বয় করা। এর আগের বছরেও তারা এমনটা করেছিল। আমরা তাদের বিষয়টা জানিয়েছিলাম কিন্তু তারা শোনেনি।

এ সম্পর্কিত আরও