ধনবাড়ীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে ধসে গেছে ফসলি জমি

প্রকাশিতঃ অক্টোবর ২৮, ২০১৬ at ১০:২৩ অপরাহ্ণ

downloadটাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলায় প্রভাবশালী এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ড্রেজার মেশিনে আবাদি জমি থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মাধ্যমে বাণিজ্য করার অভিযোগ উঠেছে। বালু উত্তোলনের ফলে আশপাশের ফসলি জমি ধসে গিয়ে চাষাবাদে হুমকির মুখে পড়েছে। শঙ্কিত চাষীরা তাদের জমি অনাবাদী রাখতে বাধ্য হয়েছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত সুরুজ্জামান তারা মুশুদ্দি ইউনিয়নের বন্দও চরপাড়া গ্রামের মৃত আছর আলীর ছেলে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ একাধিক দপ্তরে অনুলিপি দেয়া এলাকাবাসীর অভিযোগপত্রে জানা যায়, উপজেলার মুশুদ্দি ইউনিয়নের কেরামজানী রাস্তার পশ্চিম পাশে ও মুশুদ্দি পূর্বপাড়ার পূর্ব পাশের ২০ একর জমিতে নানা ধরণের সবজি চাষ হতো। এর আশেপাশে প্রচুর ধানসহ অন্য ফসল চাষের জমিও রয়েছে।

সুরুজ্জামানরা প্রভাবশালীদের যোগসাজসে ড্রেজার মেশিনে (খাস জমি থেকে) বালু উত্তোলন করে আশপাশের জমির উপর দিয়ে রাস্তা করে বালু গন্তব্যে নিয়ে যেতেন। গত এক বছর ধরে চালানো তার এ বালু উত্তোলনের ফলে ওই সবজি মাঠের মাঝে প্রায় অর্ধশত ফুট গভীর গর্ত হয়ে আশপাশের প্রায় ২ একর জমি ধসে চাষের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এতে অনেক পরিবার নিঃস্ব হচ্ছে। ভূমি ধস আর বালু আনা নেয়ার সাময়িক রাস্তায় আরও ২শ’ হেক্টর ফসলী জমি নষ্ট হয়েছে। এ ক্ষতি অব্যাহত থাকবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে এলাকাবাসীর আবেদনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ইউপি চেয়ারম্যান খন্দকার মঞ্জুর মোর্শেদ সুপারিশ করেছেন।
এলাকাবাসীর অভিযোগের পেক্ষিতে ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট শামীম আরা রিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে সুরুজ্জামান তারার বিরুদ্ধে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এতে বালু উত্তোলন বন্ধ করলেও সরেজমিনে গিয়ে ড্রেজার মেশিন আগের অবস্থানেই দেখা গেছে। অনেকের শঙ্কা যেকোন সময় তিনি আবারও বালু উত্তোলন আবার শুরু করবেন।

ভ্যান চালক মাসুদ মিয়া টিনিউজকে বলেন, ক্ষমতার প্রভাব আর টাকা থাকলে অন্যায় হোক আর যাই হোক ঠেকায় কে? সবজি চাষ করে সংসার চালানো অনেক চাষি পথে বসার যোগাড় বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এলাকার সাইফুল, সাইদুর, ফারুক, আলামিন, রিনা বেগম জানান, বাকি জমি, রাস্তা, বসতভিটা ও পরিবেশ হুমকির মুখে পড়ায় সংশ্লিষ্টরা শঙ্কিত। এ শংকায় দ্রুত অবৈধ বালু উত্তোলন স্থায়ীভাবে বন্ধ করার দাবি তাদের। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দাবিও করেছেন তারা।
সুরুজ্জামান তারা টিনিউজকে জানান, পৈত্রিক জমিতে একটি উন্নয়নমুখি পরিকল্পনা করতে বালু উত্তোলন করা হচ্ছিল। ওই প্রকল্পে অনেকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার ইচ্ছার কথাও জানান তিনি। সুরুজ্জামান অভিযোগ করেন, প্রতিবেশিদের সহযোগিতা চেয়ে পাওয়া তো দূরের কথা বরং বিরোধিতা করে সেটি বাধাগ্রস্ত করা হয়েছে।
ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আরা রিনি টিনিউজকে জানান, ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা করে তাকে এ কাজ থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। আবারও তিনি করলে নিয়মিত মামলার মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে।

এ সম্পর্কিত আরও