দুলাভাইকে গাছের সঙ্গে বেঁধে শ্যালিকাকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ২

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ২৪, ২০১৬ at ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ

narayngaj

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলায় এক তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগে রবিবার দুই যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দুলাভাইকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) রাতে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করা হয়। পরে রবিবার বিকালে মামলা দায়েরের পরেই পুলিশ দুইজনকে গ্রেফতার করে।

গণধর্ষণের শিকার ওই তরুণীর বাড়ি ডেমরার লালানগর গ্রামে। সে নারায়ণগঞ্জের আদমজী ইপিজেটের গার্মেন্টকর্মী। অন্যদিকে গ্রেফতারকৃত সেলিম (৩৫) সোনারগাঁও উপজেলার মুন্দিরপুর গ্রামের তোতা মিয়ার ছেলে ও আজিজুল (৩৬) একই গ্রামের আলী রহমানের ছেলে।

সোনারগাঁও থানায় দায়ের করা মামলার বরাত দিয়ে থানার ওসি শাহ মো. মঞ্জুর কাদের জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওই তরুণী তার দুলাভাইয়ের সঙ্গে ডেমরা থেকে সোনারগাঁও উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মুন্দিরপুর গ্রামে তার ভাগিনার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। রাত ১২টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিলে বের হলে ওঁৎ পেতে থাকা একই গ্রামে মাদক সেবনকারী সেলিমের নের্তৃত্বে ডালিম, আজিজুল, আলমসহ ৭-৮ জনের একটি দল ওই তরুণীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। বিষয়টি তরুণীর দুলাভাই টের পেয়ে তাদের পিছু নিলে একটি বাগানে তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখে। এ সময় দুলাভাইয়ের সামনেই শ্যালিকাকে গণধর্ষন করে বখাটেরা।

বিষয়টি শুক্রবার সকালে জানাজানি হলে স্থানীয় বিচার সালিশকারী আনোয়ার ও মঞ্জুরকে ম্যানেজ করে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে ধর্ষকরা। বিষয়টি নিয়ে রবিবার বিকাল ৩টায় সালিশের কথা থাকলেও আনোয়ার ও মঞ্জুর বিচার সালিশ না করায় ওই তরুণী সোনারগাঁও থানায় অভিযোগ করেন। অভিযোগের পরেই রবিবার সাড়ে ৫টায় সোনারগাঁ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে একাধিক টিম মুন্দিরপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ঘটনার মূল হোতা সেলিম ও আজিজুলকে গ্রেফতার করে।

ওসি আরও জানান, বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ১০০ শয্যা বিশিষ্ট নারায়ণঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও