Mountain View

শিশু ধর্ষণ: আসামি রিমান্ডে, চিকিৎসার খরচ সরকারের

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ২৭, ২০১৬ at ১১:৫১ অপরাহ্ণ

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় সন্দেহভাজন সাইফুল ইসলামকে সাত দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। বিকালে জেলার আমলী আদালত-৫ এর বিচারক কৃষ্ণ কমল রায় এই আদেশ দেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মেয়েটির চিকিৎসার সব খরচ সরকার বহন করবে বলে জানানো হয়েছে। গত ১৮ অক্টোবর দিনাজপুরে নিখোঁজ হয় মেয়েটি। পরদিন ফসলের মাঠ থেকে প্রায় অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয় তাকে। শিশুটি তাৎক্ষণিকভাবে একজনের নাম জানালে তার বাবা সাইফুল ইসলাম ও আফজাল হোসেন কবিরাজ নামে দুই জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। গত ২০ অক্টোবর মামলার চারদিন পর গত মঙ্গলবার সাইফুল ইসলামকে দিনাজপুর শহর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাকে রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করে পুলিশ। দুপুরে সেই আবেদনের ওপর শুনানি হয়। কোর্ট ইনস্টিক্টর শহীদ সোহরাওয়ার্দীকে আদালতে বলেন, শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় আসামিকে পর্যাপ্ত জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন। এ জন্য তাকে রিমান্ডে দিলে সুবিধা হয়। দিনাজপুর আইনজীবী সমিতির সদস্যরাও রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন। গত মঙ্গলবার মেয়েটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে রাখা হয়েছে। শিশু সার্জারি বিভাগের প্রধান আশরাফুল হক কাজল ও গাইনি বিভাগের অধ্যাপক সালমা রউফের অধীনে তার চিকিৎসা চলছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ধর্ষণের পর শিশুটির প্রজনন অঙ্গে পোকা ধরে গেছে। মাথায়ও আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। সারা শরীরে বিভিন্ন ক্ষতচিহ্ন। শরীরে ধরলেই ব্যথা পাচ্ছে সে। চিকিৎসার খরচ সরকারের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, মেয়েটির চিকিৎসার যত খরচ হবে তার সবই বহন করবে সরকার। দুপুরে হাসপাতালে নিজ কক্ষে তিনি সাংবাদিকদের জানান, শিশুটির শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। তার সংক্রমণ যেন ছড়িয়ে না পড়ে, সে জন্য উচ্চমাত্রার অ্যান্টিবায়োটিক দেয়া হয়েছে। মেয়েটির চিকিৎসার জন্য গত বুধবার নয় সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করেছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। মেয়েটি এখনও অপারেশনের পর্যায়ে আসেনি বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল পরিচালক। জানান, শরীরের নানা জায়গায় এখনও গুরুতর জখম রয়ে গেছে মেয়েটির।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View