Mountain View

বিমানবন্দরে হামলার ঘটনায় নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ৭, ২০১৬ at ৭:২৪ অপরাহ্ণ

চলতি বছরের মার্চ থেকে নেয়া হয়েছিলো বিমানবন্দরের ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের নেতৃত্বে সিআরটি নামের একটি গঠন করা হয়েছে। তবুও ওই নিরাপত্তা বেষ্টনীর ভিতর দিয়ে গতকাল রোববার হামলা চালিয়ে ছুরিকাঘাত করে এক আনসার সদস্যকে হত্যা করেছে এক দুর্বৃত্ত। তবে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের ভাষ্যমতে, এটা কোনো নাশকতা নয়, শুধুই দুর্ঘটনা। কারণ হিসেবে তারা দেখছে নিরাপত্তার কোনো ঘাটতি থাকলে ওই যুবককে তারা গ্রেপ্তার করতে পারতো না।full_2119313482_1478523764

গতকাল রোববার সন্ধ্যায় হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক যুবকের ছুরিকাঘাতে সোহাগ আলী (২৮) নামে এক আনসার সদস্য নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও দুই আনসার সদস্য ও আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) দুই সদস্য। বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এপিবিএন সদস্যরা হামলাকারীকে আহতাবস্থায় আটক করেন। বর্তমানে ওই ঘাতক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩৬ নম্বর কেবিনে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তাকে দেখাশুনা করছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের বিশেষ শাখার কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ইউনিট।

এ ঘটনায় বিমানবন্দর থানায় আনসারের পক্ষ থেকে একটি মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. নুরে আযম মিয়া। তিনি বলেন, গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি এখন ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন। তাকে এখনও তেমনভাবে জিজ্ঞাসাবাদের সুযোগ হয়নি।

বিমানবন্দরের একটি সূত্র জানিয়েছে, হামলাকারী নিজের নাম সিহাব এবং ক্লিনার বলে পরিচয় দেয় প্রথমে। তার বয়স আনুমানিক ৩০। বাড়ি রাজশাহীতে। তবে সে ক্লিনার নয় বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তার প্রকৃত নাম-পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।

বিমানবন্দরের আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সহকারী পুলিশ সুপার তানজিন আক্তার বলেন, বিমানবন্দরে একে ট্রেডার্সে কর্মীরা এখানে হলুদ গেঞ্জি পরে পরিচ্ছন্নতার দায়িত্ব পালন করে। সে প্রথমে হলুদ গেঞ্জি পড়েই বিমানবন্দরে ঢুকেছে। পরে নিরাপত্তায় নিয়োজিত ব্যক্তিরা তার পরিচয়পত্র দেখতে চাইলে, সে ওই নিরাপত্তাকর্মীদের চ্যালেঞ্জ করলে এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় বিমানবন্দরের কোনো নিরাপত্তার ঘাটতি নেই বলেও মনে করেন তিনি।

এ সম্পর্কিত আরও

Mountain View